মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারত এখন দক্ষিণ এশিয়ায় ‘এলডার ব্রাদার’: বীনা সিক্রি

news-image

প্রবাস ডেস্ক :বাংলাদেশ-ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে সংবিধান সংশোধনী বিল গত সপ্তাহে ভারতের পার্লামেন্টের দুই কক্ষে সর্বসম্মতিতে পাস হয়েছে। চুক্তিটি ভারতের অনুসমর্থনের জন্য দীর্ঘ ৪১ বছর ঝুলে ছিলো। চুক্তি অনুমোদনের পর দুই দেশের মধ্যে ছিটমহল বিনিময়, অচিহ্নিত সীমানা চিহ্নিত করা ও অপদখলীয় জমি হস্তান্তরের বাধা দূর হয়েছে। আর এই চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে ভারত তার বড় ভাই (বিগ ব্রাদার) পরিচিতি মুছে দক্ষিণ এশিয়ায় জ্যেষ্ঠ ভাই (এলডার ব্রাদার) হিসেবে সম্মান অর্জন করেছে বলে মনে করেন বাংলাদেশে ভারতের সাবেক হাই কমিশনার বীনা সিক্রি।

তার মতে, চুক্তি অনুমোদনের মাধ্যমে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘প্রতিবেশীর সঙ্গে প্রথমেই পররাষ্ট্রনীতির’ প্রতি গুরুত্বের প্রতিফলন ঘটেছে। একইসঙ্গে তিনি যে কথা অনুযায়ী কাজ করেন তারও প্রমাণ মিলেছে। ভারতের লাইভমিন্ট ডট কমকে দেয়া সাক্ষাত্কারে তিনি এ কথা বলেন। তার সাক্ষাত্কারে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্ব, চুক্তির তাত্পর্যসহ নানা প্রসঙ্গ উঠে এসেছে।

দীর্ঘকাল পর স্থল সীমান্ত চুক্তি অনুমোদনের বিষয়টি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো কীভাবে দেখতে পারে? এমন এক প্রশ্নের জবাবে বীনা সিক্রি বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী কথা অনুযায়ী কাজ করেন। তিনি ‘প্রতিবেশীর সঙ্গে প্রথমেই পররাষ্ট্রনীতির’ উপর জোর দিয়েছিলেন। তার নিজ দলের বিরোধিতা সত্ত্বেও তিনি স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নিয়েছেন। তার কাছে আসাম বিজেপির মতবিরোধের চেয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া কথা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ ঘটনায় বাংলাদেশ, ভারতের সঙ্গে সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়াতেও ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তিনি বলেন, ১৯৪৭ সালে শুরু হওয়া সমস্যার সমাধান করেছেন নরেন্দ্র মোদী। যে কারণে কেউ তার নেতৃত্বের ত্রুটি ধরতে পারে না। এটা শুভলক্ষণ যে, এখন অনেক সমস্যার সমাধানের ইস্যু সামনে আসবে। যেমন, নেপালের কোনো ইস্যু ভারতের সঙ্গে থাকলে তারা এখন বলবে আমরা মোদীর কাছে যেতে পারি এবং তিনি সমাধান করবেন।

স্থল চুক্তি অনুমোদন বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কে গেম চেঞ্জার (বিদ্যমান পরিকল্পনা পরির্তন করে নতুন পরিকল্পনা) হবে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই হাই কমিশনার বলেন, আমি মনে করি এটি গেম চেঞ্জার হবে। প্রতিবেশীর সঙ্গে সব কিছুই বলা চলে অনুধাবনের ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে। এ পদক্ষেপে ভারতের ভাবমূর্তি বিগ ব্রাদারের বদলে এলডার ব্রাদারে পরিণত হয়েছে। এটি খুবই তাত্পর্যপূর্ণ। কারণ এলডার ব্রাদার হলে সম্পর্কটা বন্ধুত্বের, সম্মানের ও বোঝাপড়ার হয়। চুক্তি বাস্তবায়নের পদক্ষেপ অবশ্যই গেম চেঞ্জার কারণ আমরা প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক এবং সব সমস্যা বন্ধুত্বের শক্তিতে সমাধান করতে চাই। একটি কঠিন সমস্যার সমাধান হওয়ায় এখন সংযোগ, বাণিজ্য, নিরাপত্তা বা অর্থনৈতিক বিনিয়োগের মতো বিষয়ে অগ্রগতি সহজ হবে।

চুক্তি অনুমোদন কীভাবে বাংলাদেশে ভারতের ভাবমূর্তি ভালো ও শেখ হাসিনাকে সহায়তা করতে পারে? এমন এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই কূটনীতিক বলেন, এতে করে বাংলাদেশের মানুষের চিন্তা-ভাবনায় পরিবর্তন আসবে। তারা নরেন্দ্র মোদী মানে ব্যবসা মনে করে। ভারতে নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বাংলাদেশের অনেকের মনে সন্দেহ ছিলো যে, কংগ্রেস পার্টিই তাদের জন্য হয়তো ভালো ছিলো। গত বছর শপথ অনুষ্ঠানে সার্কভুক্ত দেশের নেতাদের আমন্ত্রণ করে নরেন্দ্র মোদী কিছুটা ভিন্নতার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। আর এখন অনেক ভিন্ন কিছু করেছেন। আর শেখ হাসিনাকে এ পদক্ষেপ সহায়তা করবে কারণ এ চুক্তিতে বাংলাদেশই  লাভবান (জমি বেশি) হয়েছে।

ভারতের ভাবমূর্তি নিয়ে বাংলাদেশের ইসলামিক দলগুলোর মনোভাবে এ চুক্তি কোনো প্রভাব ফেলবে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে ভারতের কূটনৈতিক অঙ্গনের পরিচিত মুখ বীনা সিক্রি বলেন, বিরোধী দল বিএনপি এ চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে। জামায়াতে ইসলামী একটি ধর্মভিত্তিক দল। তবে আমি মনে করি- এ চুক্তিতে আওয়ামী লীগই বেশি লাভবান হবে। বাংলাদেশের রাজনৈতিক কাঠামোয় দেখা যায়, প্রধান দুই দলেরই প্রায় ৩৩ শতাংশ করে ভোট রয়েছে। আর দোদুল্যমান ভোটারের সংখ্যাও অনেক বেশি। ইসলামী দলগুলোর সমর্থন অনেক কম। প্রায় ২৫ শতাংশ দোদুল্যমান ভোট দেখা যায় প্রতি নির্বাচনে। এসব ভোটারের বেশিরভাগই বয়সে নবীন যারা একটি স্থিতিশীল অর্থনীতি চায়।

স্থল সীমান্ত চুক্তি কীভাবে ভারতের অ্যাক্ট ইস্ট পলিসিকে সহায়তা করবে? এমন প্রশ্নের জবাব বীনা সিক্রি বলেন, এ চুক্তি অবশ্যই ভারতের ‘অ্যাক্ট ইস্ট পলিসি’-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ভৌগোলিক রাজনৈতিক কারণে বাংলাদেশের অবস্থান কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের উন্নয়নে বাংলাদেশ খুবই তাত্পর্যপূর্ণ। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিনিয়োগ বড় অবদান রাখতে পারে।

বাংলাদেশের সঙ্গে সমুদ্রসীমার পর স্থল সীমান্ত সমস্যার সমাধান হলো। এখন দক্ষিণ এশিয়ার অন্য সঙ্গে থাকা দেশের বিরোধের নিষ্পত্তির সুযোগ তৈরি হবে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে বীনা সিক্রি বলেন, ভারত বিরোধ নিষ্পত্তি করতে চায় না প্রতিবেশী দেশের এটা বলার এখন সুযোগ নেই।

এ জাতীয় আরও খবর