মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেখানে বাংলাদেশের দীর্ঘশ্বাস

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : সাগরের পানি সেখানে গভীর নীল। বালুকাবেলায় দাঁড়ালে হাতছানি দিয়ে ডাকে দূরের কালচে সবুজ পাহাড়সারি। মাথার ওপর উড়ে যায় গাঙচিলের ঝাঁক। তবু যতবার সেখানে যাই, মন খারাপ লাগে। দীর্ঘশ্বাস চেপে রাখা যায় না। মন খারাপের কারণ সাগরপারের তাঁবুর সারি। তাঁবুগুলোর মাথায় পতপত করে উড়ছে নানা দেশের পতাকা। না গুনেই বলতে পারি, অর্ধশতেরও বেশি। যুক্তরাজ্য, ভারত, ইসরায়েল, কাতার, আরব আমিরাত, ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া—কত না দেশ! এবার প্রথমবারের মতো এই অংশে যুক্ত হয়েছে জর্ডান, ইরান ও জাপানের পতাকা। বরাবরের মতো এবারও বিশ্ব সিনেমার বড় এই আসরে আমাদের লাল-সবুজ পতাকা গরহাজির। সিনেমার বিশ্ব আঙিনায় কত পিছিয়ে আছি আমরা, সেটাই হাতেনাতে ধরিয়ে দিচ্ছে ভিলেজ ইন্টারন্যাশনাল অংশে এই উড্ডীয়মান পতাকার সারি।


‘আমি মনে করি, খুব দরকার ছিল এখানে আমাদের নিজেদের দেশকে তুলে ধরার। সেই শুরু থেকে নানাভাবে চেষ্টা করে আসছি, কিন্তু লাভ হয়নি কোনো।’ আহমেদ মুজতবা জামালের কণ্ঠে উষ্মা। ২০০২ সাল থেকে দক্ষিণ ফরাসি উপকূলের মহামিলনমেলায় আসছেন বাংলাদেশের এই চলচ্চিত্র উৎসব আয়োজক। একাধিকবার ছিলেন ফিপরেসকির বিচারকদের আসনেও। তিনি বললেন, ‘এখানে নিজেদের সংস্কৃতি ও চলচ্চিত্র তুলে ধরার জন্য যত শিগগির সম্ভব দেশে সবাই মিলে সম্মিলিত উদ্যোগ নেওয়া উচিত।’


কান চলচ্চিত্র উৎসবে এখন পর্যন্ত আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন প্রয়াত তারেক মাসুদের মাটির ময়নার সাফল্য। ১৩ বছর আগে কান চলচ্চিত্র উৎসবে চলচ্চিত্র সমালোচকদের ফিপরেসকি পুরস্কার জিতেছিল এই ছবি। তারপর তো কেবলই শূন্যতা।


সরব বিশ্বসভা: বরাবরের মতো গতকাল শনিবারও নানা রঙের মানুষ আর অতিথিদের পদভারে সরগরম ছিল এই ভিলেজ ইন্টারন্যাশনাল অংশ। প্রথমবার এসেই জাপানকে দেখা গেল খুব সরব। বেশ বড়সড় আলোচনা সভার আয়োজন করেছিল তারা গতকাল ভিলেজ ইন্টারন্যাশনালের তাঁবুতে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন টোকিও আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মহাপরিচালক ইয়াসুশি সিনাই থেকে শুরু করে জাপানের চলচ্চিত্রশিল্পের অনেক রথী-মহারথী।


উৎসবজুড়ে সব দেশের তাঁবুতেই থাকে কমবেশি এমন আয়োজন। ঢোকার মুখেই হাসিমুখে দাঁড়িয়ে থাকেন অভ্যর্থনাকারীরা। দুপুরে আর রাতে বেশির ভাগ তাঁবুতেই চলতে থাকে ছোটখাটো উৎসব।


ছবিকথা: চুলে পাক ধরেছে। দাঁতগুলোও আর জায়গামতো নেই। চোখে সোনালি ফ্রেমের চশমা। বয়স কিছুতেই সত্তরের কম হবে না। পালে দো ফাস্তিভালের সামনে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে সেই কবে থেকে। হাতে একখানা প্ল্যাকার্ড। সেখানে আঁকাবাঁকা হরফে লেখা লাউডার দেন বম্বস।


ঘটনা তেমন কিছু নয়। তিনি আসলে লাউডার দেন বম্বস ছবির উদ্বোধনী প্রদর্শনীর আমন্ত্রণপত্র খুঁজছেন। বর্ষীয়ান এই ভদ্রলোককে আগের বছরও দেখেছি এভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে। উৎসব ভবনের আশপাশে এমন নানা বয়সী আমন্ত্রণপত্র শিকারিদের চোখে পড়ে হরহামেশা। কতজন যে সফল হন সেটা বলা খুব মুশকিল।


জোয়াখিম ট্রিয়ারের লাউডার দেন বম্বস ছাড়াও কাল উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে প্রতিযোগিতা বিভাগের ছবি দ্য মিজার অব এ ম্যান। প্রদর্শিত অন্যান্য ছবির মধ্যে ছিল ইনসাইড আউট, দ্য চোজেন ওয়ান এবং অ পিসু। ছিল থাইল্যান্ডের প্রথম স্বর্ণপাম বিজয়ী নির্মাতা আপিচাতপং ভিরাসেথাকুলের ছবি সেমেটারি অব স্প্লেনডার-এর প্রদর্শনীও।


ধ্রুপদি ছবির বিভাগে কাল ছিল কস্তা গাভরাসের জেড ছবি দেখার আয়োজন। এই বিভাগে কাল আরও দেখানো হয়েছে মিশেল ব্রাউল পরিচালিত লে অর্দ্রে এবং কিং হু পরিচালিত শিয়া নু ছবিটি।

এ জাতীয় আরও খবর