রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র গুড়িয়ে দিলেন মেয়র, মার্কেটে সায় দিলেননা মন্ত্রী

news-image

আমিরজাদা চৌধুরী : কোন বাধাই মানছেননা আখাউড়া পৌরসভার মেয়র স্থানীয় যুবলীগ নেতা তাকজিল খলিফা কাজল। ভেঙ্গে-গুড়িয়ে দিয়েছেন বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র। সরকারী ঐ জায়গা দখল করে এখন মার্কেট বানাতেই ব্যস্ত তিনি। মন্ত্রীর অসম্মতি,জেলা প্রশাসনের বাধা-নিষেদ,থানা-আদালতে মামলা-মোকদ্দমা কোন কিছুরই পড়োয়া নেই তার।
এলাকার সংসদ সদস্য আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হকের ঘনিষ্ট সহচর হিসেবে নাম ভাঙ্গিয়ে চলা এই মেয়র ‘ক্ষমতাধর’ হিসেবেই পরিচিত ছোট্ট শহর আখাউড়ায়। তার বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস নেই কারো। তবে মেয়রের এই কীর্তিতে সায় দেননি মন্ত্রী আনিসুল হক। তারপরও থেমে নেই মার্কেট বানানোর কাজ। পাইলিং শেষে চলছে লোড টেষ্টের কাজ।
আখাউড়া উপজেলা সদরের সবচেয়ে উচু জায়গা সড়কবাজারেই এতোদিন অস্তিত্ব ছিলো  প্রায় ৩শ ফুট লম্বা এবং ৩৫ ফুট পাশের বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রটির।  মাস দু-য়েক আগে সেটি নিশ্চিহ্ন করে দেন মেয়র কাজল । আনুমানিক ১০ লাখ টাকা মুল্যের পাকা স্থাপনাটি ভেঙে কোথায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে তারও কোন হদিস নেই। ফাঁকা ওই জায়গা টিন দিয়ে ঘিরে মার্কেট বানানোর কাজ চলছে ভেতরে। বিভিন্ন সুত্র জানিয়েছে- বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ভেঙ্গে সরকারী জায়গা দখল করে মেয়র মার্কেট বানানোর চেষ্টা করছেন গত প্রায় দু-বছর ধরেই। এজন্যে ২০১৩ সালে পত্রিকায় দরপত্র বিঞ্জপ্তি দেয়া হয়। নিয়োগ করা হয় ঠিকাদার । বাকী ছিলো শুধু বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রটি ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে জায়গা বের করা। তাতেও সফল হয়েছেন। মন্ত্রী দিয়ে মার্কেট বানানোর কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করানোর ইচ্ছেটাই শুধু অপূর্ণ থেকে গেছে মেয়রের। আখাউড়া জুড়েই এখন আলোচনা এই মার্কেট,আর মন্ত্রী-মেয়রের সম্পর্ক । মেয়র অবশ্য নিজেকে আইনের লোক দাবী করে বলেছেন, জোর করে তিনি কোন কিছু করছেননা। আখাউড়া পৌরসভার একজন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো: ফয়সাল জানান-এই মার্কেট হবে ৫ তলা বিশিষ্ট। প্রতি তলায় ৪০ টি করে মোট ২০০টি দোকান হবে। মার্কেট নির্মানে ব্যয় হবে ১০ কোটি টাকা।
মামলার বিবরণ ও আখাউড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়,আখাউড়া পৌরসভার অর্ন্তগত ২৭ নম্বর আখাউড়া মৌজার ২৫২,২৯৮ ও ২৯৯  দাগে এই জায়গাটির অবস্থান।  দোকান,ডাক্তারখানা ও পুকুর শ্রেনীর মোট ৬৩ শতক আয়তনের এই জায়গা বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে জেলা প্রশাসকের নামে রেকর্ডভূক্ত। দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয় নির্মিত বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রটি ছিলো এই জায়গার ওপরই। শহরের প্রানকেন্দ্রের সরকারী এই জায়গার দিকেই নজর পড়ে মেয়রের। মার্কেট নির্মান করতে ২০১৩ সালের ৪ আগষ্ট দরপত্র আহবান করে পৌরসভা ।  ঐ বছরের ৯ ই সেপ্টেম্বর দরপত্র গ্রহন  এবং ঠিকাদার নিয়োগ  প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয় । এরপরই মেয়রের থাবা থেকে জায়গাটি রক্ষায় আইনী পদক্ষেপ নেয় দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। থানায় মামলা,আদালতে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার মামলা করা হয়। মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলকে এসব মামলায় বিবাদী করা হয়। ঐ বছরের ১৩ ই অক্টোবর আখাউড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায় কর্মকর্তা মো: তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে প্রথমে থানায় একটি মামলা দেন। যাতে বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রটি ভেঙ্গে ফেলার আশঙ্কা ব্যক্ত করে তা রক্ষায় পুলিশের সহায়তা চাওয়া হয়। