বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আতঙ্ক কাটছে না বিএনপি নেতাদের

news-image

বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতারা এখনও আতঙ্ক কাটিয়ে উঠতে পারছেন না। বিএনপি এখন কোন কর্মসূচি না দিলেও এবং সিটি নির্বাচনের পর পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসলেও গ্রেপ্তার, গুম, অপহরণ আতঙ্কে পালিয়ে থাকা ও আত্নগোপনে থাকা নেতারা এখনও ঘরে ফিরেননি। আত্নগোপনে থেকে তার পরিবার পরিজনদের সঙ্গেও অনেকেই যোগাযোগ রাখছেন না। যে সব নেতারা গ্রেপ্তার হতে পারেন বলে মনে করছেন ওই সব নেতারা পরিবার পরিজনের সঙ্গেও যোগাযোগ অনেকটা এড়িয়ে চলছেন। তাদের ধারণা তাদের নিজস্ব নম্বর ছাড়াও পরিবারের সকল সদস্যদের নম্বর মনিটরিং করা হচ্ছে। এমনকি ড্রাইভার ও বাড়ির কেয়াটেকারেরও মোবাইল নম্বরও ট্র্যাক করা হচ্ছে বলে বিএনপির অভিযোগ। আবার কোন কোন বিশেষ নেতা মোবাইল ফোন ও পরিবারের মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করা ছাড়াও তার ভয়েজের টোন দিয়ে রাখা হয়েছে। ওই টোন দিয়েই তিনি যে কোন মোবাইলেই কথা বললেই সেটা মনিটিরিংয়োর মাধ্যমে বের করা সম্ভব হবে। বিএনপির কয়েকজন নেতার ভয়েজ সফটওয়ারে দিয়ে মনিটরিং করা হচ্ছে বলে জানতে পেরেছেন তারা। আর এই কারণেই সম্প্রতি একাধিক টেলিফোনের কথপোকথনের বিষয়টি ধরা পড়ে। এর আগে বছর তারেক রহমান ও শমসের মুবীন চৌধুরীরও টেলিফোন টেপ প্রকাশিত হয়। এই সব টেপ প্রকাশ হওয়ার পর তারা কথা বলতে চাইছেন না। এছাড়ও বিএনপির অনেক নেতার উপর নজর রাখা হয়েছে বলে বিএনপির দাবি।

বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা বলেন, আমাদের সব নেতাদের মনিটরিং করছে না এবং ট্রাকিং করছে না এটা ঠিক। কিন্তু যারাই একটু সক্রিয় তাদের সব মোবাইল ফোন ট্রাক করা হচ্ছে। কেবল তার নয় পরিবার পরিজনেরও মোবাইল ফোন টেপ করা হয়। এছাড়াও যেসব নেতারা আন্দোলনেও সিটি নির্বাচনে সক্রিয় ছিলেন তাদের সবাইকে নজরদারীতে রাখা হয়েছে। এটা আমরা জানি এই কারণে এখন আর আমরা টেলিফোনে তেমন কোন কথা বলি না। অনেক নেতাই নিজস্ব নামে ইমেইল আইডিও ব্যবহার করেন না। বেশিরভাগ অন্য কারো আইডিতে তাদের কাছে কেউ চিঠি পত্র পাঠালে সেটা গ্রহণ করেন ও উত্তর দেন। মোবাইল ফোনেও নিজের ফোনের বাইরে অন্য ফোনে কথা বলেন। এত কিছুটা পরও কথপোকথনের টেপ ফাঁস হয়ে যাচ্ছে। এর কারণ আমরা জেনেছি যে নেতাদের ভয়েস দিয়ে এগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে। আর নেতারা এই ভয়ে কথা বলতে সাহস করেন না। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সাদেক হোসেন খোকার কথপোকথনেরও টেপ ফাঁস হয়।

