বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রুবেলকে অব্যাহতি : চূড়ান্ত প্রতিবেদনে হ্যাপির নারাজি

news-image

 জাতীয় ক্রিকেট দলের পেসার রুবেল হোসেনকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে পুলিশের দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দিয়েছেন অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপি।

রোববার (১৭ মে) সকাল ১১টায় ঢাকার ৫ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক তানজিনা ইসমাইলের এজলাসে হাজির হয়ে তিনি এ নারাজি দেন। হ্যাপির আইনজীবী তুহিন হাওলাদার  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, আংশিক শুনানি শেষে বিচারক শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন ২০ মে এবং এ সময় পর্যন্ত ১০ হাজার টাকার বন্ডে রুবেলের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। এ সময় রুবেল ও হ্যাপি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আইনজীবী তুহিন হাওলাদার এর আগে বলেছিলেন, মামলার তদন্ত সঠিকভাবে না হওয়ায় হ্যাপি এ নারাজি দাখিল করবেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চূড়ান্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, মামলার বাদী সাক্ষ্য-প্রমাণ হাজির করতে পারেননি। আইনের বিধান থাকা সত্ত্বেও মূলত তিনি সাক্ষী হাজির বাদীকে কোনো নোটিসই দেননি।

নারাজি আবেদনে আটজন সাক্ষীর একটি তালিকাও দেওয়া হবে বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

গত ৬ এপ্রিল ঢাকার সিএমএম আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নারী সহায়তা ও তদন্ত বিভাগের পুলিশ পরিদর্শক (ভিক্টিম সাপোর্ট সেন্টার) পরিদর্শক হালিমা খাতুন।

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলার অভিযোগে মিরপুর থানায় গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর রুবেলের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন হ্যাপি। এ মামলায় চারদিন কারাগারেও ছিলেন রুবেল। পরে জামিনে মুক্ত হয়ে বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে অংশ নিয়ে অসাধারণ নৈপূণ্য প্রদর্শন করেন রুবেল।

চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাদী হ্যাপির উপস্থাপন করা নাইটি, পাপোষ ও জার্সিতে রুবেলের বীর্য পাওয়া যাবে বলে যে দাবি করা হয়েছিল, তার সত্যতা পাওয়া যায়নি।

তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ড তার শারীরিক পরীক্ষা করে মতামত দিয়েছিলেন যে, হ্যাপির শরীরের কোথাও কোনো ধরনের ধর্ষণের  প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

তদন্ত কর্মকর্তা তার প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। বাদী প্রাপ্তবয়স্ক নারী। এ হিসেবে পারস্পরিক সম্মতিতে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়ে বাদী হ্যাপির অভিযোগের দায় থেকে রুবেলকে অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলা দায়েরের পর পরই গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর হাইকোর্টে হাজির হয়ে চার সপ্তাহের আগাম জামিন নেন রুবেল। বিচারপতি সৈয়দ এবি মাহমুদুল হক ও বিচারপতি মো. আকরাম হোসেন চৌধুরীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ তাকে আগাম জামিন দেন।

আইন অনুসারে বিচারিক আদালত থেকেও জামিন নিতে হয়। সে কারণে আগাম জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই গত ৮ জানুয়ারি সিএমএম আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান রুবেল।  তার এ আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়ে দেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ার সাদাতের আদালত।
 
পরে ১১ জানুয়ারি রুবেলের জামিনের আবেদন জানানো হলে মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক ইমরুল কায়েস। ওইদিন বিকেলেই কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে পরদিন ১২ জানুয়ারি থেকে জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্যাম্পে যোগ দেন তিনি। ২৪ জানুয়ারি দলের সঙ্গেই অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলতে যান দেশের এ নির্ভরযোগ্য ও কৃতি পেসার।

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা