শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টিতে পিছিয়ে বাংলাদেশ

news-image

ডেস্ক রিপোর্ট : উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টির বিকল্প নেই। সরকারের ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার অন্যতম লক্ষ্যও এটি। এ লক্ষ্য অর্জনে নেয়া হয়েছে শিক্ষা বিস্তারসহ বেশকিছু পদক্ষেপ। কিন্তু কর্মক্ষেত্র ও শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে যে সামঞ্জস্যহীনতা, তাতে দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টিতে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ।

বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ) ও যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান মারসারের এক প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে।

গত বুধবার প্রকাশিত ‘দ্য হিউম্যান ক্যাপিটাল রিপোর্ট ২০১৫’ শীর্ষক এ প্রতিবেদনে বলা হয়, শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টিতে ১২৪ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৯৯তম। এছাড়া এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ২২ দেশের মধ্যে ১৭তম এবং দক্ষিণ এশিয়ায় শ্রীলংকা ও ভুটানের পরে রয়েছে বাংলাদেশ। আর নিম্ন আয়ের দেশগুলোর মধ্যে তাজিকিস্তান ও কম্বোডিয়ার পর বাংলাদেশের অবস্থান। ১০০ স্কোর ধরে পরিচালিত এ গবেষণায় বাংলাদেশের স্কোর ৫৭ দশমিক ৬২।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের ২৫ থেকে ৫৪ বছর বয়সীদের ৮২ শতাংশ কর্মে নিয়োজিত থাকলেও এর মধ্যে মাত্র ৬ দশমিক ৩ শতাংশ উচ্চদক্ষতাসম্পন্ন। বাকিদের মধ্যে ৫৩ শতাংশ আধা বা মাঝারি দক্ষ ও ৪০ দশমিক ৭ শতাংশ অদক্ষ। ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সীদের মধ্যে কর্মে নিয়োজিতের হার ৫৯ শতাংশ। এদের বহুমাত্রিক দক্ষতা তুলনামূলক কম। ৫৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সীদের মধ্যে কর্মে নিয়োজিতের হার ৬৬ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা ১৬ কোটি। মোট জনসংখ্যার ৫৭ শতাংশই অন্যের ওপর নির্ভরশীল, যাদের বয়স ১৫ বছরের নিচে বা ৬৫ বছরের ওপর। কর্মক্ষম মানুষ ১০ কোটি ৬১ লাখ হলেও কাজের সঙ্গে যুক্ত এর মাত্র ৭১ শতাংশ। আর কর্মে নিয়োজিতের অধিকাংশই পুরুষ। নারীদের কর্মে নিয়োজিত থাকার হার পুরুষের তুলনায় ৪৪ দশমিক ৩ শতাংশ কম।

বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে বিজনেস স্কুলের মান মাঝারি ধরনের, যার স্কোর ৭-এর মধ্যে ৩ দশমিক ৭২। এ স্কোর গণিত বা বিজ্ঞানশিক্ষার ক্ষেত্রে ৩ দশমিক ৩৬, বিশেষায়িত প্রশিক্ষণসেবায় ৩ দশমিক ১১, মেধা আকর্ষণ ক্ষমতায় ২ দশমিক ৪ ও মেধা ধরে রাখার ক্ষমতায় ২ দশমিক ৭১।

পেশার সঙ্গে শিক্ষার সামঞ্জস্যহীনতার চিত্রও উঠে এসেছে এ গবেষণায়। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে বছরে ৩ লাখ ১৬ হাজার শিক্ষার্থী স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। এর মধ্যে সামাজিক বিজ্ঞান, ব্যবসায় ও আইন বিষয়ে ১ লাখ ৩৫ হাজার, মানবিক বিভাগে ১ লাখ ১০ হাজার ও বিজ্ঞান বিভাগে ৩৫ হাজার। অথচ প্রকৌশল, উৎপাদন ও নির্মাণ বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন ১৪ হাজার ও স্বাস্থ্যসেবায় ৫ হাজার শিক্ষার্থী। বাকিরা অন্যান্য বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

বর্তমানে ২০ লাখ শিক্ষার্থী বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক পর্যায়ে পড়াশোনা করছেন। এর মধ্যে সামাজিক বিজ্ঞান, ব্যবসায় ও আইনে ৯ লাখ ৬৯ হাজার, মানবিক বিভাগে ৬ লাখ ৭ হাজার ও বিজ্ঞান বিভাগে ২ লাখ ৬৯ হাজার। তবে প্রকৌশল, উৎপাদন ও নির্মাণ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পড়ালেখা করছেন মাত্র ৬৫ হাজার ও স্বাস্থ্যসেবায় ৪৫ হাজার। যদিও চাকরির বাজারে মানবিক, সামাজিক বিজ্ঞান প্রভৃতি বিষয়ের চাহিদা কম। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সংযোগও সেভাবে নেই।

শিক্ষা ব্যবস্থায় এ অসামঞ্জস্য দূর করতে এখনই নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টারের (পিপিআরসি) নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘সর্বজনীন শিক্ষা ব্যবস্থার নিশ্চয়তায় এখন কী ধরনের শিক্ষা প্রয়োজন, সেদিকে নজর দেয়ার সময় এসেছে। কর্মসংস্থানের চাহিদা ও শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে একটি জাতীয় সমন্বয় (ম্যাচিং) প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে সমন্বিত একটি নীতিমালার আলোকে শিক্ষালয় স্থাপনের অনুমোদন ও তা সম্প্রসারণ অব্যাহত রাখা জরুরি। সেই সঙ্গে শিক্ষা ব্যবস্থায় গুণগত মানও নিশ্চিত করতে হবে।’

