শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মা দিবস: অর্থনীতিতে মায়ের অবদান

news-image

ডেস্ক রির্পোট : মা কথাটি একটি কথা হলেও এর পেছনে লুকিয়ে আছে হাজারও কথা। মা হল মার্তৃ। পৃথিবীতে জন্মের উৎস মা।

জন্ম থেকে শৈশব, কৈশরে এমন কি বৃদ্ধ বয়সেও মায়ের অবদান অকল্পনীয়। কিন্তু এই একটি কথার মানুষটিকে কতটুকুবা মুল্য দেওয়া হয়? সমাজ রাষ্ট্রে মায়েরা নানা রকম বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। বৈষম্যের কারনে মায়েরা সমাজে সঠিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অর্থচ মায়েদের অধিকার আদায়ে সমাজ, রাষ্ট্র ও সভ্যতার উন্নয়নে মায়ের অবদান অনস্বীকার্য। কিন্তু মায়ের এই অবদান যথাযর্থ ভাবে মূল্যায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। শিশুর যত্ন, রোগীর সেবা, ঘরের যাবতীয় কাজ পালনসহ অনেক দায়িত্বশীল কাজের দায়িত্ব নিতে হয় তাদের। মায়েদের এসমস্ত কাজের অদৃশ্য শ্রম হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। তাতে এই অবদানকে মূল্যয়ণ করা হচ্ছে না।

মায়েদের এসব কাজের যদি আর্থিকভাবে মূল্যায়ণ করা হয় তাহলে সমাজ, রাষ্ট্রে, পরিবারসহ সব ক্ষেত্রে মায়ের মর্যদা সুপ্রতিষ্ঠা হবে। সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় ভাবে মায়েদের এসক কাজের মুজরি নির্ধারন করা হলে পুরুষেরা তাদের গুরুত্ব বুঝবে সেই সাথে মায়েদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে।

পাশাপাশি মায়েরা আরো আত্ম বিশ্বাস বৃদ্ধি লাভ করবে যা তাদের প্রতি বৈষম্য দূর করতে সক্ষম হবে। বর্তমানে অর্থনীতিতে মায়েদের অবদানের চিত্র তুলে ধরতে অনেক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। মায়েরা প্রতিদিন দীর্ঘ সময় কাজ করে, অধিককাংশ সময়ই তাদের দিনে ১৬-১৮ ঘন্টা কাজ করতে হয়। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর থেকে রাত পর্যন্ত কাজ করতে হয়। তাদের ছুটি খুব কম এবং অবসার নেই। যদি সময় পায় সে টুকু সময়ে বন্ধু বা পরিবারের সদস্যদের সাথে কাটায়। বাচ্চাদের যত্ন নেয়া বা কোন অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত কাজে ব্যায় করেন। মায়েদের ছুটি সম্পর্কে পাওয়া যায় ‘যখন অসুস্থ থাকে তখনও কাজ করতে হয়।’ মায়েরা কৃষি কাজসহ বহু কাজের সাথে সমাজে সম্পৃক্ত। যেমন ধানের মৌসুমে, সবজির মৌসুমে বাগান করা, ফসল কাটা ঘরে তোলা, বীজ সংরক্ষন করা, খাবার প্রস্তুত করা, গৃহপালিত পশু-পাখি পালন, হস্তশিল্প, গৃহকর্ম এক সাথে পালন করতে হয়। এত কাজ করেও মায়েরা তাদের মূল্যায়ণ পায় না। কিন্তু এক জন নারী যদি কোন বাসায় বুয়া হিসাবে এ সমস্ত কাজ করে তাহলে বিনিময়ে তাকে অর্থ দিয়ে নিয়োগ করা হয়। নারীর কাজের যদি মুল্য না থাকে তাহলে এক জন বুয়াকে কেন টাকার বিনিময়ে নিয়োগকরা হয়। পারিশ্রমহীন কাজের মূল্যায়ণ তিন ভাগে অনুসরণ করা হচ্ছে। গ্রাম ও শহরে নারীরা কী পরিমাণ কাজ করছে, কী কী কাজ করছে। তাদের এসব কাজের বাজারের সাথে সরকারী কাজের পার্থক্য করা হয়েছে।

প্রথমত দেখা গেছে এক জন নারী গৃহের কাজে যে পরিমাণ সময় দেন তা যদি একটি পোশাক কারখানায় দেয়া যায় তার বিনিময়ে সে পারিশ্রমিক পেত। একই ধরনের কাজ পুরুষ করে যে অর্থ পায় নারী সম পরিমাণ কাজে কম পারিশ্রমিক পেয়ে থাকেন। গৃহের কাজে নারীদের প্রতি ঘন্টায় ১০টাকা করে পারিশ্রমিক দেয়া হলে কি পরিমাণ টাকা উপার্জন করতে পারত। একই ভাবে শিশুদের যত্নে লেখাপড়া, রোগীর সেবার ক্ষেত্রে আলাদা ধরা হলে এবং সেলাই কাজে টাকার পরিমান বেশি ধরা হলে বোঝা যাবে মায়েরা পুরুষের কোন অংশে কম নয়। আবার চাকুরির ক্ষেত্রে পিছিয়ে নয়। সব শ্রেণির সম্মিলিত কাজের অর্থ একত্রে করা হলে তার পরিমাণ বছরে হবে ৬৯.৮ বিলিয়ন ডলার বলে প্রকাশ পেয়েছে এক সূত্রে। ২য় বাজার দরের সাথে নারীর কাজের তুলনা করে দেখা গেছে তারা প্রতিদিন ৪৫ ধরনের কাজে নিযুক্ত থাকে। রান্নার কাজে গৃহপরিচিকাকে ২ শত টাকা দিতে হয়। প্রতি কাজের হিসাবে ৪৫ রকম কাজে মাসে দাড়ায় ৯হাজার টাকার মতো। অন্যদিকে সরকারী বা বেসরকারী চাকুরিতে ১০ হাজারের কম নয়। আসল কথা হল একজন চাকুরি করে যে পরিমাণ অর্থ পেয়ে থাকে তার অধিক কাজ গৃহে করলেও মূল্যায়ণ নেই মায়েদের। যে হিসাব করা হয়েছে এক জন মা রান্না করা, থালাবাসন মাজা, বাচ্চাদের লালন পালন করা যত্ন নেয়া প্রভৃতি কাজের হিসাব সম্ভব নয়। একজন মায়ের গৃহের প্রতি দায়িত্ব ও ভালবাসার মুল্য অনেক, যা টাকার অঙ্কে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে মায়েদের পারিশ্রমিক বিহীন কাজের যদি আর্থিক মূল্য বিচার করা হয় তবে দেখা যাবে তা পুরুষের চেয়ে বেশি হবে। গৃহস্থালিতে মায়েদের কাজের অবদান নারী-পুরুষ কিংবা সমাজ ও রাষ্ট্র, কোন পর্যায়েই গুরুত্বপূর্ণ বলে ভাবা হয় না। বর্তমানে মায়েদের পারিশ্রমিক এই কাজের মূল্যায়ণ দেয়া হয় না সমাজে। মায়েদের গুরুত্বপূর্ণ এসব কাজ সমাজ ও রাষ্ট্রে তাদের পক্ষ থেকে ভর্তুকি হিসেবে বিবেচিত হয়। মায়েদের কাজের গুরুত্ব ও আর্থিক মূল্যায়ণ করা হলে তাদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিবর্তন অবশ্যই আসবে, যা এই মা দিবসে আমাদের সকলেরই কাম্য।