বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জীবনযাত্রা বদলে বাঁচান মূল্যবান লিভার

news-image

স্বাস্থ্য ডেস্ক : লিভার বা যকৃৎ এমন একটি অঙ্গ, যা শরীরের বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় তার অবদান রেখে থাকে। অথচ মানুষ তার খাওয়া-দাওয়া এবং জীবনযাত্রার মাধ্যমে প্রায় অজান্তেই এই মহার্ঘ অঙ্গটির ক্ষতি করে থাকে, একেবারে প্রাণসংশয় অবধি। সম্প্রতি লিভারের স্বাস্থ্য রক্ষায় দারুণ একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ডয়েচ ভেলের পাতায়। পাঠকদের কথা বিবেচনা করে ডয়েচ ভেলের সৌজন্যে লেখাটি প্রকাশ করছি আমরা।

ভাইটাল অর্গান
যকৃৎ বা লিভার মানুষ ও অন্যান্য মেরুদণ্ডী প্রাণীর শরীরে একটি অপরিহার্য অঙ্গ। শরীরে লিভার নানা ধরনের কাজ করে: বিষাক্ত পদার্থের দূরীকরণ থেকে শুরু করে প্রোটিন সিন্থেসিস। এছাড়া খাবার হজম করার জন্য প্রয়োজনীয় নানা ধরনের জৈব রাসায়নিক পদার্থ সৃষ্টি করে লিভার৷।

হেপাটাইটিস
জার্মানিতে প্রায় আধ কোটি মানুষ কোনো না কোনোরকম যকৃতের রোগে ভোগেন। তার মধ্যে প্রথমেই আসে হেপাটাইটিস বা লিভারের ইনফ্ল্যামেশন: যা সাধারণত এ, বি, সি, ডি এবং ই গোত্রীয় হয়। যদিও এগুলো ভাইরাস-বাহিত, তবুও কিছু কিছু ক্ষেত্রে যৌন সঙ্গম থেকেও সংক্রমণ ঘটতে পারে। হেপাটাইটিস বি ভাইরাস এবং হেপাটাইটিস সি ভাইরাস আবার লিভারের ক্যানসার হওয়ার প্রধান কারণ।

অ্যালকোহল
মাত্রাধিক মদ্যপান থেকে যে লিভারের ক্ষতি হয়, তা কারো অজানা নেই। ফ্যাটি লিভার এবং লিভার সিরোসিস যার মধ্যে পড়ে। সিরোসিস হলো যকৃতের রোগের একটা চূড়ান্ত রূপ। এ রোগে পেটের মধ্যে ফ্লুইড জমে, এছাড়া স্কার টিস্যু ও নডিউলস দেখা দেয়। সিরোসিস সারানো সম্ভব নয় এবং শেষমেষ লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট বা যকৃৎ প্রতিস্থাপন ছাড়া কোনো পথ থাকে না।

লক্ষণগুলো চেনেন কি?
লিভারের যে ক্ষতি হয়েছে বা অসুস্থ যকৃতের লক্ষণ হলো মলের রং পাতলা এবং মূত্রের রং ঘন হওয়া, জন্ডিস, পেট, পায়ের গোড়ালি এবং পা ফোলা, অতিমাত্রায় ক্লান্তি, সহজেই রক্ত পড়া এবং ক্ষত দেখা দেওয়া আর লিভারের ব্যথা।

মেদ ও তার পরিণাম
সারা বিশ্বে আজ প্রযুক্তি, সমৃদ্ধি এবং আধুনিক জীবনধারার কারণে মেদবহুল মানুষের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। অথচ শরীরে মাত্রাধিক মেদ থাকলে তা ডায়বেটিস থেকে শুরু করে হৃদরোগ এবং ফ্যাটি লিভারের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

লিভারের ক্ষতি এড়াতে
খাবারের দিকে খেয়াল রাখুন, হাঁটাচলা করুন – অর্থাৎ সাধারণভাবে সুস্থ ও সুন্দর জীবনযাত্রা এক্ষেত্রেও একাধারে পথ্য এবং প্রতিষেধক। তবে যাঁদের যকৃতের রোগ আছে, তাঁদের সাধারণত প্রোটিন ও স্নেহ জাতীয় পদার্থ গ্রহণ কমাতে এবং কার্বোহাইড্রেট বাড়াতে বলা হয়।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা