মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্যামসাং কি আর ফোন তৈরি করবে না?

news-image

প্রযুক্তি ডেস্ক : মোবাইল ফোনের চেয়ে ফোনের যন্ত্রপাতি তৈরির ব্যবসাতেই বেশি লাভ হচ্ছে স্যামসাংয়ের। তাই এই ব্যবসাকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি পাশাপাশি এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগও করছে বেশি। এদিকে, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের জন্যও প্রাণপণ খাটছেন স্যামসাংয়ের কর্মকর্তারা। এখন প্রশ্ন উঠছে অ্যাপলের পণ্যের জন্য চিপ তৈরিতে মনোযোগ দিলে স্যামসাং কি শেষতক স্মার্টফোনের ব্যবসাই ছেড়ে দেবে? এ প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে—ঠিক এখনই স্মার্টফোন ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছে না স্যামসাং, বরং স্মার্টফোন বিক্রি চালিয়েই যাবে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠানটি। এর পক্ষের একটি যুক্তি তো তাদের সামনেই রয়েছে। গত ১০ এপ্রিল বাজারে আসা গ্যালাক্সি সিরিজের নতুন স্মার্টফোন এস ৬ ও এস ৬ এজ এর মধ্যেই বিশ্বে ইতিবাচক সাড়া পেয়েছে।

স্মার্টফোন বাজারে শীর্ষে থাকলে সম্প্রতি মোবাইল ফোন বিভাগটিতে রদবদল ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য যন্ত্রাংশ তৈরির উদ্যোগ দেখে স্যামসাংয়ের মোবাইল ফোন বিভাগটির ভবিতব্য কী হতে পারে তা নিয়ে বিশ্লেষণ করতে বসেছেন বাজার বিশ্লেষকেরা।

সম্প্রতি স্যামসাং সূত্রের বরাতে এক খবরে রয়টার্স জানিয়েছে, দক্ষিণ কোরিয়ার ইলেকট্রনিক পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের প্রায় ২০০ কর্মীর একটি দল প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপলের জন্য খাটছে!

ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে স্যামসাং ডিসপ্লে কোম্পানির একদল কর্মী আইপ্যাড ও ম্যাকবুকের জন্য স্ক্রিন তৈরিতে কাজ করছেন। ২০০ জন কর্মীর এই দলটি ১ এপ্রিল গঠন করেছে স্যামসাং, যারা পণ্য বিপণন নিয়েও কাজ করবে। বর্তমানে স্যামসাং যন্ত্রাংশের সবচেয়ে গ্রাহক হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছে অ্যাপল।

স্মার্টফোন নির্মাতা নাকি চিপনির্মাতা?

স্মার্টফোন নির্মাতা পরিচয় দেওয়ার পাশাপাশি চিপনির্মাতা হিসেবে পরিচয় পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছে স্যামসাং। ২০১৪ সালের জুন মাসে স্যামসাংয়ের মুনাফার ৬০ শতাংশ এসেছিল মোবাইল ফোন বিভাগ থেকে। গত বছরের শেষ নাগাদ তা ৩৭ শতাংশে এসে ঠেকে। এদিকে স্যামসাংয়ের সেমিকন্ডাক্টর ব্যবসা থেকে মুনাফার পরিমাণ বেড়ে যায় অনেক বেশি। তাই চিপের দিকেই বেশি মনোযোগ স্যামসাংয়ের।

অবশ্য, একেবারেই ফোন তৈরি করা না ছাড়লেও অধিক মডেলের স্মার্টফোন আর বাজারে আনবে না বলে আগেই ঘোষণা দিয়েছিল স্যামসাং কর্তৃপক্ষ।

এক খবরে ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, অ্যাপলের জন্য চিপ ও ডিসপ্লে তৈরিতে নতুন করে প্ল্যান্ট তৈরি করবে স্যামসাং এবং এ ক্ষেত্রে এক হাজার ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে তারা।

গত বছরে স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন ব্যবসা থেকে লাভ কমলেও এ বছর দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। গত বছরের শেষ প্রান্তিকে স্মার্টফোনের বাজার দখলের হিসেবে স্যামসাংকে প্রায় ছুঁয়েই ফেলেছিল অ্যাপল। কিন্তু এ বছরের প্রথম প্রান্তিকের হিসেবে আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছে স্যামসাং। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইডিসি এ তথ্য জানিয়েছে। আইডিসির তথ্য অনুযায়ী, উন্নয়নশীল দেশগুলোর বাজারে স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন বিক্রি বেশি হওয়ায় অ্যাপলকে টপকে গেছে স্যামসাং।

আইডিসির গবেষকেদের বরাতে এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বছরের প্রথম তিন মাসে ৮ কোটি ২৪ লাখ ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি করেছে স্যামসাং এবং বাজারের সাড়ে ২৪ শতাংশ দখল করেছে।

গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় এ বছরে যদিও স্যামসাং সাত শতাংশ কম স্মার্টফোন বিক্রি করেছে তারপরও অ্যাপলকে টপকে গেছে। এর কারণ হচ্ছে, ২০১৪ সালের শেষ প্রান্তিকের তুলনায় এ বছরের প্রথম প্রান্তিকে আইফোন বিক্রিও কিছুটা কমে গেছে। এ বছরের প্রথম প্রান্তিকে ৬ কোটি ১২ লাখ ইউনিট আইফোন বিক্রি হয়েছে। বর্তমানে স্মার্টফোন বাজারের ১৮ দশমিক ২ শতাংশ অ্যাপলের দখলে।

বাজার গবেষকেরা জানিয়েছেন, স্মার্টফোন বিক্রির মৌসুম ও অন্যান্য বেশ কয়েকটি বিষয় স্যামসাংয়ের ফোন বিক্রিতে প্রভাব ফেলেছে। সম্প্রতি গ্যালাক্সি সিরিজে এস ৬ ও এস ৬ এজ নামে নতুন দুটি স্মার্টফোন উন্মুক্ত করেছে স্যামসাং।

গত বছরের শেষ প্রান্তিক অর্থাৎ অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর এই তিন মাসে স্মার্টফোনের বাজারে অ্যাপল ও স্যামসাং বাজার দখলের দিক থেকে ও স্মার্টফোন বিক্রির দিক থেকে সমান অবস্থানে চলে এসেছিল। একাধিক জরিপের ফল অনুযায়ী, ওই সময় অ্যাপল ও স্যামসাং দুটি প্রতিষ্ঠানেরই ২০ শতাংশ বাজার দখলে ছিল।

আইডিসির বিশ্লেষক অ্যান্থনি স্কারসেলা জানিয়েছেন, ক্রমাগত আইফোন ৬ ও ৬ প্লাসের চাহিদা বাড়লেও ২০১৪ সালের শেষ প্রান্তিকে স্যামসাংকে অ্যাপল যে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিল এ বছরের প্রথম প্রান্তিকে এসে স্যামসাং তাতে অনেকখানি এগিয়ে গেছে। স্যামসাংয়ের মিড রেঞ্জ বা মাঝারি দামের ও সাশ্রয়ী স্মার্টফোনগুলো স্যামসাংকে এগিয়ে রেখেছে।