রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাধ্যতামূলক আইসিটি শিক্ষা, চরম দুর্গতিতে শিক্ষার্থীরা

news-image

আধুনিক প্রযুক্তিতে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য তথ্য ও প্রযুক্তি (আইসিটি) শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করা হলেও অবহেলার শিকার হচ্ছেন দেশের লাখ লাখ শিক্ষার্থী। দেশের প্রায় ৩০০টি সরকারি কলেজে তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগে কোন শিক্ষক নেই বলে জানিয়েছেন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তরা জানান, ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর জন্য তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয় বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এ ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। কিন্তু মাধ্যমিকে কম্পিউটার শিক্ষা ও উচ্চ মাধ্যমিকে তথ্য ও প্রযুক্তি শিক্ষা হ-য-ব-র-ল অবস্থাতে রেখেই শিক্ষাবোর্ড ষষ্ঠ-সপ্তম-অষ্টম-নবম-দশম-একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নামে একটি বিষয় চালু করেছে। একই ভাবে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডেও এই তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির কোন শিক্ষক নেই।

২০১২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ষষ্ঠ শ্রেণিতে, ২০১৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে সপ্তম শ্রেণিতে ও ২০১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে অষ্টম শ্রেণিতে, ২০১৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে নবম-দশম শ্রেণিতে ও ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে আইসিটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি) নামক একটি নতুন বিষয়কে বাধ্যতামূলকভাবে পাঠ্য করা হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ১০০ নম্বরের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঢাকা কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী নাহিদুজ্জামান নাহিদ বলেন, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ে আমাদের বাধ্যতামূলক পাশ করতে হবে। অথচ দুই বছরে কোন ক্লাশ হয়নি। এবিষয়ে ৭৫ নম্বর লিখিত পরীক্ষা হয়েছে গত ১৫ এপ্রিল। তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়টি অনকে কঠিন কিন্তু ক্লাশ না হওয়ার ফলে পরীক্ষা ভালো ভাবে দিতে পারিনি। এরপরে আরো ২৫ নম্বর ব্যবহারিক পরীক্ষা বাকি রয়েছে। এবিষয়ে কোন প্রস্তুতি নেয়া হয়নি। চলতি বছরে দেশের ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে ৮ লাখ ৮৬ হাজার ৯৩৩ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। এতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে তথ্য ও প্রযুক্তি শিক্ষা বাধ্যতামূলক পরীক্ষা দিতে হয়েছে।

এবিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কলেজ ও প্রশাসন বিভাগের সাবেক পরিচালক প্রফেসর মো. আতাউর রহমান বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে তথ্য ও প্রযুক্তির শিক্ষা দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এ জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করার জন্য একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীতে চালু করা হয়েছে তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়। কিন্তু সরকারি কলেজগুলোতে এখনো কোন শিক্ষক নিয়োগ করা হয়নি।

ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর তুহিন আফরোজা আলম বলেন, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের কোন নিয়োগ দেয়া হয়নি। তাই আইসিটি ট্রেনিং প্রাপ্ত শিক্ষকরা তথ্য ও প্রযুক্তির ক্লাশ নিচ্ছেন। শিক্ষক নিয়োগের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে একাধিকবার জানানো হয়েছে। এখনো তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ে কোন শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার কোন ব্যবস্থা নেইনি শিক্ষা অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়।

এবিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ফাহিমা খাতুন বলেন, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীনে বিসিএস পরীক্ষায় পাশ করার পরে সরকারি কলেজগুলোতে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু পিএসসির অধীনে ৩৪তম বিসিএস পর্যন্ত তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের শিক্ষক নিয়োগের জন্য কোন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। তাই সরকারি কলেজগুলোতে তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগে কোন শিক্ষক নিয়োগ করা সম্ভব হয়নি। এবিষয়ে পিএসসিকে অবহিত করা হয়েছে। পিএসসি ৩৫ তম বিসিএস এ তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগে ৫৯৮ জন শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। ৩৫তম বিসিএস এর পরীক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন হলেই কলেজগুলোতে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া সম্ভব হবে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার