শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মা আমার মা

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : পৃথিবীতে অনেক ধরনের সম্পর্ক রয়েছে। তার মধ্যে মা ও সন্তানের সম্পর্কটা যদি সেরা ধরা হয় তাহলে ভুল হবে না মোটেও। একজন মা দশ মাস দশ দিন তার সন্তানকে গর্ভে ধারণ করেন। তীব্র যন্ত্রণা সহ্য করে পৃথিবীর আলো দেখান।  জন্মের পর যখন তার ওই সন্তানের মুখ দেখেন, নিমিষেই সব যন্ত্রণা দূর হয়ে যায় তার। মায়ের কোলই একটি শিশুর জন্য সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। তার আঁচলের প্রশান্তি যেন একটি শিশুকে এনে দেয় স্বর্গীয় সুখের অনুভূতি। আর দশজন মায়ের মতো আমাদের তারকারাও সেই ভালবাসার ঊর্ধ্বে নন। তারা যেমন মায়েদের মমতার আঁচলে জড়িয়ে ছিলেন, তাদের সন্তানকেও মমতার আঁচলে জড়িয়ে রাখেন পরম আদরে। মাকে ঘিরে তারকাদের নানা অনুভূতির কথা তুলে ধরা হলো আজ মা দিবসের বিশেষ আয়োজনে। এটি গ্রন্থনা করেছেন মারুফ কিবরিয়া 

রিয়াজ
পৃথিবীতে আমার সবচেয়ে প্রিয় মানুষটি মা। যার কারণে আমার আজকের অবস্থান। ছোটবেলা যেমন শাসন করেছেন, তেমনি মানুষের মতো মানুষ করার ক্ষেত্রেও তার অবদান অপরিমেয়। এখনও আমার মা কোন কারণে কষ্ট পেলে খুব খারাপ লাগে। মা এমন একজন মানুষ, যাকে ছাড়া নিজের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না। মা একবার অসুস্থতার জন্য প্রায় এক সপ্তাহ হাসপাতালে ছিলেন। এ কয়েক দিন আমার কীভাবে যে কেটেছে তা বলে বোঝাতে পারবো না। মায়ের অসুখ হলে আমিও অসুস্থ হয়ে যাই। ভীষণ টেনশনে থাকি। আমার জীবনে মায়ের চেয়ে কেউ আপন নেই।

জাহিদ হাসান
মায়ের জন্যই আমার পৃথিবীতে আসা। এবং আজকের এই অবস্থান। তার পরম মায়া মমতা আর ভালবাসা সবসময়ই ভরিয়ে রাখতো। আজ মা নেই কাছে। তবুও বলবো তার দোয়া আমার সঙ্গেই রয়েছে। 

রিচি সোলায়মান
সেই ছোট থেকে মায়ের কোলেই বেশি ঘুমিয়েছি। প্রায়ই রাতে মায়ের কোলে ঘুমানোর বায়না ধরতাম। এখনও ঘুমাতে গেলে শৈশবের সেই দিনগুলো খুব মনে পড়ে। মা হওয়ার পর আসলে মায়ের মমত্ববোধটা বেশি করে অনুভব করি। সারা দিন কাজ শেষে ঘরে ফিরলে সন্তানের মুখটা দেখে হৃদয় জুড়িয়ে যায়। ঠিক আমার মায়ের অনুভূতিও ছিল আমাকে নিয়ে এমনই। মাকেই আমি সবচেয়ে বেশি ভালবাসি।

আগুন
‘মধুর আমার মায়ের হাসি’ গানটি আমার খুব প্রিয়। মন খারাপ হলেই গানটি শুনি। কারণ, এ গানের সঙ্গে আমার মায়ের অনেক মিল আছে। আমার মা হাসিখুশি ছিলেন। আমরা সব ভাইবোন মিলে তাকে অনেক জ্বালাতাম। কিন্তু কখনও তার মুখে বিরক্তি বা ক্লান্তির ছাপ দেখিনি। মায়ের মৃত্যুর পর থেকে আজ পর্যন্ত প্রতিটি দিনই কেমন যেন শূন্য লাগে। অনেক মিস করি সব সময়। মায়ের সঙ্গে আমার পুরনো স্মৃতিগুলো মনে করতে অনেক ভাল লাগে। মা এমন একজন মানুষ যাকে ছাড়া নিজের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না। যাদের মা নেই তারাই জানেন মায়ের শূন্যতা কত বড়।

মৌটুসী বিশ্বাস
জন্ম থেকে একটি সন্তান মায়ের ওপর নির্ভর করেই পথ চলতে শেখে। অন্য সবার মতো আমার ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। জীবনের শুরু থেকে মায়ের অনুপ্রেরণার কথা বলে শেষ করা যাবে না। আমার মিডিয়ায় আসা এবং এখানে কাজ করা কোনটাই হতো না যদি না মা থাকতো। মায়ের অবদানেই আজ আমি এ অবস্থানে এসে পৌঁছেছি। এখন নিজে মা হওয়ার পরও তার ওপর নির্ভর না করে পারি না। যে কোন কাজে যেতে হলে  মায়ের কাছে নিশ্চিন্তে আমার মেয়েকে দিয়ে যাই। আসলে  মায়ের ভালবাসা আর সাপোর্টের কথা বলে শেষ করা যাবে না। এখন নিজে মা হয়ে মা হওয়ার অনুভূতি আর কষ্ট দুটি খুব ভালভাবে আনুভব করতে পারি। তবে মা হওয়ার অনুভূতি কখনও ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। 

চঞ্চল চৌধুরী
পৃথিবীতে মায়ের চেয়ে কেউ আপন নেই। ১০ মাস ১০ দিন সন্তানকে নিদারুণ কষ্টে গর্ভে ধারণ করেন মা। কিন্তু সন্তানের মুখ দেখার পরই সেই কষ্ট ভুলে যান তিনি। নিজের সারা জীবনটা বিলিয়ে দেন সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ করার পেছনে। আমাদের জীবনের সময় খুব কম। তাই এ সময়টাতে আমরা প্রত্যেকে যদি আমাদের মায়ের প্রতি যথাযথ দায়িত্ব পালন না করি তাহলে তার কষ্ট পাওয়াটাই স্বাভাবিক। আমি আমার মাকে অনেক ভালবাসি। আমার পৃথিবীজুড়ে শুধুই আমার মা। আমি যে বড় হয়েছি মা এটা স্বীকার করতে চান না। সব সময় আমাকে শিশুই ভাবেন। পৃথিবীর সব মায়ের জয় হোক।

বাঁধন 
মাকে নিয়ে নতুন করে বলার কিছু থাকে না। আমি যেমন পরিবার থেকে এসেছি সেখান থেকে আমার মা হয়তো অনেক কিছুতেই সরাসরি আমাকে সাপোর্ট করতে পারেননি। তবে আমাকে যে বিষয়গুলো শিক্ষা দিয়েছেন সেগুলোকে সঙ্গে নিয়েই আমি আমার চেষ্টায় নিজের অবস্থান তৈরি করতে পেরেছি। কোন ব্যাপারে মিথ্যা না বলা, খারাপ কিছু না করা সবকিছু মায়ের কাছ থেকেই পাওয়া। তবে নিজের মা হওয়ার ব্যাপারে আমার একটি অবজারভেশন আছে। সেটি হলো, যে কোন মেয়েকে মা হওয়ার আগে মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে হয়। যদি সে মানসিকভাবে প্রস্তুত না হয় তবে সে তার সন্তানকে বোঝা মনে করে। কারণ, সন্তান হওয়ার পর একটা মেয়ের জীবনে অনেক পরিবর্তন আসে। তখন আশপাশে যতই মানুষ থাকুক দায়িত্বটা সম্পূর্ণ  মায়ের থাকে। সেক্ষেত্রে মানসিকভাবে প্রস্তুত না হলে মাতৃত্বের স্বাদটা সে পায় না। আমি সেই জায়গায় পরোপুরি অনুভূতিটা গ্রহণ করতে পেরেছি। 

সোহানা সাবা
ছোটবেলার সাবা থেকে এখন পর্যন্ত সবকিছুর দাবিদার আমার মা। আসলে মায়ের হাত ধরেই আমার মিডিয়ায় আসা, এখন পর্যন্ত তার কারণেই আমি আজকের সাবা। তাই বিশেষ করে  মায়ের কথা বলার কিছু পাচ্ছি  না। আমি কখন কি করব সব সিদ্ধান্ত মায়ের কাছ থেকেই নেয়া। ছোটবেলা থেকে মা-ই আমাকে তৈরি করেছেন, স্বাধীনতা দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত অনেক ব্যাপারে তার ওপর নির্ভর করি। বিয়ের আগে যেমন আমাকে ছায়া দিয়ে রাখতেন এখন আমার নিজের সন্তান হওয়ার পরও তাই। কাজের সময় আমার ছেলে আমার মায়ের কাছেই থাকে। আমার সন্তানকেও আমি সেভাবেই মানুষ করতে চাই। 

ফারহানা মিলি 
মিডিয়ায় কাজ করছি মায়ের সাপোর্টে। এখন পর্যন্ত কোন কাজে গেলে মায়ের কাছ থেকে পুরো সাপোর্টটা পাই। এটা আমার জন্য অনেক বড় পাওয়া। নিজে মা হওয়ার পর মায়ের জায়গাটা এখন খুব ভালভাবে বুঝতে পারি। যেটা মা না হলে কখনও অনুভব করতে পারতাম না। মাকে নিয়ে কিছু বললে হয়তো কমই বলা হয়ে যায়। 

অপূর্ব
মাকে নিয়ে বলতে কথা বললে শেষ করা যাবে না কখনোই। মা আমার জীবনের সবচেয়ে বড় সম্পদ। তার সঙ্গে আমার নাড়ির সম্পর্ক। আমার পথচলা বেড়ে ওঠা সবই তো তার মাধ্যমে। তিনি না থাকলে আজ কি আমি আজকের অপূর্ব হতে পারতাম? 

বিপ্লব
আমি একটি বিষয় বিশ্বাস করি, মায়ের দোয়া ছাড়া জীবনে ভাল ও বড় কিছু করা সম্ভব নয়। যার ওপর মায়ের দোয়া আছে সে সর্বোচ্চ স্থান পর্যন্ত যেতে পারবে। মায়ের জন্যই আমি আজকের বিপ্লব হতে পেরেছি। আমি মনে করি মা আমাদের জন্য যা করেন তার সিকিভাগও আমরা করতে পারি না। বরং এখন তো মাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠানোর ঘটনা অহরহই ঘটছে। পৃথিবীতে সব মায়ের প্রতি ভালবাসা ও শ্রদ্ধা রেখেই আমরা গত বছর ‘বৃদ্ধাশ্রমকে না বলো’ শীর্ষক গানটি করেছিলাম। যে মা আমাদের সারা জীবন অক্লান্ত পরিশ্রম ও কষ্ট করে বড় করেন, তারাই বৃদ্ধ হলে আমরা বোঝা মনে করে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠাই। আমাদের এ বিষয়ে সচেতন ও সোচ্চার হতে হবে। 

ন্যানসি
মায়ের ভূমিকা বলে শেষ করা যাবে না। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরোটাই আমার মা। ছোটবেলা থেকে সবকিছু মা ঠিক করেছেন আমি কি করব কি করব না। তার ইচ্ছাতেই আমার মিডিয়ায় আসা। আমার মা হয়তো আমার মতো কাজ করতেন না, তাই তার সবটুকু সময় তিনি আমাদের দিতেন। আমি মা হওয়ার পর আমার সন্তানের জন্য হয়তো তেমনটা করতে পারি না। তাই বলে যে  আমি আমার সন্তানদের কম ভালবাসি সেটা না। তবে এটা সত্যি, মায়ের মতো করে আমি আমার সন্তানদের সময় দিতে পারি না। আমার সন্তানরাও ছোটবেলা থেকে এটি মানিয়ে নিয়েছে। 

জাকিয়া বারী মম
এ পৃথিবীর আলো দেখিয়েছেন যিনি তিনি আমার মা। কত কষ্ট সহ্য করে তিনি আমাকে জন্ম দিয়েছেন। সে জন্মদাত্রী মায়ের কথা বলে শেষ করা যাবে না কখনোই। সেই ছোটবেলা থেকে লালন পালন করে বড় করেছেন। একটা বিষয় আমাদের সবার মানতেই হবে। পৃথিবীতে যদি কোন নিঃস্বার্থ ভালবাসা থাকে তাহলে সেটা শুধুই মায়েরটা। মায়ের অকৃত্রিম ভালবাসার কাছে হেরে যায় পৃথিবীর অন্য সব ভালবাসা। 

সুজানা
আমরা পৃথিবীতে আসি মায়ের নাড়ি কাটার মধ্য দিয়ে। আমি মনে করি যার নাড়ি কেটে পৃথিবীতে আসি তাকে নিয়ে বিশেষ দিনে ভালবাসা বা স্মরণ করার কিছু নেই। যে মা অসহিষ্ণু কষ্ট সহ্য করে আমাদের জন্ম দেন তার প্রতি শ্রদ্ধা, ভালবাসা সারা জীবন থাকা দরকার। আর আমি জানি পৃথিবীর সব সন্তান তাই করে। আমিও সেটাই করি। 

বালাম
মা আমার সবচেয়ে বড় সম্পদ। তাকে ঘিরেই আমার সব স্বপ্ন। আমার আজকের বালাম হওয়ার পেছনে মায়ের ভূমিকার কথা বলে শেষ করা যাবে না। আর সেটা সম্ভবও না। মায়ের প্রতি ভালবাসা যেমন সব সময় ছিল, থাকবে চিরকাল।

এ জাতীয় আরও খবর