এই ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপারসনের ঘনিষ্ট একজন নেতা বলেন, আমার নিজস্ব এখন আর কোন ইমেইল ব্যবহার করা হয় না। দেখা যাবে ওই ইমেইলেও নজরদারী করা হবে। কে কোথায় কার কাছে কি মেইল পাঠাচ্ছে সেটাও বের করার চেষ্টা হয় এই জন্য আমরা প্রয়োজন হলে আমাদেরই নিজস্ব কারো মেইলে যোগাযোগ করি। আর যেই সব কথা একেবারেই সাধারণ কেবল সেই সব কথাগুলো নিজেরা বলি। আর এই বাইরে রাজনৈতিক যোগাযোগের জন্য আমরা অন্য ফোন ব্যবহার করি।

বিএনপি চেয়ারপারসনও তার মোবাইল ফোন টেপ হবে এই আশঙ্কায় নিজে কোন মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন না। তার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান বলেন, ম্যাডাম কোন মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন না। তার যখন কোন নেতার সঙ্গে কিংবা বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে কিংবা রাজনৈতিক কারণে অন্য কারো সঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন হয় তখন তিনি অন্যদের ফোন দিয়েই কথা বলেন। আর তার ফোন ব্যবহার করার প্রয়োজনও হয় না। ম্যাডাম কার সঙ্গে কথা বলতে চান সেটা তিনি বললে ফোনে তাকে মিলিয়ে দেওয়া হয় ম্যাডাম তাদের সঙ্গে কথা বলেন। আর এই কারণেই ম্যাডামের কথপোকথন কোন মেবাইলে কিংবা কোন ফোনে কেমন করে হচ্ছে এটা দু একজন ছাড়াও অন্য কেউ জানেন না। তিনি বলেন, এটা শুধু তার বেলায় নয় অন্য প্রথম সারির সকল নেতার বেলায় হচ্ছে।

বিএনপির সূত্র জানায়, আন্দোলন ঠেকানোর জন্য সরকার সব আগে ভাগে জানার জন্য এই ব্যবস্থা নিয়েছে। এই কারণ নেতা কর্মীরা ভিন্ন ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে অন্য ফোন দিয়ে কথা বললেও তারা ভয়ে আছেন কখন কোন কথা বলেন। আর সেটা দিয়েই তাকে গ্রেপ্তার করে ফেলেন। নজরদারী ও ফোন ট্র্যাকিং না করা হলে বিএনপি এর অঙ্গসংগঠনের নেতারা ও কর্মীদের মধ্যে যোগাযোগ আরো বাড়তো। সেই ক্ষেত্রে আন্দোলনে আরো নানা দিক সামনে আসতো। সাফল্য আসারও সম্ভব ছিল। কিন্তু নেতা কর্মীরা ভয়ে থাকার কারণে সঠিকভাবে মাঠে নেতাদের মধ্যে সমন্বয় করতে না পারায় ও দিক নির্দেশনা না দেওয়ার কারণেও অনেক কাজ হচ্ছে না।

এই ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপারসনের ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, কর্মীরা চাইলেও একে অপরের সঙ্গে দেখা করতে পারছেন না। আর দেখা করতে না পারার কারণে তাদের মধ্যে সব সময় সময়মতো দিক নির্দেশনা পৌঁছাতে পারছে না। অনেক সময় তাদের কাছে কোন নেতাই কোন নির্দেশনা পৌঁছাতে পারেন না। তখন তাদেরকে মিডিয়ার দিকে তাকিয়ে থাকতে হয়। গণ মাধ্যমে বিবৃতি দিয়ে পরে দলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। তারা সেখান থেকে জেনেই কর্মসূচি পালন করেন। বিশেষ করে গত তিন মাসে বিএনপির নেতাদের মধ্যে যোগাযোগের জন্য গণমাধ্যমে বিবৃতি সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করেছে কর্মসূচি দেওয়া ও তা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে। সরকার এটাকে চাপ মনে করছিল। এই জন্য এর বিরুদ্ধে প্রচারণাও চালায় সরকারি দল।