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের ২১ শে অক্টোবর তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহকারী জজ আখাউড়া আদালতে চিরস্থায়ী নিষেদাজ্ঞা চেয়ে একটি দেওয়ানী মামলা (মোকদ্দমা নং ৮৮/২০১৩ ইং ) করেন। এই মামলার এজাহারে আশ্রয় কেন্দ্রটির গুরুত্ব তুলে ধরে বলা হয়- ‘ বন্যা কবলিত ও আশ্রয়হীন লোকজনের জন্যে এটি একটি গুরুত্বপূর্ন আশ্রয় কেন্দ্র। বন্যা শেষ হয়ে গেলে এই কেন্দ্রটি গরীব অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা মূলক কাজে ব্যবহ্নত হয়। নালিশা  ভূমিতে আখাউড়া পৌরসভার কোন মালিকানা নেই এবং কোন দখল নেই। এটি জেলা প্রশাসক নামীয় সরকারী ভূমি। আখাউড়া পৌরসভার মেয়রের এই ভূমির ওপর লোলুপ দৃষ্টি পড়েছে। এটি পৌরসভার সম্পত্তি না হওয়া সত্বেও এই ভূমিতে পৌর সুপার মার্কেট করার জন্যে অন্যায় ও অবৈধ পরিকল্পনা গ্রহন করে আখাউড়া পৌরসভা কার্যালয় থেকে দরপত্র বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এই ভূমিতে অবৈধভাবে মার্কেট তৈরী করতে পারলে দোকান বরাদ্দ দিয়ে পৌর ফান্ডে অর্থ জমা দেয়া ছাড়াও মেয়র কোটি টাকা নিজ পকেটে নিতে পারবেন। অন্যদিকে বন্যা কবলিত মানুষের অপূরনীয় ক্ষতি হবে’।
ঐ বছরের ২৪ শে আগষ্ট অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের সাধারণ সভায়ও এনিয়ে আলোচনা হয় এবং সর্বসম্মতভাবে পৌর মার্কেট নির্মান কাজ জরুরী ভিত্তিতে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় । উপজেলা পরিষদের সাধারণ সভার আলোচনায় এ বিষয়ে বলা হয়  উল্লেখিতস্থানে মার্কেট নির্মানের এখতিয়ার পৌরসভার নেই। পৌরসভার বর্তমান অফিস ভবনের ভূমির মালিকও পৌরসভা নয়।
Kajol-Pic-2সময় যখন মেয়রের : এডভোকেট আনিসুল হক এলাকার সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী হওয়ার পর মন্ত্রীর ঘনিষ্ট সহচর হিসেবে নিজের পরিচয় ছড়িয়ে দেন আখাউড়ার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল। পাল্টে যায় দৃশ্যপট। তখন থেকেই  জায়গাটি রক্ষায় অসহায় হয়ে পড়ে স্থানীয় প্রশাসন। এনিয়ে যারা আগে মামলা-মোকদ্দমা করেছেন তারা ভয়ে নিজেদের গুটিয়ে নেন। এমনকি মুখ খোলার সাহসও হারিয়ে ফেলেন। বাদীর তদবিরের অভাবে ২০১৪ সালের ৮ ই মার্চ দেওয়ানী মোকাদ্দমাটি খারিজ করে দেয় আদালত। এই মামলার বাদী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: তাজুল ইসলাম বলেন- আমি কি ব্যবস্থা নেব। ব্যবস্থা নেবে কর্তৃপক্ষ। কেউ আইন না মানলে আমরা গায়ের জোড়েতো কোন কিছু করতে পারবোনা। তবে মামলাটি আপিল করেছেন বলে দাবী করেন তিনি। জানান সার্টিফাইড কপি পেতেই তার সময় লেগেছে দেড় মাস। বিভিন্ন সুত্র জানিয়েছে নিরাপদ বোধ না করায় আখাউড়া থেকে অন্যত্র চলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন এই কর্মকর্তা। ২০১৩ সালে উপজেলা পরিষদের সাধারণ সভায় এবিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার জন্যে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিলো। সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো : নজরুল ইসলাম বলেন- এই জায়গা সরকারী। কাগজপত্রেই সে রেকর্ড আছে। আমাকে দায়িত্ব দেয়ার পর আমরা ব্যবস্থা নিয়েছিলাম। এখন কি হয়েছে তা আমার জানা নেই। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আহসান হাবিব বলেন- ডিসি স্যার এবিষয়ে সব জানেন। আমরা ডিসি স্যারকে চিঠি দিয়ে সব জানিয়েছি। স্যারই সব পদক্ষেপ নিয়েছেন। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মুসলেম উদ্দিন বলেন- এটি আমাদের এখতিয়ারে নয়। জায়গার মালিক জেলা প্রশাসক। এদিকে আখাউড়া পৌরসভার কাউন্সিলররাও মার্কেট নিয়ে অন্ধকারে। কিভাবে কি হচ্ছে এর কোন কিছুই জানেননা তারা। কয়েকজন কাউন্সিলরের সঙ্গে এনিয়ে কথা বললে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা জানান- দেড়-দু’বছর আগে মার্কেট করা নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা করেছিলেন মেয়র তাদের সঙ্গে। তখন জায়গাটি পৌরসভার বলে আমাদেরকে জানালে আমরা মার্কেট করার সম্মতি দেই। এরপর এনিয়ে আর কোন কথা হয়নি। গত ৪/৫ মাসের মধ্যে পৌর পরিষদের কোন বৈঠকও হয়নি। এখন দেখছি আদালতে মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে, কত কিছু। মেয়র কিভাবে কি করছেন সেটি তিনিই জানেন। কিভাবে টেন্ডার হয়েছে,কে কাজ করছে এসবেরও কোন কিছু আমাদের জানা নেই। সব জানেন মেয়র আর প্রকৌশলী ফয়সাল। বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ভাঙ্গার আশঙ্কায় থানায় মামলা ছিলো। কিন্তু কোন ব্যবস্থাই নেয়নি আখাউড়া থানা পুলিশ। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম বলেন- এব্যাপারে মামলা হয়েছিলো কিনা তা আমার জানা নেই।
