মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২৫ বছর ধরে প্রতিশ্রুতি : ফাইলে বন্দি আশুগঞ্জ পৌরসভা

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ৯০’সালে জাতীয় পার্টির শাসনামলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জকে পৌরসভার ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপর পর্যায়ক্রমে পরবর্তী সরকার প্রধানরাও আশুগঞ্জকে পৌরসভার ঘোষণা দিয়ে আসছে। কিন্তু প্রতিশ্রুতির ২৫ বছর পেরিয়ে গেলেও নীতিমালা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে আজও বাস্তবায়িত হয়নি আশুগঞ্জ পৌরসভা। তবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী চলতি মেয়াদে দুইবার আশুগঞ্জ সফরকালে আবারও আশুগঞ্জকে পৌরসভা করার প্রতিশ্রুতির ঘোষনা করার পরও আশুগঞ্জ পৌরসভায় বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে প্রতিশ্রুতি শুনতে শুনতে হতাশ এখানকার বাসিন্দারা।
জানা যায় সরকারের পৌরসভা গঠন নীতিমালা-২০০৯ অনুযায়ী নতুন পৌরসভা গঠনের জন্য প্রস্তাবিত এলাকার জনসংখ্যা কমপক্ষে ৫০ হাজার, কর্মক্ষম জনসংখ্যার শতকরা ৭৫ শতাংশ অকৃষি পেশায় নিয়োজিত এবং তিন বছরের গড় রাজস্ব আয় ২০ লক্ষ টাকা হলেই পৌরসভা গঠনের প্রস্তাব করা যাবে। বর্তমানে আশুগঞ্জ পৌরসভা এলাকার জনসংখ্যা ৫৮ হাজার ৫৮৩ জন ও এখানকার কর্মক্ষম জনসংখ্যার শতকরা ৭৮ শতাংশ মানুষ অকৃষি পেশায় নিয়োজিত রয়েছে। তবে প্রস্তাবিত ফাইলে ঘাটতি আছে জানিয়ে বারবার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে ফেরত আসছে পৌরসভার প্রস্তাবনা ফাইল।
যদিও চট্রগামের পর দেশের দ্বিতীয় শিল্প ও বন্দর নগরী হিসাবে পরিচিত আশুগঞ্জ। এখানে গড়ে ওঠছে সরকারি ও বেসরকারি শিল্প-কারখানা। এখানে রয়েছে আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক নৌবন্দর, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, সারকারখানা, কমপ্রেসার স্টেশন, গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড সহ রাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। বর্তমান সরকার আশুগঞ্জকে বিশেষ অর্থনৈতিক জোন হিসেবে ঘোষণা করেছে। প্রতিবছর জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে আশুগঞ্জ। এছাড়া আশুগঞ্জে রয়েছে শহীদ আবদুল হালিম রেলওয়ে সেতু ও সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতু এবং মেঘনা নদীতে চলছে আর একটি দ্বিতীয় রেলওয়ে সেতুর নির্মাণ কাজ। বর্তমানে দেশের হাওরাঞ্চলের সবচেয়ে বড় ধানের মোকাম হিসেবে পরিচিত আশুগঞ্জ। পাশপাশি সরকারিভাবে ধান-চাল ক্রয়ের উল্লেখ্যযোগ্য স্থান হিসাবে রয়েছে আশুগঞ্জ খাদ্য গুদাম। এছাড়া শুরু হচ্ছে পুর্বাঞ্চলীয় নৌ পুলিশের সদর দপ্তর নির্মাণের কাজ। গুরত্বর্পূণ এলাকা হওয়ার পর পৌরসভা না হওয়ায় হতাশ এ এলাকার মানুষ। তারা আর প্রতিশ্রুতি শুনতে চান না। চান দ্রুত বাস্তবায়ন। আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি সেলিম পারভেজ জানান আশুগঞ্জ দেশের অন্যতম শিল্প ও বন্দর নগরী। ২৫ বছর ধরে শুধু সরকার প্রধানরা আশুগঞ্জ পৌরসভা করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে। আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহবায়ক মো.হানিফ মুন্সি জানান আশা করছি আশুগঞ্জ উপজেলার গুরত্ব বিবেচনা করে আমাদের সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যে প্রতিশ্রুতি আমাদের দিয়েছেন তা দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক ড.মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন জানান প্রস্তাবনা ফাইলের ঘাটতিগুলো তদন্ত সাপেক্ষে যাচাই-বাছাই করে পুনরায় মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। পাশপাশি তিনি আর জানান অচিরেই আশুগঞ্জ পৌরসভার বাস্তবায়নের কাজ শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ।
তবে তাহলে কি  প্রতিশ্রুতিতে পার হল ২৫ বছর। এবারও কি প্রতিশ্রুতির ফ্রেমে বন্ধি থাকবে আশুগঞ্জ পৌরসভা।