সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সালাহউদ্দিন আহমদকে মুচলেকা নিয়ে ভারত ফেরত দিতে পারে

news-image

বিশিষ্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক বলেছেন, সালাহউদ্দিন আহমদকে মুচলেকা নিয়ে ভারত সরকার যে কোনো সময়ে চাইলে বাংলাদেশে ফেরত দিতে পারে। এই মুচলেকা হতে পারে দুরকম, এক হচ্ছে-সালাহউদ্দিন আহমদ ভারতে যে অপরাধ করেছেন সেটা হলো তিনি পাসপোর্ট ভিসা ছাড়া ভারতে প্রবেশ করেছেন। এটা একটা লঘু অপরাধ। এই অপরাধের শাস্তি আমাদের দেশে সর্বোচ্চ এক বছর। ভারতের আইনেও এটা কঠিন কোনো অপরাধ নয়। আর এই কারণে এই লঘু অপরাধ করার জন্য ভারত সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ তার কাছ থেকে মুচলেকা নেবেন যে তিনি যে অপরাধ করেছেন, সেই অপরাধ আগামীতে আর কোনো দিন করবেন না। যদি এটা তিনি লিখে দেন সেটা নিয়ে তাকে যে কোনো দিন ফেরত দিতে পারে।

আর দ্বিতীয়ত হচ্ছে ভারত যদি মনে করে যে তিনি পাসপোর্ট ও ভিসা ছাড়া ভারতে প্রবেশ করেছেন। এই অপরাধে তার বিচার করে এবং শাস্তি দিয়ে এরপর তাকে ফেরত দিবে সেটা তারা দিতে পারে। তিনি একজন স্বনামধন্য ব্যক্তি আর তার সেখানে যাওয়া নিয়েও নানা প্রশ্ন রয়েছে। তিনি সেখানে নিজে গেছেন নাকি তাকে কেউ নিয়ে ফেলে দিয়ে এসেছে এটা বের করতে চান তাহলে সেটা বের করে এরপর তার বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণিত হলে তাকে শাস্তি দিতে পারে আদালত। তবে আদালতে তার যে শাস্তি হবে সেটা সর্বোচ্চ শাস্তি না দিয়ে প্রতীকী (সিম্বলক) শাস্তি হিসেবে ১৫ দিনের শাস্তি দিতে পারে। সেই শাস্তির জন্য কারাভোগ করার জন্য তাকে কারাগারে না নিয়ে তার কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে ফেরত পাঠাতে পারে দেশে। সেটা হলেই ভালো হয়। তার বিরুদ্ধে অবৈধ অনুপ্রবেশের যে মামলা সেটি বড় কোনো মামলা নয়, বিচার শুরু হলে নিষ্পত্তি হতেও বেশি সময় লাগবে না। কিন্তু সেখানকার পুলিশ যদি তার বিরুদ্ধে অন্য কোনো মামলা দেয়, কিংবা তিনি অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করেছেন, কিংবা বহন করেছেন এমন কোনো অভিযোগ উত্থাপন করে কোনো মামলা দেয় সেক্ষেত্রে বিষয়টি জটিল হয়ে যাবে। আর সেটা হলে তার দেশে ফেরা ও মামলা নিষ্পত্তি করা সব মিলিয়ে জটিলতা কাটানোও কঠিন হবে। আমরা এখনো জানি না ভারতীয় পুলিশ তার বিরুদ্ধে আরো কোনো মামলা দেয় কিনা দেখতে হবে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় তিনি  এই প্রতিবেদকের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।

শাহদীন মালিক বলেন, ভারত সরকার তার ব্যাপারে কি সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করবে সেটা দেখতে হবে। কারণ ভারত সরকার যদি মনে করে তারা সালাহউদ্দিনকে রাখতে চায় না তাহলে তারা বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে একাধিক অপশন বের করতে পারে। ওইসব অপশনের মধ্যে একটা গ্রহণযোগ্যটি বিবেচনা করেই এই সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে।

সালাহউদ্দিনের ঘটনায় সরকারের ভূমিকা আপনার কাছ কেমন মনে হচ্ছে?

তিনি বলেন, সালাহউদ্দিনের খোঁজ পাওয়ার পর ঘটনায় সরকার এই পর্যন্ত যে ভূমিকা নিয়েছে সেটা ঠিকই আছে। বিএনপি কিংবা তার পরিবার এ নিয়ে যদি কোনো অভিযোগ করতে চায় সেটা তারা করতে পারে। কিন্তু বিষয়টি সেরকম হবে না। কারণ সালাহউদ্দিন আহমদ ভারতে আছেন। সেখানে তার প্রবেশের মধ্যদিয়ে ভারতের আইনভঙ্গ হয়েছে। বাংলাদেশের কোনো আইনভঙ্গ হয়নি। আর এই আইনভঙ্গ না হওয়ার কারণে সরকার তার ব্যাপারে কোনো কিছু করতে চাইবে না। তারা ভারত সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকবে। ভারত সরকার ও পুলিশ চাইলেই কেবল এক্ষেত্রে ছাড় দিতে পারে।

সরকারের এই ব্যাপারে ভারতের সঙ্গে কথা বলার কোনো প্রয়োজন ছিল কি?

সেটা চাইলে বলতে পারত। কিন্তু সরকার হয়তো বলেনি, মনে করেছে সেটা বলা ঠিক হবে না। কারণ সেখানে একটা বেআইনি কাজ হয়েছে। সেই কাজের জন্য সরকার আগ বাড়িয়ে তার ব্যাপারে কথা বলতে যাবে না। ভারত সরকার জানানোর পর ব্যবস্থা নেবে।

সালাহউদ্দিন আহমদের বিরুদ্ধে এই দেশে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে সেই সঙ্গে পুলিশের খাতায় তিনি ওয়ান্টেড আসামি, সেই আসামির খোঁজ পাওয়ার পর তাকে ফেরত আনার জন্য কোনো উদ্যোগ না থাকার বিষয়টি কি স্বাভাবিক?

তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে মামলা আছে এই মামলা সরকার চাইলে তাকে দেশে ফেরত পাওয়ার পর যে কোনো সময় বিচার করতে পারবে।

সালাহউদ্দিন আহমদকে ভারত পুশব্যাক করতে চাইছে, সেটা কেমন করে হতে পারে মনে করছেন?

তিনি বলেন, এই পুশব্যাক তারা তাদের নিয়মেই করবে। আইনের বাইরে ভারত কোনো উদ্যোগ নেবে বলে আমার মনে হচ্ছে না। কারণ তারা এই ইস্যুতে এমন কোনো নজির স্থাপন করবে না যাতে করে তাদের দেশের আইনের ব্যত্যয় হয়। তারা সিদ্ধান্তটা কেমন করে নেবে সেটা দেখতে হবে।

বিএনপির তরফ থেকে সালাহউদ্দিন আহমদের ব্যাপারে তেমন কোনো কথা বলা না হলেও শত নাগরিক কমিটির প্রধান প্রফেসর এমাজউদ্দীন আহমদ এই ঘটনার তদন্ত করার জন্য বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি চেয়েছেন সেই সুযোগ আছে কি?

তিনি বলেন, সেই সুযোগ অবশ্যই আছে। এই ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে এরপর প্রকৃত ঘটনা বের করে যারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। না হলে পরে সমস্যা হবে। তিনি বলেন, আমি এই ব্যাপারে খুব বেশি আশাবাদী হতে পারছি না কারণ আমাদের এখানে বিচারবিভাগীয় কমিটি হোক আর যেই কমিটি করেই তদন্ত করানো হোক না কেন, যদি ওই রিপোর্ট প্রকাশ করা না হয় ও দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করা না হয় তাহলে কি করার আছে। কারণ আমাদের দেশে এত বড় বড় ঘটনা ও অপরাধ ঘটে যেসব ঘটনার বিচার হয় না। তদন্ত হলেও এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হলেও বিচারের বাইরেই থেকে যায়। এই কারণে আমি বেশি আশাবাদী হতে পারছি না। কয়েকদিন আগে একটি দৈনিকে লিখল সহস্রাধিক ধর্ষণ মামলায় ২ জনের শাস্তি। এর মাধ্যমে বোঝা যায় অপরাধীদের শাস্তি কতটা হওয়া উচিত ছিল আর কতটা হয়নি।

আপনার এই নিরাশার কারণ কি?

তিনি বলেন, সালাউহদ্দিন আহমদের ঘটনা নিয়ে যে ঘটনা ঘটেছে এটা নিয়ে সরকার কারো বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে মনে করার কোনো কারণ নেই। চাইলে সরকার স্বউদ্যোগেই এতদিন তদন্ত করে তাকে কারা তুলে নিয়ে গেছে, কোথায় নিয়ে গেছে, তাকে নিয়ে কোথায় রেখেছিল, এরপর তিনি ভারতে কেমন করে গেলেন সেটা বের করত। কিন্তু সেটা করেনি। কেবল মুখে বলছে এই ঘটনা বিএনপির ইন্ধনে ঘটেছে। সালাহউদ্দিন আত্মগোপনে ছিলেন ও লুকিয়ে ছিলেন। কিন্তু কই তারাতো এই ঘটনা প্রমাণ করতে পারেননি। কোনো ব্যবস্থও নেয়নি। আবার বিএনপি যে সরকারের বিরুদ্ধে ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাকে তুলে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছে ওই ঘটনার তদন্ত করে প্রকৃত সত্যটি বের করে আনতে পারেনি। সেটাও তারা বের করতে পারত। এতে করে মনে হচ্ছে সরকার সেটা করতে চাইছে না। তবে কখনো করলে সেটা দেখা যাবে। এখন বের না হলেও আগামী দিনে বের করার সুযোগ আছে। বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি করার দাবি বিএনপি করেছে। কিন্তু বর্তমান সরকার সেটাও করবে বলে আমার মনে হচ্ছে না।

আমাদের সময়.কম