বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণ ও পরে হত্যা মামলায় মৃত্যুদ-ের সাথে যাবজ্জীবন থাকা ইতিবাচক

news-image

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণ করে হত্যা মামলায় একমাত্র সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধানকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ কর্তৃক অসাংবিধানিক ঘোষণাকে ইতিবাচক বলে মনে করছে মানবাধিকার কর্মী ও নারী নেত্রীরা। আপিল বিভাগের এই রায়ের ফলে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ‘ধর্ষণ, ধর্ষণ জনিত কারণে মৃত্যু ইত্যাদির শাস্তির বিধান রাখা ৯ অনুচ্ছেদের ২, ৩ এবং ৪ ধারায় থাকা মৃত্যুদ- ছাড়াও যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ-, অর্থদণ্ডের বিধান বলবৎ থাকছে।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের বেঞ্চ ১৯৯৫ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন (বিশেষ বিধান) আইনের ৬ এর ২, ৩, ৪ ধারাকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করেন। ১৯৯৫ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ধর্ষণের পর হত্যার মামলায় একমাত্র শাস্তি ছিল মৃত্যূদ-। এই রায়ের ফলে একমাত্র মৃত্যুদণ্ডের বিধান আর থাকছে না। তার সাথে এখন থেকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধানও থাকবে।

১৯৯৫ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এখনো কারো ফাঁসি কার্যকর করা হয়নি। তবে বেশ কয়েকটি মামলার রায় দেয়া হয়েছে সেগুলো এখন উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সালমা আলী এসম্পর্কে বলেন, এই রায়কে অবশ্যই পজিটিভ ভাবেই দেখছি। যে যতটুকু অপরাধ করেছে তার শাস্তি ততটুকুই হওয়া দরকার। তবে মামলার পূর্ণ বিবরণ পাওয়ার পরেই বিস্তারিত মন্তব্য করা যাবে।

২০০৫ সালে ধর্ষণের অভিযোগে আব্দুস শুক্কুর নামে ফাঁসির দ-প্রাপ্ত একজন আসামি ও আইনী সহায়তাদানকারী সংস্থা বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড সার্ভিসের আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে আপিল বিভাগ এই রায় দেন। বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড সার্ভিসের আইনজীবী আকমল হোসেন আপিল করার বিষয়ে বিবিসি বাংলাকে বলেন, শুক্কুর আলী ১৪ বছরের একজন মেয়েকে ধর্ষণ করে হত্যা করে। এরপর মানিকগঞ্জ ট্রাইবুনালে তার মৃত্যূদ- দেয়া হয়। এরপর সে হাইকোর্টে আপিল করলে ২০০৪ সালে হাইকোর্ট তার মৃত্যূদ- বহাল রাখে। এরপর ২০০৫ সালে আপিল বিভাগে গেলে আপিল বিভাগে তা ডিসমিস করে দেয়।

পরবর্তীতে শুক্কুর আলী ও বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড সার্ভিস যে আইনের বিধান অনুযায়ী তার বিচার হয়েছিল সে আইনের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ করে একটি রিট পিটিশন দায়ের করে। তাতে হাইকোর্ট ডিভিশন ঐ আইনের বিধানটিকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করে। তবে শুক্কুরের বিরুদ্ধে দেয়া রায় বা আটকাদেশকে অবৈধ ঘোষণা করে না। এরপর তা আপিল বিভাগে আসে। তিনি বলেন, এই রায়ের ফলে শুক্কুর আলীর ফাঁসির রায়ের বিষয়ে কি হবে এবং অন্যান্য বিচারাধীন মামলা কিভাবে চলবে তা রায়ের পূর্ণ কপি পাওয়ার পরেই বলা যাবে।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা