শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হিলিপ প্রকল্প দেখতে প্রতিনিধি দল তুষ্ট করতে গান-বাজনার আসর

news-image

আমিরজাদা চৌধুরী : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এলজিইডি’র হিলিপ প্রকল্পের খোজখবর নিতে এই প্রকল্পে  অর্থ যোগানদাতা বিদেশী সংস্থা ইফাদের প্রতিনিধি দলসহ প্রকল্পের কর্মকর্তাদের ১২/১৪ জনের একটি দল বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসেছেন। এর নেতৃত্বে¡ রয়েছেন  হিলিপ প্রকল্পের পরিচালক গোপাল চন্দ্র পাল। প্রকল্প পরিদর্শনে বের হওয়ার আগে এলজিইডি ও হিলিপের স্থানীয় কর্মকর্তারা তাদের তুষ্ট করার প্রচেষ্টা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এজন্যে ছিলো নানা আয়োজন। একাধিক সুত্র জানায়- বুধবার সন্ধ্যা রাত থেকে গভীররাত পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলজিইডি’র মিলনায়তনে চলে গান-বাজনা। বিশেষ আপ্যায়নেরও ব্যবস্থা ছিলো। প্রতিনিধি দলে ৬ জন বিদেশী রয়েছেন। উল্লেখ্য এলজিইডি’র হাওরাঞ্চলের জনগোষ্টির জীবন মান উন্নয়ন প্রকল্প-হিলিপ এর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় চলমান বিভিন্ন প্রকল্পে অনিয়ম-দূর্নীতির বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়ন দরিদ্র জনগোষ্টির মাধ্যমে করার নির্দেশনা থাকলেও এলজিইডি ও সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের স্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে মোটা অংকের টাকা রফাদফায় এই কাজ করছে ঠিকাদাররা। প্রকল্পের শর্ত লঙ্গন ও নিম্নমানের কাজ করে প্রকল্পের জন্যে ঋন হিসেবে দেয়া দাতা সংস্থার অর্থ লোপাটেরই অভিযোগ উঠেছে । আর কাজ হচ্ছে নামমাত্র। নীতিমালা অনুসারে প্রকল্প এলাকাধীন দরিদ্র জনগোষ্টি নিজেরা কমিটি করে এই কাজ করার কথা। সেজন্যে কাজ শুরুর আগে নির্মান সামগ্রী ক্রয়ের জন্যে মোট প্রকল্প ব্যয়ের ৪০ ভাগ টাকা অগ্রিম প্রদান করার নিয়ম রয়েছে।

ssssআর তাই হিলিপের কাজ লোভনীয় কাজে পরিনত হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার  ঠিকাদারদের কাছে। হিলিপ প্রকল্পের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মোটা অংকের টাকা চুক্তিতে এই কাজ ভাগিয়ে নেয় ঠিকাদাররা। এতে প্রকল্পের উদ্দেশ্যেই শুুধু ব্যাহত হচ্ছেনা, কাজও হচ্ছে নামমাত্র। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ২০১৩ সাল থেকে এই প্রকল্প শুরু হয়েছে। জেলার সদর উপজেলা, নবীনগর, আশুগঞ্জ, নাসিরনগর ও সরাইলে রাস্তা, মার্কেট ও ভিলেজ প্রটেকশন ওয়াল নির্মানের কাজ হচ্ছে এই প্রকল্পের আওতায়। কিন্তু প্রত্যেকটি প্রকল্প বাস্তবায়নে শুরু থেকেই অনিয়মের অভিযোগ উঠে। নবীনগর উপজেলার বগডহরে ৬৫ লাখ টাকার কাজ হয় যেনতেন ভাবে। স্থানীয় দরিদ্র জনগোষ্টির বদলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে সাথে নিয়ে এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলী  নিজেই এই কাজ করেন বলে অভিযোগ উঠে। কাজে পাওয়া যায় ঠিকাদার নিয়োজিত নির্মান শ্রমিকদের। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সেন্দ-মোহাম্মদপুর রাস্তার কাজ করতে দেখা গেছে জামালপুরের শ্রমিকদের। প্রায় সোয়া ২ কোটি টাকার এই কাজও যাচ্ছেতাই। বালির পরিবর্তে মাটি মিশ্রিত নামমাত্র বালি দিয়ে ব্লক নির্মান করা হচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার এই প্রতিনিধি দল নবীনগরের বগডহরে প্রকল্প পরিদর্শন করে। এসময় এলসিএস সদস্যদের (দরিদ্র জনগোষ্টি) মধ্যে লাভ্যাংশ বিতরণ করেন তারা। কিন্তু কয়েক সপ্তাহ আগে সাংবাদিকরা সরজমিন অনুসন্ধানকালে কোন এলসিএস সদস্যের (লেবার কনট্রাকটিং সোসাইটি বা দরিদ্র জনগোষ্টি ) দেখা পাননি। প্রকল্পের কাজ করতে দেখা যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের ঠিকাদার বাবুল মিয়ার নিয়োজিত শ্রমিকদের। স্থানীয় লোকজনও তখন জানান বাইরের লোকজনই এখানে কাজ করছে। অনুসন্ধানী এ প্রতিবেদন দেশের প্রভাবশালী কয়েকটি বেসরকারী টিভিতে প্রচারিত হয়।
এব্যাপারে জানতে আজ রাত সোয়া ৯ টার দিকে এলজিইডি’র ব্রাহ্মণবাড়িয়া নির্বাহী প্রকৌশলীর মোবাইল ফোনে ফোন করলে তিনি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

 

 

 


 

 

এ জাতীয় আরও খবর