মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য হতে পারেন খালেদা জিয়া!

news-image

ডেস্ক রির্পোট : সরাসরি হিসাব করলে বিএ্রনপি'র চেয়ারপারসন এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এখন হত্যা নাশকতাসহ সাতটি মামলার আসামি। মঙ্গলবার পর্যন্ত তিনি সরাসরি পাঁচটি দুর্নীতির মামলার আসামি ছিলেন। কিন্তু বুধবার তিনি হত্যা ও নাশকতার মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি হলেন।

হরতাল-অবরোধ চলাকালে গত ২৩ জানুয়ারি রাতে যাত্রাবাড়ীতে গ্লোরী পরিবহনের একটি বাসে পেট্রোলবোমা হামলার ঘটনায় ৩০ জন দগ্ধ এবং একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় হত্যা ও নাশকতার দুই মামলায়ই আদালতে দেয়া চার্জশিটে খালেদা জিয়া আসামি। মোট আসামি ৩৮ জন।

এর বাইরে হরতাল-অবেরােধে সারাদেশে বোমা ও আগুনে ১৩৪ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় ঢাকাসহ সারাদেশ অন্তত: ছয়টি মামলা হয়েছে বিভিন্ন আদালতে। সব মামলায়ই খালেদা জিয়া হুকুমের আসামি। এর একটি মামলার বাদী এবি সিদ্দিক জানান,' মামলার তদন্ত দেয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট থানাকে। থানা তদন্ত প্রতিবেদন দিলেই মামলা চালু হয়ে যাবে। তিনি জানান, আসছে সপ্তাহেই গুলশান থানা পুলিশ হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেবে। এর আগে কয়েক দফা তারা নির্ধারিত দিনে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধ্রারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শ. রেজাউল করিম জানান, আদালতের মামলাগুলো তদন্তে প্রমাণিত হলে সেগুলোও হত্যা মামলাই হবে। আর আইনে হুকুমের আসামি আর সরাসরি আসামির মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। প্রমাণ হলে একই অপরাধে একই শাস্তি।

খালেদা জিযার বিরুদ্ধে জিয়া অর্ফানেজ এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের মামলায় স্বাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। আর এই স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলেই মামলা মামলা দু'টির রায় দেয়া হবে। খালেদা জিযা এই দু'টি মামলায় গরহাজির থাক অবস্থায়ই বিচার কাজ শুরু হয়। সর্বশেষ তিনি আদালতে হাজিরা দিয়েছেন।

এই মামলার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন আছে। তারপরও এবছরই এই মামলার বিচারকাজ শেষে রায় হতে পারে।আর রায়ে তিনি দোষী সাব্যস্ত হলে আগামী নির্বাচনে তাঁর প্রার্থীতা ঝুঁকির মুখে পড়বে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বাকি তিনটি দুর্নীতির মামলাও সচল হচ্ছে।

বুধবার নাশকতা ও হত্যা মামলায় যে চার্জশিট দেযা হয়েছে তারো বিচার শুরু হবে শিগগিরই। আদালতে চার্জশিট গৃহীত হলেই চার্জ গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরু হবে। সাধারণ গতিতেও হত্যা এবং নাশকতার মামলার বিচার শেষ হতে তিন বছরের বেশি সময় লাগেনা।

সাধারণ নিয়মে বাংলাদেশে পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন হবে ২০১৯ সালে। আর সেই র্নির্বাচনের বাকি এখনো প্রায় চার বছর। আর এই সময়ে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একাধিক মামলার রায় হয়ে যাওয়ার কথা। আর তিনি যদি মামলায় রায়ে দোষী সাব্যস্ত হন, তাহলে সেই নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযাগ্য হতে পারেন তিনি।

আর খালেদা জিয়ার বড় ছেলে লন্ডনে অবস্থানরত তারেক রহমানও হত্যা ও দুর্নীতিসহ ২২ মামলার আসামি। এরইমধ্যে ইন্টারপোল তাঁর বিরুদ্ধে রেড ওয়ারেন্ট জারি করেছ। আর খালেদা জিয়ারমত তারেক রহমানও একইভাবে আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য হতে পারেন। আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য হতে পারেন খালেদা জিয়া!

এ জাতীয় আরও খবর