বিএনপির সূত্র জানায়, বিএনপির স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্য, বিএনপি চেয়ারপারসরে কয়েকজন উপদেষ্টা, দলের কয়েকজন ভাইস চেয়ারম্যান বেশ সক্রিয় রয়েছে। বাকিরা নিস্ক্রিয় রয়েছেন। আবার বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও মহিলা দলের কিছু নেতা নেত্রী তৎপর থাকলেও বেশিরভাগই তৎপর নন। প্রতিকূলতার মধ্যেও বিএনপির এই সব সংগঠনগুলো কিছুটা সক্রিয় থাকার চেষ্টা করছে কিন্তু যুবদল, শ্রমিক দল, কৃষক দল, ওলামা দল, মুক্তিযোদ্ধা দল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবী দল এর নেতারা তেমন কোন তৎপরতা চালাতে পারেননি। এখনও পারছেন না। বিশেষ করে ঢাকায় দলের নেতাদের যে রকম তৎপরতা দরকার ছিল সেটা নেই। ছাত্রদল, যুব দল, স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটিও আগেরটি রয়েছে। এনিয়ে কিছু জটিলতাও রয়েছে এই কারণে তারা তেমনভাবে কাজ করতে পারছেন না।

বিএনপি বার বার চেষ্টা করেছে কাউন্সিল করার জন্য কিন্তু সেটা আজও পর্যন্ত করতে পারেনি। বিএনপি নেতারাও এটা উপলব্ধি করছেন যে দলের জন্য কাউন্সিল করা জরুরি। ২০০৯ সালের পর আজ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কাউন্সিল করা হয়নি। আর কাউন্সিল না হওয়ার কারণে নেতাদের মধ্যে যে ধরনের উৎসাহ উদ্দীপনা থাকার কথা তা এখন নেই। এখন অনেকেই মধ্যে অনিশ্চয়তা রয়েছে এই কারণে তারা কেউ দায়িত্ব নিতে চাইছে না। কিন্তু কাউন্সিল করে যারা যোগ্য নয় তাদেরকে সরিয়ে নতুনদের মধ্যে যারা ভাল করছে তাদেরকে সামনে আনতে হবে। সেটা হচ্ছে না। ঘুরে ফিরে একই মুখ আসছে। কিন্তু গুনগত পরিবর্তন হচ্ছে না। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান মূল ক্ষমতাধর হওয়ায় কখন কি কর্মসূচি আসছে সেটাও নেতারা জানে না। দলের সিনিয়র কয়েকজন নেতা যারা ম্যাডামের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান তারাই সব জানেন কিন্তু অন্যরা কিছুই জানেন না। এনিয়েও কিছুটা সমস্যা রয়েছে।

