বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গুলশান অফিস নিয়ে অস্থিরতা

news-image

ডেস্ক রির্পোট বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারীকে নিয়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশনে খোলামেলা কথা বলেছেন সাবেক সহকারী প্রেসসচিব মহিউদ্দিন খান মোহন। সম্প্রতি তিনি একাত্তর টেলিভিশনে বলেছেন, যে শ্রমিক সংগঠনে আওয়ামী লীগ সরকারের নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান সভাপতি সেই সংগঠনে চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস কী করে যুগ্ম-সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে বহাল থাকেন। এ নিয়ে নেতা-কর্মীদের প্রশ্ন তোলা খুবই স্বাভাবিক। টকশোতে তিনি আরও কঠোর ভাষায় আক্রমণ করেন শিমুল বিশ্বাসকে। দলের সিনিয়র একাধিক নেতার সঙ্গে শিমুল বিশ্বাসের টেলিফোনে কথাবার্তা নিয়েও নেতা-কর্মীরা বিব্রত ও ক্ষুব্ধ। একইভাবে চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে থাকা গুটিকয়েক কর্মকর্তা (সামরিক-বেসামরিক সাবেক আমলা) এবং দুই-একজন অফিস স্টাফের ভূমিকা নিয়েও নানামুখী সমালোচনা করছেন নেতা-কর্মীরা। গুলশান কার্যালয়ের কে কার এজেন্ট- তা নিয়েও মুখরোচক আলোচনা চলছে বিএনপিতে।

জানা যায়, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে নেতা-কর্মীদের হাজারো অভিযোগের মুখেও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নানা কারণে বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে আপাতত কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। লন্ডনে চিকিৎসাধীন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও তাদের ওপর চরম নাখোশ। নিজে বিক্ষুব্ধ হয়েও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না বেগম জিয়া। তবে যে কোনো সময় গুলশান কার্যালয়ের স্ট্রাকচারে (কাঠামো) আমূল পরিবর্তন আসতে পারে বলে জানা গেছে।  সূত্রমতে, প্রভাবশালী ওইসব কর্মকর্তার সঙ্গে চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়েরও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব চরমে। বেগম জিয়া গুলশান কার্যালয় ছাড়ার পরে চেয়ারপারসনের প্রেসসচিব মারুফ কামাল খান সোহেল আর সেখানে যাননি। যদিও গুলশান কার্যালয় থেকে বলা হচ্ছে, প্রেসসচিব অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, গুলশান কার্যালয়ের বিতর্কিত কর্মকর্তাদের রোষানলে পড়েই অনেকটা অভিমানে যাচ্ছেন না সোহেল। হাসপাতালে থেকেই চেয়ারপারসনকে নানাভাবে সহযোগিতা করছেন তিনি। এ ছাড়া প্রেস উইংয়ের অন্য দুই কর্মকর্তাও বিএনপিপ্রধানের দৈনন্দিন কর্মসূচিসহ নানা বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। জানা যায়, বিতর্কিত কর্মকর্তা ও স্টাফদের বিরুদ্ধে কথা বলায় গুলশান কার্যালয়ে দায়িত্বে থাকা দলের একজন সহ-দফতর সম্পাদককে কৌশলে নয়াপল্টনে সরিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে দফতর শাখা থেকে আরেক সহ-দফতর সম্পাদককে কাজ করার নির্দেশনা দেন প্রভাবশালী এক কর্মকর্তা। অবশ্য বেগম জিয়ার নির্দেশে ওই সহ-দফতর সম্পাদককে আবারও গুলশান কার্যালয়ে দফতর বিভাগ দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরই মধ্যে হঠাৎ করেই যুক্তরাজ্য শাখা বিএনপির কমিটিসহ দুটি গুরুত্বপূর্ণ পদে দুজনকে মনোনয়ন দেওয়া নিয়েও নেতা-কর্মীদের মধ্যে নানামুখী প্রশ্ন। দল পুনর্গঠনের আগ মুহূর্তে এ ধরনের নিয়োগ কি বিএনপিপ্রধানের সিদ্ধান্ত না তিনি বাধ্য হয়েছেন তা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন মাঠের নেতা-কর্মীরা। সূত্র জানায়, চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের কিছু কর্মকর্তাকে ঘিরে এ অস্থিরতার প্রভাব পড়ছে কেন্দ্র থেকে মাঠ পর্যায়েও। তৃণমূল নেতা-কর্মীরা বলছেন, গত বছর ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে গুলশান কার্যালয়ের গুটিকয়েক কর্মকর্তার ‘বিতর্কিত’ সিদ্ধান্তে দলটি চরম বেকায়দায় পড়ে। তিন মাসের আন্দোলনে ওইসব প্রভাবশালী কর্মকর্তাই ছিলেন আন্দোলনের হর্তাকর্তা। প্রথমদিকে টেলিফোনে কথা বলা শুরু করলেও সুকৌশলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দলের ত্যাগী নেতা-কর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখেন ওই প্রভাবশালী মহল।  সূত্রমতে, বিএনপি চেয়ারপারসন এখন সরকারি বা বিরোধী দলের প্রধান না থাকা সত্ত্বেও গুলশান কার্যালয়ে এমন একটি পরিবেশ তৈরি করে রাখা হয়েছে যাতে নেতা-কর্মীরা তার সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ না করতে পারেন। তৃণমূলের অনেক নেতা গুলশান কার্যালয়ে এসে আক্ষেপ করে ফিরে যাওয়ার বহু নজির রয়েছে। তাদের বক্তব্য- চেয়ারপারসনকে একনজর দেখতে এবং মনের কথাগুলো বলার জন্যই মাঝে-মধ্যে ঢাকায় আসেন তারা। কিন্তু কার্যালয়ের ওইসব প্রভাবশালী কর্মকর্তার পাশাপাশি কিছু সিএসএফ সদস্যের দুর্ব্যবহারের কারণে মনে কষ্ট নিয়ে তাদের ফিরে যেতে হয়। বিএনপির সিনিয়র এক নেতা জানান, চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে তাদেরও ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হয় ড্রইংরুমে। ওইসব প্রভাবশালী কর্মকর্তাই সর্বক্ষণ বিএনপিপ্রধানকে ঘিরে রাখেন। গুরুত্বপূর্ণ কথা থাকা সত্ত্বেও রাগে-অভিমানে একাধিকবার কার্যালয় ত্যাগ করার কথাও জানান তিনি। মাঠের নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, বিএনপিপ্রধানকে অনেকটা জিম্মি করে রেখেছে গুলশান কার্যালয়ের ওইসব প্রভাবশালী কর্মকর্তা ও স্টাফরা। তাদের বাইরে কোনো নেতাই নিজের মনের কথা বলতে পারেন না। আলাদাভাবে কেউ কথা বললে তার প্রতিও রুষ্ট হন ওই প্রভাবশালীরা। বেগম জিয়াকে ওই জিম্মিদশা থেকে বের করে না আনতে পারলে আগামীতে এই সরকারের বিরুদ্ধে কোনো আন্দোলনই সফলতার মুখ দেখবে না বলেও জানান তারা। ক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা বলছেন, গুলশান কার্যালয়ের সুবিধাভোগী কর্মকর্তাদের কারণে তৃণমূল বিএনপির আসল চিত্রও জানতে পারছেন না চেয়ারপারসন। কমিটি কিংবা আন্দোলনের ক্ষেত্রেও নিতে পারছেন না সঠিক সিদ্ধান্ত। ওইসব কর্মকর্তার সঙ্গে যারা যোগসাজশ করে চলেন, তাদেরই গুলশান কার্যালয়ে কদর বেশি। দলের দুঃসময়ে কিংবা আন্দোলনে না থাকলেও বেগম জিয়ার সঙ্গে এখন তাদেরই বারবার দেখা-সাক্ষাতের সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে গোপন আঁতাতকারী এসব নেতার বিরুদ্ধে কোনো মামলা পর্যন্ত নেই। এসব কারণেই অভিমানে ক্ষুব্ধ হয়ে ত্যাগী নেতারা গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়া না ডাকলে পারতপক্ষে যাচ্ছেন না। জানা যায়, তিন মাসের ফলাফলশূন্য আন্দোলনের জন্য গুলশান কার্যালয়ের কিছু কর্মকর্তা ছাড়াও প্রভাবশালী গুটিকয়েক নেতার ওপরও ক্ষুব্ধ বেগম জিয়া। এ জন্য গুলশান কার্যালয়ে গেলেও নেতাদের ডাকছেন না তিনি। আবার অনেকেই অভিমানে গুলশান কার্যালয়ে যাচ্ছেন না। সিনিয়র এক নেতা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গুলশান কার্যালয়ে গেলেই মনে হয়, সরকারি কোনো দফতরে এসেছি। যেখানে আমলা-কামলারা বিএনপি চেয়ারপারসনকে নিয়ে ঘিরে রয়েছেন। তাদের আচরণে মনে হয় বিএনপিপ্রধান যেন এখনো প্রধানমন্ত্রী বা সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এমন আচরণ অবশ্য বেগম জিয়া অনেক সময় জানেনও না।

এ জাতীয় আরও খবর

যুদ্ধাপরাধ : মৌলভীবাজারের ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান