শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘প্রস্রাব ঠেকাতে আরবি ভাষা ব্যবহার ধৃষ্টতা’

news-image

অপরাধ ডেস্ক : প্রস্রাব ঠেকাতে আরবি ভাষা ব্যবহারের প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান ও শোলাকিয়ার ইমাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ।
গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বারিধারায় বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার বৈঠকে তিনি বলেন, ‘প্রস্রাব ঠেকাতে আরবি ভাষা ব্যবহারের কৌশল বড় ধরনের অজ্ঞতা। এতে করে মানুষ সচেতন হবে না, বরং কুরআনের ভাষা আরবির মর্যাদাহানি ঘটবে।’ প্রস্রাব ঠেকাতে আরবি ব্যবহারের কারণে আরবি ভাষার প্রতি মানুষের মনের ন্যূনতম সম্মানটুকুও হ্রাস পাবে বলে দাবি করেন জমিয়ত সভাপতি।
তিনি বলেন, ‘প্রস্রাব ঠেকাতে কুরআনের ভাষা ব্যবহার করার অধিকার কারো নেই। আরবি ভাষার মর্যাদা রক্ষায় ধর্ম মন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশনকে এই ভুল পদক্ষেপ থেকে সরে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।’
এখনো এদেশে আরবি ও  কুরআন-হাদিসে সুশিক্ষিত আলেম উলামা আছেন উল্লেখ করে শোলাকিয়ার ইমাম বলেন, ‘একটি ভুল সিদ্ধান্তে গোটা সমাজকে বিভ্রান্ত করতে পারে।’
প্রসঙ্গত, সম্প্রতি প্রকাশ্য স্থানে মূত্রত্যাগ ঠেকাতে রাজধানী ঢাকার দেয়ালে আরবি ভাষা ব্যবহারের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ধর্মমন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশন। এই উদ্যোগ সফল করার লক্ষ্যে ঢাকার বিভিন্ন দেয়ালে আরবি ভাষায় ‘যেখানে সেখানে প্রস্রাব না করার’ বার্তা লিখে দেয়া হচ্ছে।
এ বিষয়ে ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমানের বার্তা-সংবলিত একটি ভিডিও ইউটিব এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পাচ্ছে। সেখানে মন্ত্রী বলছেন, ‘ঢাকা শহরের মসজিদগুলোতে প্রস্রাবের যথেষ্ট জায়গা থাকলেও অনেকে বাইরে প্রস্রাব করছে। ‘এখানে প্রস্রাব করিবেন না’ লেখা দেয়ালেও লোকে প্রস্রাব করছে। তাই এই মুহূর্তে এমন সিদ্ধান্ত প্রয়োজন ছিল।