বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোদির নিরাপত্তা দল ঢাকায়

news-image

ডেস্ক রির্পোট : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত ঘোষণা আসেনি। একটি প্রস্তাবনা রয়েছে আগামী ৬-৭ই   জুন সফরটি হতে পারে। সে অনুযায়ী ঢাকা ও দিল্লি সফর প্রস্তুতি এগিয়ে চলেছে বেশ জোরেশোরে। এরই মধ্যে মোদির সফরের অগ্রগামী নিরাপত্তা দল ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। দেশটির বিদেশ মন্ত্রণালয়ের প্রটোকল বিভাগ এবং প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে সাজানো ৬ সদস্যের দল এখানে কাজও শুরু করে দিয়েছে। গতকাল দুপুরে ওই দলের সদস্যদের নিয়ে ভারতীয় হাইকমিশনের কর্মকর্তারা সেগুনবাগিচার পররাষ্ট্র ভবনে যান। সেখানে  রাষ্ট্রাচার প্রধান আসাদ আলম সিয়ামের দপ্তরে বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন তারা। দুই দেশের কর্মকর্তাদের প্রথম আনুষ্ঠানিক আলোচনায় ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা অবস্থানকালীন নিরাপত্তা ও প্রস্তুতির বিষয়টি স্থান পেয়েছে। সফরের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে আরও কর্মকর্তা ঢাকা আসবেন এবং এ নিয়ে সিরিজ আলোচনা হবে বলে জানা গেছে। এদিকে নিরাপত্তা দলের পররাষ্ট্র দপ্তর ছেড়ে যাওয়ার পর পূর্ব নির্ধারিত প্রস্তুতি সভা শুরু হয়। হাই প্রোফাইল ওই সফর সংশ্লিষ্ট ১৫টি মন্ত্রণালয় ও ৩টি বিভাগের সচিব এবং ১০টি দপ্তরের প্রধানদের নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় বসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। তার সঙ্গে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক  সম্পর্কবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী ও অর্থনৈতিক সম্পর্কবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান। মন্ত্রণালয়ের আনক্লোজ সভাকক্ষে বিকাল পৌনে ৩টায় শুরু হওয়া ওই সভায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদসহ পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য, বিদ্যুৎ, কৃষি, সংস্কৃতি, সড়ক, রেল মন্ত্রণালয় ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব এবং বিডিআর মহাপরিচালক অংশ নেন। সরকারের উচ্চপদস্থ প্রায় অর্ধশত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে বৈঠকটি তিন ঘণ্টা স্থায়ী হয়।

আলোচনার এজেন্ডায় যা থাকছে: বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও দপ্তর প্রধানদের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী-উপদেষ্টার বৈঠকে মূলত এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সভা সূত্রের খবর বিস্তৃত পরিসরে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট সব বিষয়ই স্থান পেয়েছে। সিনিয়র কর্মকর্তারা তাদের মতামত দিয়েছেন। এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠকে হবে বলে জানানো হয়েছে। আগামী ৬ই জুন ৩৬ ঘণ্টার সফরে মোদি ঢাকা আসবেন এমন ধারণা দিয়ে সভায় বলা হয়েছে, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রথম ঢাকা সফরে  বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি, প্রটোকল ও সমঝোতা স্মারক সই করতে চায় বাংলাদেশ। দিল্লির সঙ্গে ওই সব চুক্তির খসড়া আদান-প্রদান চলছে। বৃহত্তর পরিসরে বাংলাদেশের সঙ্গে কানেকটিভিটি বাড়ানোর তাগিদ রয়েছে ভারতের তরফে। চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে ওই  দেশটি আরও ১৫টি রুটে ট্রানজিট চেয়েছে। একই সঙ্গে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে পণ্য এবং যাত্রী পরিবহনে নৌ, সড়ক, রেল ও সমুদ্রপথে সংযোগও বাড়াতে চায় দিল্লি। এ জন্য উপযুক্ত অবকাঠামো উন্নয়নে ভারত সহায়তা দিতেও প্রস্তুত রয়েছে। বাংলাদেশ এ সফর থেকে সর্বোচ্চ ফল পেতে চায় বলেও উল্লেখ করেছেন সরকারের মন্ত্রী-উপদেষ্টারা। সেখানে তিস্তা চুক্তি নিয়ে কথা হয়েছে। তবে এটি গ্রাউন্ড ওয়ার্ক হলেও এ সফরে তার চূড়ান্ত চুক্তির সম্ভাবনা নেই বলে জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণে ভারত আগ্রহ দেখাতে পারে সরকার প্রধানের সফরে। স্পর্শকারক ওই বিষয়টি বিবেচনায় রাখছে ঢাকা। তবে এ নিয়ে আরও সময় নেয়ার বিষয়ে কর্মকর্তাদের ধারণা দেয়া হয়েছে। ভারতের তরফে বাংলাদেশকে নতুন করে কোটি ডলারের ঋণ দেয়ার একটি ঘোষণা আসতে পারে। এনিয়ে আলোচনা চলছে। এটি ১০০ কোটি হবে বলে ধারণা পাওয়া গেছে। তবে নাটকীয়ভাবে সেটি বাড়তে পারে বলে কর্মকর্তাদের ধারণা দেয়া হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

উচ্চ রক্তচাপ কী? হঠাৎ রক্তচাপ বেড়ে গেলে করণীয়

শরীরের যেসব স্থানের ব্যথা হতে পারে ক্যানসারের লক্ষণ

ত্বক আর্দ্রতা হারিয়েছে কি না বুঝবেন যেভাবে

পিপলস লিজিংয়ের ২৫ ঋণখেলাপিকে গ্রেফতার করে হাজির করার নির্দেশ

গরমে জনজীবনে নাভিশ্বাস, বৃষ্টি বাড়তে পারে আগামী সপ্তাহে

দ্রব্যমূল্যের অস্থির পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের সতর্ক হওয়ার আহ্বান

বিদ্যুতের দাম ৫৮ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ

সেতুর উদ্বোধন ঘিরে পদ্মাপারে জয়গান

জেনেভায়‌ প্রবাসীদের কনস্যুলেট সেবা প্রদান

বই পড়লে কারামুক্তি

হাইকোর্ট সেই এরশাদ আলীকে পুলিশে দিল

দৈনিক সংক্রমণে শীর্ষে উত্তর কোরিয়া, বিশ্বে মৃত্যু আরও দেড় হাজার