প্রতিবেদন অনুযায়ী, দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টিতে দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে ভালো অবস্থায় রয়েছে শ্রীলংকা। ৬৮ দশমিক ১৯ স্কোর নিয়ে দেশটির অবস্থান ৬০তম। ৬১ দশমিক ১১ স্কোর নিয়ে ভুটান রয়েছে ৮৭তম স্থানে। ৫৭ দশমিক ৬২ স্কোর নিয়ে বাংলাদেশের পরই রয়েছে ভারত, দেশটির অবস্থান ১০০তম। এছাড়া ৫৫ দশমিক ৭৭ স্কোর নিয়ে নেপাল ১০৬ ও ৫২ দশমিক ৬৩ স্কোর নিয়ে ১১৩তম স্থানে রয়েছে পাকিস্তান।

বিশেষজ্ঞদের মতে, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত দক্ষ মানবসম্পদ উন্নয়নে বেশ এগিয়ে গেছে। বিশ্বের প্রথম সারির অনেক বহুজাতিক কোম্পানির শীর্ষ পদে রয়েছেন ভারতের নাগরিকরা। এমনকি বাংলাদেশেও অনেক বড় কোম্পানির শীর্ষ পদে কর্মরত তারা। তবে দেশটির জনসংখ্যা অনেক বেশি, প্রায় ১২০ কোটি। তাই সামগ্রিক গড়ে তারা কিছুটা দুর্বল অবস্থানে রয়েছে।

এদিকে দক্ষ মানবসম্পদ সৃষ্টিতে বৈশ্বিকভাবে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় রয়েছে ফিনল্যান্ড। দেশটির স্কোর ১০০-এর মধ্যে ৮৫ দশমিক ৭৮। ৮৩ দশমিক ৮৪ স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় নরওয়ে, ৮৩ দশমিক ৫৮ নিয়ে তৃতীয় সুইজারল্যান্ড, ৮২ দশমিক ৮৮ স্কোরে চতুর্থ কানাডা ও ৮২ দশমিক ৭৪ স্কোর নিয়ে পঞ্চম জাপান। শীর্ষ দশে এর পর রয়েছে যথাক্রমে সুইডেন, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড ও বেলজিয়াম।

মূলত দুটি স্তম্ভের ভিত্তিতে সূচকটি প্রণয়ন করা হয়েছে। এগুলো হলো শিক্ষা ও কর্মসংস্থান। তবে প্রতি স্তম্ভের অধীনে কয়েকটি উপসূচক রয়েছে। এর মধ্যে শিক্ষার ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির হার, শিক্ষিতের হার, শিক্ষার গুণগত মান, বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও কাজ করতে গিয়ে শেখার হার। আর কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে রয়েছে কর্মক্ষম মানুষের চাকরিতে নিয়োজিতের হার, বেকারত্বের হার, আংশিক বেকারত্ব, দীর্ঘমেয়াদি বেকারত্ব, দক্ষতা, শিশুদের কাজে নিয়োজিতের হার প্রভৃতি। প্রতি ক্ষেত্রেই খুবই দুর্বল অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনটিতে পাঁচটি বয়সভিত্তিক শ্রেণী বিভাগে মানবসম্পদের দক্ষতার বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে দেশের বৃহৎ কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী, যাদের বয়স ২৫ থেকে ৫৪ বছর। সূচকটিতে বাংলাদেশের ২৫-৫৪ বছরের জনগোষ্ঠী দক্ষতার দিক থেকে বিশ্বের ১২৪টি দেশের মধ্যে ১১১তম স্থানে রয়েছে। বয়সভিত্তিক অন্যান্য গ্র“পের অবস্থা তুলনামূলক ভালো। এর মধ্যে ৫৫-৬৪ বছরের গ্র“পে বাংলাদেশের অবস্থান ৯২তম, ১৫-২৪ বছরের গ্র“পে ৯১, ১৫ বছরের নিচের গ্র“পে ৮৯ এবং ৬৫ বছর ও তদূর্ধ্ব গ্র“পে ৮৭তম। অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন এ প্রসঙ্গে বণিক বার্তাকে বলেন, মানবসম্পদ সৃষ্টিতে বাংলাদেশের অবস্থা যে আশাব্যঞ্জক নয়, সে চিত্রই উঠে এসেছে প্রতিবেদনটিতে। এতে যে স্তম্ভগুলোর কথা বলা হয়েছে, তার মধ্যে শুধু শিক্ষায় কিছুটা উন্নয়ন হয়েছে। যদিও তা প্রাথমিক স্কুলে ভর্তির ক্ষেত্রে। উচ্চশিক্ষার চিত্র এখনো খুবই করুণ। তার ওপর কর্মসংস্থানের সঙ্গে অনেকটাই সামঞ্জস্যহীন অবস্থায় রয়েছে শিক্ষা ব্যবস্থা। আর বিনিয়োগ না বাড়ায় কর্মক্ষম জনশক্তি বৃদ্ধির অনুপাতে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে না। কর্মোপযোগী পরিবেশের অবস্থাও খারাপ। সব মিলিয়েই পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। বণিকবার্তা

এ জাতীয় আরও খবর