বিএনপির সূত্র জানায়, বিএনপি তিনমাস আন্দোলন চলাকালে ও নির্বাচনের সময়ে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের বেশির ভাগ নেতা মাঠে ছিলেন না। তারা গ্রেপ্তার আতঙ্কে ছিলেন। পাশাপাশি হামলা মামলার ভয় ছাড়াও গুম আতঙ্ক ছিল। বিশেষ করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাউদ্দিন আহমেদকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর ও এখন তাকে ফেরত না পাওয়ায় ও তার কোন খবর না পাওয়ার কারণে নেতাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। আবার অনেক নেতাই পরিবার পরিজন ছেড়ে গ্রেপ্তার হতে চাইছেন না। এই জন্য মাঠের বাইরে ছিলেন। কেন্দ্রীয় নেতারা ছাড়াও ছাত্রদলের নেতা আনিসুর রহমান তালুকদার ও মেহেদী এখনও নিখোঁজ। তাদের কোন খোঁজ মিলছে না। এরপরও বিএনপি নেতারা মনে করেছিলেন এবার সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হলে তিনটাতেই তাদের জয় হবে। আর সেই আশায় অনেকেই বাইরে এসেছিলেন। প্রকাশ্যে মাঠে তেমন না নামলেও ও প্রচারণায় না নামলেও ভেতরে ভেতরে কাজ করছিলেন। কিন্তু এখন নির্বাচনে সরকারী দলের সমর্থিত প্রার্থীরা জয়ী হওয়ার পর এখন বিএনপির নেতা কর্মীরা আবার আতঙ্কে গা ঢাকা দিয়েছেন। বেশ কয়েকটি এলাকায় থেকে খবর আসছে যে সব এলাকায় আওয়ামী সমর্ধিত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন ওই সব কাউন্সিলরদের কর্মী সমর্থকরা এখনই নানা ভাবে কাউন্সিলরদের কথা বলে ভয় ভীত দেখানো শুর’ করেছে। এই অবস্থায় ঝামেলা হতে পারে মনে করে নির্বাচন শেষ হয়ে যাওয়ার বিএনপির কোন কর্মসূচি না থাকার পরও নেতা কর্মীরা মাঠে নেই।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, বিএনপি নতুন করে আন্দোলন করবে এই জন্য পরিকল্পনা চলছে। তবে সেটা চূড়ান্ত করার আগেই সরকার আন্দোলন ঠেকানোর জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে। এখন আন্দোলনে নামলেই আবার গ্রেপ্তার অভিযান চলবে। গুম ও অপহরণের ঘটনাও ঘটতে পারে। তাছাড়া যারা গ্রেপ্তার আতঙ্কে আছেন তাদের কথা আলাদা। কিন্তু যারা ওই ধরনের আতঙ্কে নেই কিন্তু মাঠেও নেই তাদের ব্যাপারে আরো প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হবে যাতে তারা মাঠে আসেন। সেই জন্য তারা পরিস্থিতি দেখছেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, আন্দোলন শুরু করার আগ থেকে শুরু করে এখনও পর্যন্ত নেতা কর্মীরা আতঙ্কে রয়েছে। তাদেরকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে হয়রানী করা হতে পারে এই কারণে তারা সাহস পাচ্ছে না মাঠে নামার। সেটা নামতে না পারার কারণেই অনেকেই ভয়ে আছেন। তাছাড়া সরকারের জিরো টলারেন্সের কারণে আতঙ্ক কাটানো সম্ভব হচ্ছে না। বার বার বলা হচ্ছে তাদেরকে মাঠে নামতে কিন্তু সেটা তারা পারছেন না। এই কারণে আন্দোলনে ও নির্বাচনে কিছুটা সমস্যাতো হয়ই। তারা মাঠে থাকলে সাফল্য আরো বেশি আসতো।

এদিকে নির্বাচনের পরও এখনও নেতারা মাঠে না নামায় চিন্তিত বিএনপির হাইকমান্ড। বিএনপি চেয়ারপারসন নির্বাচন পরবর্তী সময়ে আইজবীদের সঙ্গে বৈঠকে বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে নিজেদের অস্তিত্ব থাকবে না এটা বুঝতে পেরে সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কারচুপি করে ফলাফল দখলে নিয়েছে। ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে এতদিন যারা আমাদের সাজেশন দিয়েছিল এখন তারা বুঝতে পারছে আওয়ামী লীগের অধীনে ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে যাইনি কেন। তারা এটাও বুঝেছে যে আওয়ামী লীগের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। তিনি সেটা বললেও নতুন করে আন্দোলনের কোন আভাস দেননি।
বিএনপির কোন কোন নেতা মনে করছেন, বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সব নেতারা মাঠে না নামতে পারলে ও যোগাযোগ রক্ষা করতে না পারলে আগামী দিনেও বিএনপির পক্ষে কোন আন্দোলন সফল করা সম্ভব হবে না। আর এই জন্যই দলীয় সাংগঠনিক কাঠামোকে আরো সক্রিয় করতে হবে। সুদৃঢ় সাংগঠনিক ভিত্তি তৈরি হলে আন্দোলনে কাঙ্খিত সাফল্য আনা সম্ভব হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা