রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রকল্পে লুটপাটের মহোৎসব, সরকারের কোটি কোটি টাকা গচ্ছা

news-image

মেহেদী হাসান মিলন : কাজগুলো দরিদ্র জনগোষ্টির। সড়ক পাশের বাসিন্দারাই করবেন। হাওর অঞ্চলের অবকাঠামো ও জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের (হিলিপ) কাজ। প্রকল্পের নিয়ম মতে, তাদের মধ্য থেকেই কমিটি হবে। কিন্তু বাস্তবে উল্টো। কর্মকর্তা, প্রকৌশলী আর ঠিকাদাররা গ্রামীন জনগোষ্ঠীর টাকা লুটেপুটে খাচ্ছে। এতে সরকারের লক্ষ্য ব্যার্থ হচ্ছে। সে সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারের কোটি কোটি টাকা বেনালে যাচ্ছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, নবীনগর ও সরাইলে হিলিপ প্রকল্পে অর্থ সঠিক ভাবে ব্যয় হচ্ছে না। এসব কাজের কোন তদারকি নেই। কর্মকর্তাদের সহায়তায় যে যার মত করে পারছে লোপাট করছে। তাই কাজ গুলো সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না।
জেলার ৬৫টি প্রকল্পের ১২টির কাজ শেষ হয়েছে। একাজ বাস্তবায়নে ২৯ কোটি ৭৮ লাখ ৭৯ হাজার ১’শ ১২ টাকা ব্যয় হয়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নবীনগরের খারঘর গনকবর ২ কিলোমিটার রাস্তা। বিভিন্ন স্থানে কিছু মাটি ফেলা হয়েছে। এরপর ৫ ইঞ্চি আরসিসি ঢালাই হবে। এ রাস্তা সংস্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। হাওড় অঞ্চলের মানুষের জীবন মান উন্নয়ন ও অবকাঠামোর জন্য সরকার ঋন নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। খারঘর গনকবর সড়কটি নির্মান কাজের বেহাল দশা। মরা ও ব্যবহার অযোগ্য পাথর দিয়ে স্ল্যাভ নির্মান করা হয়েছে। বেশ কিছু স্ল্যাভ ভেঙ্গে একাকার। নিয়ম মতে কাজের ব্যয় তালিকার সাইনবোর্ড টানিয়ে রাখার কথা। কিন্তু এখনো তা করেনি। পকেট কমিটি দিয়ে চলছে নির্মান কাজ। গ্রামের লোকজন জানায়, পুরো টাকা মেরে দেয়ার আয়োজন চলছে। গ্রামবাসী জানায়, ২০/২৫ দিন ধরে নির্মান কাজ বন্ধ। এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর খারঘর গনকবর সংলগ্ন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করে ফরিদ উদ্দিন নামে এক ঠিকাদার। এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নদীর তীরে ঘাটলা নির্মান, রিটার্নিং দেয়ালে খরচ হয় কোটি টাকা। সরজমিন পরিদর্শনে গেলে গ্রামবাসী জানায়, তাদেরকে না জানিয়ে পকেট কমিটির মাধ্যমে কোটি টাকার কাজ হাতিয়ে নেয়া হয়। বড়াইল বাজারের হিলিপের নির্মান কাজে চলছে অনিয়ম। টয়লেট, নলকুপ, ১০০ মিটার রাস্তা ড্রেন বাবদ ৬০ লাখ টাকার কাজ চলছে। এলাকাবাসী জানায়, এ কাজও খুব নিম্ন মানের। সড়ক নির্মান কাজে যে টাকা খরচ হচ্ছে সে টাকা যদি রাস্তায় বিছানো হত তবে টাকা ফুড়াতো না। সরাইলের গোয়ালিয়ার সড়ক ৬৫ লাখ টাকায় কাজ করা হয়। সড়ক পাশের নারী পুরুষ জানান, তাদের কাজে সম্পৃক্ত করে। তাদের টাকা ও বাকী রয়েছে। এছাড়া নবীনগরের বগডহর গ্রামে প্রায় ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫’শ মিটার প্রতিরক্ষা দেয়া নির্মান। গ্রামের ভেতরে ২৬ লাখ টাকায় ৪৩০ মিটার দীর্ঘ আরেকটি সড়ক নির্মানে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠে। ৬৫ লাখ টাকার এই কাজের নামে লুটপাটের নিরব স্বাক্ষী এলাকার দরিদ্র জনগোষ্টি। সম্প্রতি এ কাজ পরিদর্শনে প্রকল্প পরিচালকসহ ঢাকা থেকে একটি প্রতিনিধি দল প্রকল্প এলাকা ঘুরে গেছেন। তাদের কাছে প্রকল্পের অনিয়মসহ সব বিষয় গোপন করা হয় বলে দুর্নীতি বিরোধী কর্মকর্তাদের একটি সূত্র জানায়।    
জেলা হিলিপের মনিটরিং কর্মকর্তা হারুন-অর-রশীদ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন হিলিপ কাজের দুর্নীতি অনিয়ম প্রসঙ্গে বলেন, এখানে কোন দুর্নীতি হয়নি। সব কিছুই সঠিক মত হয়েছে। তিনি প্রশ্ন রাখেন, অনেক কাজ চলছে, কোন কাজে দুর্নীতি হয়েছে বলুন তো ?
ইফাদ এবং স্পেনের অর্থায়নে ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হাওড় বেষ্টিত সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ জেলার ২৬ টি উপজেলার ১৬৫ টি ইউনিয়নে এ কাজ চলছে। প্রকল্পে ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর এগ্রিকালচারাল ডেভলপমেন্ট (ইফাদ) এবং স্পেনিস ট্রাষ্ট ফান্ড ১১৮ মিলিয়ন ইউএস ডলার যা বাংলাদেশী মুদ্রায় ৯ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন টাকা। যার অধিকাংশই ঋন হিসেবে নিচ্ছে বাংলাদেশ।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী