শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে ইউএনও’র মহৎ উদ্যোগে সেতু নির্মাণ

news-image

স্টাফ রিপোর্টার সরাইল : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক ইউপি সদস্যের মহৎ উদ্যোগ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। স্থানীয় লোকদের স্বেচ্ছাশ্রম ও আর্থিক সহযোগীতায় জাফর নদীর উপর সেতু নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। এর দৈর্ঘ্য ১৬০ ফুট। স্বস্থির নিঃশ্বাস ফেলছে শিক্ষার্থী ব্যবসায়ি সহ ওই এলাকার দশ সহস্রাধিক লোক। হাত তুলে উদ্যোক্তাদের জন্য দোয়া করছেন গ্রামের মহিলারা। ওই জনপদের লোকদের দীর্ঘদিনের আকুতি আমলে নেয়নি সরকার। সরজমিনে স্থানীয় লোকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মেঘনা নদী থেকে জাফর নদীর উৎপত্তি। এ নদীটি সরাইলের বিভিন্ন এলাকায় বিস্তৃত। নদীর উৎস স্থলেই দুই পাড়ে গড়ে উঠেছে পানিশ্বর বাজার। উত্তর পাড়ে রয়েছে বিশাল বড় বাজার, অগণিত আড়তদার, বেশ কয়েকটি চাতাল, একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, একটি মাদ্রাসা, কারিগড়ি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র সহ অনেক গুলো ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান। রয়েছে দুটি পরীক্ষা কেন্দ্র। দক্ষিণ পাড়ে রয়েছে একটি বাজার ও প্রাথমিক বিদ্যালয়। দক্ষিণ পাড়ের লোকজন সড়ক পথে সরাইল, আশুগঞ্জ ও জেলা শহরে অবাধে যাতায়ত করছে। উত্তর পাড়ের বাসিন্ধারা এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। তারা নৌকায় জাফর নদী পাড় হয়ে দক্ষিণ পাড় না এসে সড়ক পথ পায় না। দক্ষিণ পাড়ের ৩-৪ গ্রামের সহস্রাধিক শিক্ষার্থী ও সাধারন লোকজন নিজেদের প্রয়োজনে দিন রাত নদী পাড়াপাড় হয়। একটি মাত্র ছোট খেয়া দিয়ে শত শত বছর ধরে চলছে পাড়াপাড়ের কাজ। এখানে প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে। সেতু না থাকায় কোটিপতি একাধিক ব্যবসায়ি থাকার পরও এখানে গড়ে উঠেনি ব্যাংক। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা ব্যাংকিং করেন আশুগঞ্জে। গুরুতর অসুস্থ ও বয়স্ক রোগীরা সীমাহীন দূর্ভোগ পোহায়। সেতু না থাকায় উত্তর পাড়ের লোকজনের সাথে কেউ আত্মীয়তা করতে চায় না। সেতু নির্মানকে কেন্দ্র করে উভয় পাড়ের বাসিন্ধাদের মধ্যে একাধিকবার হয়েছে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। হয়েছে হামলা মামলা। সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরান হোসেন ইউনিয়ন পরিষদ সহ বিভিন্ন কাজ পরিদর্শনে গেলে বিষয়টি নজরে পড়ে। মানুষের কষ্ট তিনি অনুধাবন করেন। কথা বলেন সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মোঃ মোস্তফার সাথে। স্ব উদ্যোগে এগিয়ে আসেন মোস্তফা। গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে পরামর্শ সভা করেন। ৪০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় নির্ধারন করে স্বেচ্ছাশ্রম ও স্থানীয় লোকদের আর্থিক সহায়তায় সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। উত্তর পাড়ের আড়তদারদের দেয়া ৪ লাখ টাকা দিয়ে ৩ মাস আগে কাজটি শুরু হয়। আর থেমে থাকেনি। কেউ বালু, কেউ সিমেন্ট ও ইট দেওয়ার ঘোষনা দেন। উদ্ভোধনের দিন হাজার হাজার লোক স্বেচ্ছায় মাটি কাটায় অংশ গ্রহন করেছে। এখনো রাজমিস্ত্রিকে কাজে সহায়তা করছেন তারা। বাড়িতে কোনদিন কাজ না করলেও আনন্দে সেতুর করে যাচ্ছেন। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। উপজেলা পরিষদ থেকে ১লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। এমপি মৃধা জেলা পরিষদ থেকে ২ লাখ টাকা দেয়ার ঘোষনা দিয়েছেন। হাজী ফুল মিয়া (৬০), ছাদু মিয়া (৬২) ও আড়তদার আরিফ মিয়া (৪৭) বলেন, টাকা পয়সা নিয়ে সাঁতার কেটে নদী পাড় হয়েছি। ভারী মালামাল পাড়াপাড়ে কতটুকু কষ্ট করছি বলে বুঝানো যাবে না। অনেক চেষ্টা করেছি। সরকারি ভাবে হয়নি। আমরা কৃতজ্ঞ ইউএনও’র কাছে। উনার প্রচেষ্টায় নিজেরাই সেতু নির্মান করছি। এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের গ্লানি দূর হবে। নিজেরা শ্রম ও অর্থ দিচ্ছি তাতে কোন কষ্ট নেই। সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি এ সেতু শুধু পানিশ্বর নয় গোটা উপজেলার জন্য একটি উদাহরণ ও ইতিহাস হয়ে থাকবে। শিক্ষক মোঃ মোমিন মিয়া ও ফরিদুল ইসলাম বলেন, রাতে সাঁতরিয়ে নদী পাড় হতে গিয়ে সামছুল হক ভূইয়া নামের এক মেহমান মারা গেছেন। এ সেতু দুইপাড়ের মানুষের মধ্যে আন্তরিকতা হৃদ্যতা বৃদ্ধি করবে। এটা বড় ধরনের আশির্বাদ। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি কমবে, সময় বাঁচবে। দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী তানজিনা আক্তার, শান্তা আক্তার ও  নাজমুল বলেন, এ সেতু আমাদের শিক্ষা আর্থিক সামাজিক সব দিকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, একটি সেতুর জন্য ১০ সহস্রাধিক লোকের জীবনমান পিছিয়ে আছে। দ্রুত সরকারি ভাবে করা ও সম্ভব নয়। তাই ইউপি সদস্য মোস্তফার মাধ্যমে স্থানীয় জন গোষ্ঠীকে বুঝিয়ে স্বেচ্ছাশ্রম ও অর্থের দ্বারা কাজটি শুরু করতে পেরেছি। একতাবদ্ধ হয়ে চেষ্টা করলে যেকোন কাজ সম্ভব। সকলের সহযোগীতায় এ সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছি। এটাই আমার অনেক বড় পাওনা।

           

 

এ জাতীয় আরও খবর