মন্ত্রী এলেননা : সবই ছিলো ঠিকঠাক। জায়গাও তৈরী। শুধু বাকী ছিলো কাজের উদ্ধোধন। এলাকার সংসদ সদস্য আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক পহেলা বৈশাখে মার্কেট নির্মান কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন বলে প্রচার ছিলো। মন্ত্রী কর্মসূচীও দিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মন্ত্রী সেখানে যাননি। নির্বাচনী এলাকার আরেক উপজেলা কসবা থেকে সোজা ঢাকায় ফিরে যান। দায়িত্বশীল সুত্র জানায়- মন্ত্রী এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন তা জানার পর জেলা প্রশাসক মন্ত্রীকে বিষয়টি অবহিত করেন। এদিকে মন্ত্রী না যাওয়ায় মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল মন্ত্রীকে ফোন করে এর প্রতিক্রিয়া দেখান। মন্ত্রীর জবাব পাওয়ার পর রাগে মেয়র ফোন ছুড়ে ফেলে দেন বলে আখাউড়ায় আলোচনা ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনার পর মন্ত্রী আর আখাউড়ায় যাননি।
অনিয়ম টেন্ডার,ঠিকাদার নিয়োগে : শুধু সরকারী জায়গা দখল নয় মার্কেট নির্মানের দরপত্রে-ঠিকাদার নিয়োগেও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। পৌরসভার ৭ সদস্য বিশিষ্ট দরপত্র কমিটির মধ্যে ৫ জনই পৌরসভার। এই কমিটির বাইরের ২ জন সদস্য হচ্ছেন- এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলী ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা। সুত্র জানায় এ দু-জনের স্থলে শুধুমাত্র মার্কেট নির্মান কাজের জন্যে টেন্ডার কমিটির সদস্য করা হয় আখাউড়া রেলজংশনের পূর্ত বিভাগের একজন প্রকৌশলী জুবায়ের আহমেদ সরকার এবং শাহআলম নামে টেলিকম বিভাগের আরেকজনকে। বছর দেড়েক আগে আখাউড়া থেকে চট্টগ্রামে বদলী হয়ে যাওয়া জুবায়ের আহমেদ সরকারের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে এ বিষয়ে তিনি কোন কিছু জানেননা বলে জানান। কয়েক মাস আগে আখাউড়ায় যোগদান করা উপজেলা প্রকৌশলী মো: মোবারক হোসেন বলেন-কমিটি থেকে আমাদের বাদ দেয়া হয়েছে কিনা তা বলতে পারছিনা। সানবীম এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান মার্কেট নির্মান কাজের ঠিকাদারী পেয়েছে বলে বলা হলেও মেয়ের নিজেই এই কাজ করছেন বলে আলোচনা রয়েছে।
ডিসির পদক্ষেপ : জেলা প্রশাসক ড: মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেছেন- আমরা মেয়রকে লিখিত ও মৌখিকভাবে এখানে মার্কেট না করার জন্যে নিষেদ করেছি। নতুন করে কাজ শুরু করেছে কিনা তা আমার জানা নেই। আমি খোজ নিয়ে দেখছি। তিনি জানান, এটি দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের জমি । আমরা এবিষয়ে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষন করেছিলাম। স্থানীয় সরকার বিভাগকে লিখিতভাবে জানিয়েছিলাম। স্থানীয় সরকার বিভাগ মেয়রের কাছে ৪ টি বিষয়ে জানতে চেয়েছিলো। এর একটি হচ্ছে জমিটি সঠিকভাবে হস্তান্তর হয়েছে কিনা। কারন এটি খাস খতিয়ানভূক্ত,এখানে ত্রান মন্ত্রনালয়ের স্থাপনা ছিলো। দ্বিতীয়ত: যে মার্কেট হচ্ছে এর অর্থের উৎস কি ? তৃতীয়ত মার্কেট করার অনুমোদন আছে কিনা। এসব বিষয়ে তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিলো। তবে এসব প্রশ্নের উত্তর স্থানীয় সরকার বিভাগকে সে দিতে পেরেছে কিনা তা আমার জানা নেই।
তবে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল জোর করে মার্কেট নির্মান করার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন জোর করে কি কোন কিছু করা যায়? আমরা আইনের লোক হয়ে কি তা করতে পারি?

 

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার