মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রায়ের আগে ও পরে

news-image

বিনোদন প্রতিবেদক : পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে বলিউড তারকা সালমান খানের। গতকাল ভারতের মুম্বাইয়ের জেলা ও দায়রা জজ ডি ডব্লিউ দেশপান্ডে সালমানকে দোষী সাব্যস্ত করে এ রায় দেন। এরপর অবশ্য আদালতে জামিনের আবেদন করা হলে ৪৮ ঘণ্টার জামিন মঞ্জুর করা হয় সালমানের। ১৩ বছর আগে মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানোর সময় সালমান তা ফুটপাতে তুলে দিলে সেখানে ঘুমন্ত এক ব্যক্তি নিহত হন এবং আহত হন আরও চারজন। সেই ঘটনায় দায়ের করা মামলাতেই সালমানের এ সাজা। 


রায় কার্যকর হলে সালমানকে বন্দী থাকতে হবে থানে কিংবা তালোজা কেন্দ্রীয় কারাগারে। সালমান খানের আইনজীবী জানিয়েছেন, দ্রুত তাঁরা এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে মুম্বাইয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করছেন।

কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে সালমান খানকাঠগড়ার মুহূর্ত

রায় ঘোষণার সময় সালমানের সঙ্গে ছিলেন বাবা সেলিম খান, মা সালমা খান, ভাই আরবাজ ও সোহেল, বোন আলভিরা ও অর্পিতাসহ পরিবার এবং বন্ধুমহলের অনেকেই। অবশ্য রায় ঘোষণার পরপরই বোন অর্পিতা ও তাঁর স্বামী আয়ুশ শর্মা তাঁদের আইনজীবীকে নিয়ে বেরিয়ে পড়েন উচ্চ আদালতে আপিলবিষয়ক কাজ নিয়ে। অন্যদিকে বিচারকক্ষের ভেতর থেকে একজন বেরিয়ে জানান, পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে কাঠগড়াতেই বসে পড়েন সালমান। ভেঙে পড়েন কান্নায়। আর মা সালমা খান ছেলের এই বিপর্যস্ত অবস্থা দেখে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

রায় ঘোষণার আগে মা ও বাবার সঙ্গে সালমানগ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে তারকাদের ভিড়

বেশ কদিন ধরেই সালমানের মুম্বাইয়ের বাড়ি গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে তারকাদের আনাগোনা বেড়ে গিয়েছিল। সবাই এসেছিলেন সালমানকে দেখতে, তাঁকে সাহস দিতে, তাঁর পরিবারের পাশে দাঁড়াতে। মঙ্গলবার সালমানের বাড়িতে যান শাহরুখ খান। উৎকণ্ঠা ছিল তাঁর চোখে-মুখেও। বেশ লম্বা সময় তিনি সালমানের বাড়িতে কাটান। রায় ঘোষণার পরপরই সালমা খানের অসুস্থতার খবর শুনে সেখানে ছুটে যান সোনাক্ষী সিনহা, প্রীতি জিনতা ও সালমানের সাবেক প্রেমিকা ক্যাটরিনার মতো তারকারা। সালমানের জন্য সমবেদনা, উৎকণ্ঠা ও দুঃখ প্রকাশ করে সবাই টুইটও করেন। তবে সালমানের পরিবার থেকে গতকাল অনুরোধ করা হয়, জামিনের ৪৮ ঘণ্টায় যেন কেউ সালমানের বাড়িতে এসে ভিড় না করেন। এ সময়টা সালমান শুধুই তাঁর পরিবার ও আইনজীবীদের সঙ্গে কাটাতে চান।

সালমানের বাড়ির বাইরে শাহরুখভক্তদের উন্মাদনা

মঙ্গলবার থেকেই সালমানের গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টের সামনে ভক্তদের জটলা। সেখানে অতিরিক্ত প্রহরা বসানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, আগামীকাল জামিনের ৪৮ ঘণ্টা শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ ভিড় কমবে না। রায় ঘোষণার পরপরই অনেক ভক্ত সালমানের পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে ছুটে আসেন তাঁর বাড়িতে। ভিড় ছিল আদালতের বাইরেও। তা ছাড়া ভারতের বিভিন্ন প্রান্তেও সালমানের ভক্তরা প্রিয় অভিনেতার হাজতবাস নিয়ে আছেন উদ্বেগে। টুইটারে হ্যাশট্যাগ দিয়ে সালমানের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করছেন অনেকে। সালমানের বেনারসের একদল ভক্ত তাঁর জন্য বিশেষ প্রার্থনা করে। তা ছাড়া সালমানকে উৎসর্গ করে খোলা মুম্বাইয়ের ‘ভাইজান’ নামের একটি রেস্তোরাঁ ঘোষণা করেছে, যদি এ অভিনেতার সাজা না হয়, তাহলে তারা তাদের দোকানের খাবারের দাম অর্ধেক কমিয়ে দেবে। অন্যদিকে বিহারের অধিবাসী মাথায় জোড়া লাগা যমজ দুই বোন ফারাহ ও সাবা রায় ঘোষণার পর থেকে সব ধরনের খাওয়াদাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন। তাঁরা সালমানের অন্ধভক্ত। বেশ ক বছর আগে এই দুই বোনের ইচ্ছাপূরণের জন্য সালমান তাঁদের মুম্বাইতে ডেকে পাঠান। তখনই তাঁরা সালমানের হাতে রাখি পরিয়ে তাঁকে ভাই বলে সম্বোধন শুরু করেন। এর পর থেকে নিয়মিতই সালমান তাঁদের খোঁজখবর নিতেন। টাইমস অব ইন্ডিয়া, ডিএনএ ইন্ডিয়া ও বলিউড লাইফ অবলম্বনে