সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হেঁচকি কি? পানি খেলে হেঁচকি উঠা বন্ধ হয় কেন?

news-image

অন্যরকম ডেস্ক : হয়তো খাবার খেয়ে উঠলেন। বিশ্রাম নিচ্ছেন এমন সময় শুরু হল হেঁচকি উঠা। কাশি, হাঁচির মতই হেঁচকি উঠা এক ধরনের সমস্যা বলে চলে। হেঁচকি আসলে কি? কেন আমাদের হেঁচকি উঠে? এমন প্রশ্ন হয়ত কোন একসময় আপনার মাথায় ঘুরপাক খেয়েছে। নাহ, এই সামান্য হেঁচকি উঠাও কিন্তু বিজ্ঞানের বাইরে নয়। এর পেছনেও আছে বিজ্ঞানের যুক্তি। তাহলে জেনে যাওয়া যাক হেঁচকি সম্পর্কে তথ্য সমূহ।

হেঁচকি কি? কেন হেঁচকি উঠে? :
গ্রামাঞ্চলে ছোট বাচ্চাদের মজা করে বলা বলা হয়, চুরি করে বা লুকিয়ে কিছু খেলে হেঁচকি উঠে। যদিও এ কথা সম্পুর্ন ভিত্তিহীন। কারন এই হেঁচকি উঠার জন্য আমাদের শরীর ই দায়ী। শরীর যখন তার নিয়ম বহির্ভুত কিছু খুঁজে পায় তখনই আমাদের অস্বস্তিতে পড়তে হয়।

আমাদের বুক আর পেটের মাঝখানে মাংসপেশি দিয়ে তৈরি একটি দেয়াল বা পার্টিশন রয়েছে। এই মাংসপেশিকে ডায়াফ্রাম বলে। এই ডায়াফ্রাম অবিরত এক নির্দিষ্ট ছন্দে প্রসারিত ও সংকুচিত হয়। কোন কারনে স্বাভাবিক ছন্দ নষ্ট হয়ে ডায়াফ্রাম যদি হঠাত বেশি করে সংকুচিত ও প্রসারিত হতে থাকে তবেই হেঁচকি উঠে। (সাধারণত বলা হয়ে থাকে, খাবার খাদ্যনালীতে না গিয়ে যদি শ্বাসনালীতে চলে যায় তাহলে সেই খাদ্যকনা কে শ্বাসনালী থেকে বের করে দেহের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার জন্যই হেঁচকি উঠে।) ডায়াফ্রামের সংকোচন-প্রসারনের স্বাভাবিক ছন্দ বজায় রাখতে সাহায্য করে “ফ্রেনিক নার্ভ” নামক এক বিশেষ ধরনের স্নায়ু। গলা বেশি করে শুকিয়ে গেলে বা ঝাল খেলে অনেকের ফ্রেনিক নার্ভ উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং তার ফলে ডায়াফ্রামের সংকোচন-প্রসারণ এর মাত্রা বেড়ে যায়। ডায়াফ্রামের এই সংকোচনের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে, শ্বাসনালীর ভেতরের স্বররন্ধ্র থেকে খানিকটা বাতাস হঠাত করে বেরিয়ে যাওয়ার কারনে গলা দিয়ে এক অদ্ভুত শব্দ বেরুতে থাকে। একেই আমরা বলি- হেঁচকি উঠা।

পানি খেলে হেঁচকি উঠা বন্ধ হয় যে কারনেঃ 
কারো হেঁচকি উঠলে আমরা সাধারণত আমরা তাকে পানি খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকি। হেঁচকি ওঠার সময় ঠান্ডা পানি খেলে তা সরাসরি পাকস্থলীতে চলে যায়। পাকস্থলীতে রয়েছে “ভেগাস নার্ভ”। ভেগাস নার্ভ থেকে সংকেত পৌছায় বলেই ফ্রেনিক নার্ভ উত্তেজিত হয়ে থাকে। ঠান্ডা পানির সংস্পর্শে ভেগাস নার্ভ অসাড় হয়ে পড়লে ফ্রেনিক নার্ভে সংকেত পৌছায় না। এর ফলে তার উত্তেজনা কমে এবং ডায়াফ্রাম তার দুলুনির নিজস্ব ছন্দে ফিরে আসে। সেই সাথে হেঁচকি উঠা বন্ধ হয়ে যায়।

যে কাজগুলো হেঁচকি উঠার কারন হতে পারেঃ

খাবার খাওয়ার সময় পানি কম খেলে বা শুকনো জাতীয় খাবার খেলে।
খাবার খাওয়ার সময় অতিরিক্ত কথা বললে।
অতি দ্রুত খাওয়ার অভ্যাস থাকলে।
সতুরাং, খাবার খাওয়ার সময় একটু সচেতনতা অবলম্বন করাই বুদ্ধিমানের কাজ। তবুও যদি হেঁচকি উঠেই যায় তাহলে আর কি করবেন। ফ্রিজ থেকে পানি বের করে এক গ্লাস ঠান্ডা পানি খেয়ে ফেলবেন। ব্যাস, হয়ে গেল বিরক্তিকর হেঁচকি থকে মুক্তি।

জেনে নিন কিছু মজার তথ্যঃ
•    সজনে পাতার রস ৯/১০ ফোঁটা আধ গ্লাস দুধের সাথে মিশিয়ে পান করে ফেলুন এক নিঃশ্বাসে। দেখবেন হেঁচকি ওঠা দ্রুত বন্ধ হয়ে যাবে।
•    হেঁচকি উঠলে পেঁয়াজের রস মিশানো পানি খেলে হেঁচকি উঠা বন্ধ হয়ে যাবে

•    হেঁচকি উঠা শুরু করলে দম আটকে রাখলে বেশ উপকার পাওয়া যায়। হাতের আঙ্গুল দিয়ে নাক চেপে ধরুন এবং মুখ বন্ধ করে রাখুন। এভাবে যতক্ষণ থাকা সম্ভব হয় ততক্ষণ থাকুন। হেঁচকি বন্ধ হয়ে গেলে দম ছেড়ে দিন।