বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঞ্ছারামপুর রুপসদী খানেপাড়া জমিদার বাড়িতে বাজেনা নহবত, বসে না বৈশাখী মেলা

news-image

এম এ আউয়াল : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রুপসদী গ্রামের শতবর্ষের জমিদার বাড়িটি এখন ধ্বংস হতে বসেছে । ১৯১৫ সালে ভারত থেকে নকসা ও রাজমিস্ত্রী এনে তীর্থবাসী চন্দ্র রায় ৫ একর জমির উপর এই অট্রালিকা নির্মাণ করেন । এ বাড়িতে ৩ টি পুকুর ছিল । বড় বড় মাছ ছিল এসব পুকুরে। পুকুর দেখাশুনা করার জন্য ২০ জন লোক কাজ করতো । এক সময় বিরাট বৈশাখী মেলা বসতো এই জমিদার বাড়িতে । উপজেলার বিভিন্ন এলাকার লোক বৈশাখী উৎসব উদযাপন করার জন্য এই জমিদার বাড়িতে ভিড় জমাতো । প্রতি বছর মাসে হতো কীর্তন নামযষ্ণসহ নানা ধর্মীয় অনুষ্টান । একটি বড় পুজামন্ডপ ছিল পূর্ব দিকে । সার্বক্ষনিক ভাবে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকতো এ জমিদার বাড়িতে। তখনকার আমলের যারা এখনো বেঁচে আছে তাদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে যে ,কোন মুসলমান,লোক ছাতি মাথায় বা জুতা পায়ে দিয়ে এ জমিদার বাড়ি দিয়ে হেটে যেতে পারতো না। এ কারনেই জমিদার তীথবার্সী চন্দ্র রায় বহু চিন্তা ভাবনা করে ৫ একর জমির উপর রুপসদী গ্রামের সর্বশেষ পূর্ব পার্শ্বে নির্মাণ করেন এই অট্রালিকা।এখানে বসে খাজনা আদায় করা হতো । জমিদার তীথবার্সী চন্দ্র রায় রাজকীয় ভঙ্গিতে ঘোড়া চড়ে বিভিন্ন এলাকায় যাতায়ত করতেন । তার ছেলে মহিষ চন্দ্র রায় এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে ১৯১৫ সালে সাড়ে চার একর জমির উপর নির্মান করেন রুপসদী বৃন্দাবন উচ্চ বিদ্যালয় । একই সালে তার পিতা তীর্থবাসীর স্মৃতি রক্ষায় নির্মাণ করা হয় একটি বিরাট মঠ। জমিদার বাড়িতে এখন আর পূজা হয়না , কীর্তনের আসর বসেনা ,হয় না বৈশাখী মেলা,নহবতের সুর আর বাতাস মাতিয়ে তোলেনা।জমিদারী প্রথা বিলুপ্ত হওয়ার পর ধীরে ধীরে জৌলুস হারাতে থাকে জমিদার বাড়ি।কালের পরিবর্তনে জমিদার বাড়িটি এখন অন্ধকারে নিমজ্জিত । সন্ধ্যার পর ফুর্তি -আমোদ করার জন্য বাড়ির পূর্ব পার্শ্বে নির্মান করা হয়েছিল একটি নাচন ভবন। সুষ্ঠ রক্ষনাবেক্ষনের অভাবে তাও ভেঙ্গে গেছে । জমিদার বাড়িতে কোন বয়স্ক লোক না থাকলে ও যতটুকু সম্ভব এলাকার মুরব্বীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে যে,বৃন্দাবন রায়ের ছিল ২ছেলে,তীর্থবাসী রায় ও নদীয়াবাসী রায় । তীর্থবাসী রায়ের ছিল ১ ছেলে মহিমচন্দ্র রায় । তারা মারা যাওয়ার পর মহিমচন্দ্র রায়ের ছেলে চিত্তরঞ্জন রায় জমিদার বাড়ির ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে পারেনি । জমিদার ভবনের দরজা,জানালা ভেঙ্গে গেছে ,ভবনের বিভিন্ন স্থানে আগাছা হয়ে সৌন্দর্য় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ।বর্তমানে সংস্কারের অভাবে বাড়িটির প্লাষ্টার ধ্বসে যাচ্ছে।পুজা মন্ডবের ছাদ ভেঙ্গে গেছে দেয়ালগুলো দাঁড়িয়ে আছে কালের স্বাক্ষী হিসেবে । যারা উত্তরসূরী হিসেবে বেঁচে আছেন তাদের অনেকেই এখানে থাকেনা । বাঁচার তাগিদে উপার্জন করার উদ্দেশ্যে কেউ চলে গেছেন শহরে কেউ চলে গেছে ভারতে। রোজা,কোরবানী ইদ অথবা হিন্দুদের বাৎসরিক ধর্মীয় অনুষ্ঠানে শহর থেকে লোকজন দেশের বাড়িতে আসলে এখনো পুরাতন জমিদার বাড়িটি দেখতে রুপসদী গ্রামে চলে যান,সেখাসে এখনো দক্ষিনা বাতসে শরীর জুড়ায় ।বয়স্ক লোকেদের চলে আসার সময় শুধু জমিদার বাড়িটির দিকে তাকিয়ে এটুকু বলে কি ছিল কি হলো । জমিদার বাড়ির কিছু অংশ বিক্রী করে দেয়া হয়েছে বলে আশে পাশের  লোকজন জানান ।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা