মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধানের বেশী উৎপাদন খুশী নন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষকরা

news-image

বিশেষ প্রতিনিধি : জমিতে ধানে ঠাসা। ভাল উৎপাদন হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১ লাখ ৮ হাজার ৪’শ ৫০ হেক্টর জমিতে চলতি বছর বোরো ধানের আবাদ হয়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার আশানুরূপ উৎপাদন হয়েছে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ লাখ ২২ হাজার ৪’শ ৮০ মেট্রিক টন। ধানের বেশী উৎপাদনে খুশি নন কৃষক। প্রতি (কানি) ৩০ শতাংশ জমিতে ১৮/২০ মন ধান উৎপাদন হয়। মজুরদের (ধান কাটা শ্রমিক) ধান কাটতে জনপ্রতি ৫’শত থেকে ৭’শ টাকা, জমিতে পানি দিতে ১৫’শ টাকা, সার ওষধ ২ হাজার টাকা, জমি বাছাই ১২’শ টাকা, হালচাষ ৪’শ টাকা, ধানের চারা ৭’শ টাকা, রোপন ৭’শ টাকাসহ অন্যান্য খাতে আরো ৭’শ টাকা খরচ হয়েছে। মোট কথা প্রতি কানি জমি চাষ থেকে শুরু করে ফসল উঠানো পর্যন্ত ৮/১০ হাজার টাকা খরচ হয়। এখন বিক্রি করতে হচ্ছে প্রতি কানি জমির ধান মাত্র ৭/৮ হাজার টাকা। নাসিরনগর উপজেলার খাঘালিয়া গ্রামের কৃষক জাফরের সংঙ্গে এ প্রতিবেদকের কথা হয় আশুগঞ্জ মেঘনা নদীর তীরে ধানের গোলায়। তিনি বলেন, এসব খরচ করে এখন বিপাকে কৃষক। তার ধারনা ছিল ধান বিক্রি করে লভ্যাংশের টাকায় কামলাদের বিদায় করবেন। সে আশা গুড়েবালি। ৩০ কানি জমি চাষ করে উৎপাদিত ধান দিয়ে কামলাদেরও বিদায় করতে পারছেন না। বৃহষ্পতিবার ধানের বাজারে এসে ১ লক্ষ টাকা লোকসান দিয়ে ধান বিক্রি করেছেন। এসময় অনেকটায় কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। এত লোকসান দিয়ে কেন ধান বিক্রি করলেন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাকী সুদ মহাজনী দিয়ে ধান চাষ করেছিলাম। ফসলের ন্যায্য মূল্যের আশা ছিল। কিন্তু কামলাদের টাকায় বাকি রাখতে হয়েছে। তাই ধান বিক্রি করে দিয়েছি। ধান ক্রেতা জামাল মিয়া বলেন, বাজারে ভালো একটি মুরগীর দাম ৫’শ টাকা। অথচ ১ মন মোটা ধান ৩৯০/৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আমার পরিবারের সদস্য সংখ্যা ১২জন। প্রতিদিন ১ হাজার টাকা বাজার করতে হয়। অথচ ১ মন ধান দিয়ে বাজারও করা যায় না। ধানের ক্রেতা কবির আহমেদ বলেন, এক কানি জমিতে ধান চাষ করতে খরচ হয়েছে ৮/১০ হাজার টাকা। আর উৎপাদিত ধান বাজারে বিক্রি হয়েছে মাত্র সাড়ে ৭ হাজার টাকায়। এ বাজারে ধান নিয়ে আসা অনেক ক্রেতাই তাদের হতাশার কথা জানালেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মোটা ধান মন প্রতি ৩৯০/৪০০ টাকা, চিকন ধান ৫০০/৫৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কৃষক ধান বিক্রি করতে পারলেও পাইকাররা বিপাকের পড়েছেন। পাইকাররা জানান, বর্তমানে ভারত থেকে আমদানী করা চাল ১২’শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশের উৎপাদিত ধানের চাল মন প্রতি ১৩০০/১৩৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আমদানী করা নিম্ন মানের চাল দেশীয় চালের সংগে মিশিয়ে বিক্রি করায় দেশের চাল কিনতে আগ্রহী নন ক্রেতারা। এতে কৃষকরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। কৃষকরা জানিয়েছে, ভারত থেকে এলসির মাধ্যমে চাল আমদানী বন্ধ না করলে কৃষকের দুর্দশার সীমা থাকবে না। প্রত্যেককেই লোকসানে ধান বিক্রি করতে হবে। এতে নিঃস্ব হয়ে পড়বে কৃষক। জেলা চাতালকল মালিক সমিতির কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন তালুকদার জানান, আশুগঞ্জ দিয়ে নৌকা, ট্রলার ও ট্রাক যোগে প্রতিদিন ৬০/৭০ হাজার মন আমদানী হচ্ছে। সিলেট অঞ্চলের জেলা হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, ময়মনসিংহ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে কৃষকরা ধান নিয়ে আসেন। বাজার পরিস্থিতি খারাপ থাকায় বাজারে ধানের সরবরাহও কম। চাতাল কল মালিকরা জানিয়েছেন, শুধুমাত্র আশুগঞ্জে ৩৮৪টি চাতাল কল রয়েছে। পর্যাপ্ত ধান সরবরাহ না হওয়া ইতিমধ্যে অর্ধশত চাতালকল বন্ধ হয়ে গেছে। চাতালকল মালিক শ্রমিকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, কৃষকের স্ব¦ার্থে সরকার ধান চাল সংগ্রহ করবে। এবার ধানের মূল্য ধরা হয়েছে প্রতি কেজি ২২ টাকা আর চাল প্রতি কেজি ৩২ টাকা। খুব সহসাই সংগ্রহ অভিযান শুরু হবে।

 

এ জাতীয় আরও খবর