রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর পদে নতুন মুখের প্রাধান্য

71298_f4ডেস্ক রির্পোট : ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে বিএনপির সমর্থনে এসেছে বড় ধরনের পরিবর্তন। দুই পদেই নতুন মুখের ছড়াছড়ি। দুই-তৃতীয়াংশ ওয়ার্ডেই বিএনপি সমর্থিত ‘আদর্শ ঢাকা উন্নয়ন’-এর ব্যানারে লড়বেন এসব নতুন মুখ। এ সংখ্যা কাউন্সিলর পদে ৯৩ ওয়ার্ডের মধ্যে ৬২ এবং সংরক্ষিত আসনে ৩১টির মধ্যে ২০টি। বাদ পড়েছেন বিএনপি সমর্থিত প্রভাবশালী ও আলোচিত-সমালোচিত একাধিক সাবেক কাউন্সিলর। এছাড়া প্রতিকূল রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে আগেভাগে সমর্থনের বিষয়টি চূড়ান্ত করতে পারেনি বিএনপি। দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতৃত্বের পক্ষ থেকে নির্দেশনার পরও সরে দাঁড়াননি সমর্থন প্রত্যাশীদের অনেকেই। ফলে বেশির ভাগ ওয়ার্ডেই রয়ে গেছেন একাধিক প্রার্থী। তাদের নামে বরাদ্দ হয়েছে প্রতীক। শুক্রবার সন্ধ্যার পর বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশের পর শুরু হয়েছে নানামুখী দৌড়ঝাঁপ। দলের নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়, বিএনপি ও ‘আদর্শ ঢাকা আন্দোলন’-এর নেতাদের বাসা-বাড়ি ও কার্যালয়ে গিয়ে অভিযোগ এবং অসন্তোষ প্রকাশ করছেন তারা। কেউ কেউ নির্বাচনের মাঠ থেকে না সরার ঘোষণা দিয়ে উল্টো বাড়িয়ে দিয়েছেন জনসংযোগ। বিএনপির সমর্থন বঞ্চিত একাধিক প্রার্থী জানান, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে দল যাদের সমর্থন দিয়েছে তাদের অনেকেই নানাভাবে অভিযুক্ত ও অযোগ্য। ভোটের মাঠে তারা দাঁড়াতেই পারবেন না। কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতাদের ম্যানেজ করে তারা সমর্থন আদায় করে নিয়েছেন। তারা মনে করেন, ঢাকা মহানগরের অনেক ওয়ার্ডেই প্রার্থী বাছাই ও সমর্থনের ক্ষেত্রে দল সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তারা নির্বাচনের মাঠ থেকে সরবেন না। তবে বিএনপি ও ‘আদর্শ ঢাকা আন্দোলন’-এর একাধিক নেতা জানান, নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসবে ততই নিষ্ক্রিয় হবেন বিএনপির সমর্থন প্রত্যাশী অন্য প্রার্থীরা। রাজনীতির বৃহত্তর স্বার্থেই তারা দল সমর্থিত প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ভূমিকা পালন করবেন। নেতারা জানান, নতুন প্রজন্মের ভোটারদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা ও তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের মনোভাব বিবেচনা করে প্রার্থী সমর্থনে এ পরিবর্তন এনেছে বিএনপি। তবে নতুন প্রার্থীরা দলীয় সমর্থন পেলেও ভোটের মাঠে থাকছেন সাবেক কাউন্সিলরদের অনেকেই। এদিকে সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই বিএনপির পক্ষ থেকে একক প্রার্থী সমর্থন দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের নেতৃত্বে এবং মহানগর বিএনপি ও মহানগরের আসনগুলোতে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়া দলীয় প্রার্থীদের সমন্বয়ে গঠিত দুটি কমিটি কাজ করে। আন্দোলন সংগ্রামে ভূমিকা, তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে সম্পর্ক, ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা এবং সবমহলে গ্রহণযোগ্যতার ভিত্তিতে তারা দুটি তালিকা প্রণয়ন করেন। পরে দুই তালিকার সমন্বয়ে শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে সমর্থন চূড়ান্ত করা হয়। কিন্তু প্রতিকূল রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে প্রয়োজনীয় মতবিনিময় ও বৈঠক করতে পারেনি বিএনপি। দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের যেমন নিরাপদ অবস্থানে থেকে কাজ করতে হয়েছে তেমনি আত্মগোপনে থাকতে হয়েছে সমর্থন প্রত্যাশীদেরও। বিএনপির সমর্থন প্রত্যাশী বেশির ভাগ প্রার্থীকেই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও দাখিল করতে হয়েছে প্রতিনিধিদের মাধ্যমে। ফলে ভুল বোঝাবুঝি নিরসন ও বোঝাপড়ার মাধ্যমে সমর্থন চূড়ান্ত করতে পারেনি দলটি। এদিকে সাধারণ কাউন্সিলরদের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণে ১, ২, ৩, ৫, ৭, ৮, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ১৭, ১৮, ২৩, ২৮, ২৯, ৩০, ৩১, ৩২, ৩৪, ৩৫, ৩৭, ৩৮, ৪৩, ৪৫, ৪৬, ৪৭, ৫০, ৫১, ৫২, ৫৫, ৫৬, ৫৭ এবং ঢাকা উত্তরে ১, ২, ৪, ৫, ৬, ৭, ৯, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ১৫, ১৬, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৩, ২৪, ২৫, ২৮, ২৯, ৩০, ৩১, ৩৩, ৩৪, ৩৫ ও ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে সমর্থন পেয়েছেন নতুন মুখ। এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ঢাকা দক্ষিণে ১, ২, ৩, ৪, ৮, ৯, ১১, ১৪, ১৫, ১৮, ১৯ এবং ঢাকা উত্তরে ১, ২, ৪, ৫, ৬, ৭, ৯, ১১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডে সমর্থন পেয়েছে নতুন মুখ। এদিকে বিএনপি মূল দলের পাশাপাশি যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের অন্তত ১২ জন নেতা কাউন্সিলর পদে দলের সমর্থন পেয়েছেন। একাধিক শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী থাকার কারণে ৭টি ওয়ার্ডে এখনও সমর্থন চূড়ান্ত করতে পারেনি বিএনপি। ওদিকে কাউন্সিলর স্বামীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে বিগত নির্বাচন ও উপনির্বাচনে কাউন্সিলর হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন। এবার তাদের মধ্যে ফেরদৌসি আহম্মেদ মিষ্টি ও সাঈদা মোর্শেদ দুইজন পেয়েছেন সমর্থন। সমর্থন বঞ্চিত হয়েছেন আরজুদা বাসার লাকি, শর্মিলা ইমাম, রুনা আক্তার ও শ্যারিকা সরকার বিনা। অন্যদিকে নিখোঁজ কাউন্সিলর চৌধুরী আলম ও ওয়ান ইলেভেনের সময় কারাগারে মৃত্যুবরণ করা কাইয়ুম খানের পরিবার থেকে কেউ নির্বাচনে নেই। এছাড়া বিএনপি সমর্থিত সাবেক প্রভাবশালী ও আলোচিত কাউন্সিলরদের মধ্যে কেউ কেউ নির্বাচনে অংশ নেননি। আবার কেউ নির্বাচনে থাকলেও সমর্থন পাননি। ফলে এবারের সিটি নির্বাচনে কাজী আবুল বাশার, এমএ কাইয়ুম, মির্জা খোকন, সাজ্জাদ জহির, আবদুল লতিফ, আজিজ উল্লাহ, আহসান উল্লাহ হাসান, মুন্সী বজলুল বাসিত আঞ্জু, মনোয়ার হোসেন ডিপজল, এমএ মজিদ, আবদুল আলিম নকি, ইসমাইল হোসেন বেনু, হযরত আলী, আনোয়ার হোসেন বীরপ্রতীক, আবুল কালাম আজাদ, আক্কেল আলী, বাদল সরদারদের মতো প্রভাবশালী কাউন্সিলরদের দেখা যাবে না। এদিকে ঢাকা উত্তরের ৩২ নম্বর বজলুর রহমান বলেন, কিভাবে দলের সমর্থন দেয়া হলো বুঝতে পারছি না। আমার ওয়ার্ডে যাকে দেয়া হয়েছে তিনি আওয়ামী লীগের সাবেক এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানকের সঙ্গে বোঝাপড়া করে চলেন। ২০০৮-এর জাতীয় নির্বাচনে তিনি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের সঙ্গে প্রতিন্দ্বন্দ্বিতা করেছেন। তিনি বলেন, আমি ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি হিসেবে প্রতিটি ইউনিটের কর্মীরা আমার সঙ্গে আছেন। আর দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগর থেকে আমাকে কোন নির্দেশনা দেয়া হয়নি। আমি নির্বাচন করবই। বজলুর রহমান বলেন, কেবল আমার ওয়ার্ডেই নয়, ২৮ নম্বরে অধ্যাপক সাত্তার ভূঁইয়া ও ৩০ আবুল হাসেম হাসু নামে যে দুইজনকে সমর্থন দেয়া হয়েছে তারাও আওয়ামী লীগের পদপদবীধারী নেতা। সব দেখে মনে হচ্ছে, বিএনপির সঙ্গে বড় ধরনের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। সমর্থন বঞ্চিত সাবেক দুই কমিশনার ঢাকা উত্তর ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের শর্মিলা ইমাম ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের রুনা আক্তার অভিযোগ এবং সমর্থন আদায়ের উদ্দেশে গতকাল বিকালে নেতাদের সন্ধানে ছুটে গিয়েছিলেন নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে। সেখানে শর্মিলা ইমাম বলেন, আমার স্বামীর হত্যা মামলায় দুই নম্বর আসামি শেখ আমির হোসেন। আমার বিশ্বাস হচ্ছে না একজন হত্যা মামলার আসামিকে সমর্থন দিয়েছে বিএনপি। তিনি এ সময় গ্রেপ্তার অবস্থায় শেখ আমির হোসেনের একটি ছবি দেখিয়ে বলেন, আমাকে সমর্থন না দিলেও দুঃখ ছিল না। কিন্তু আমার স্বামীর খুনিকে আমি কোনভাবেই নির্বাচিত হতে দেবো না। অন্যদিকে রুনা আক্তার বলেন, বিএনপির রাজনীতি করতে গিয়েই আমার স্বামী জীবন দিয়েছে। কমিশনার হিসেবে আমার কোন দুর্নাম নেই, জনগণের জন্য জীবনবাজি রেখে কাজ করেছি। আমাকে বঞ্চিত করার বিষয়টি মেনে নিতে পারছি না। ঢাকা উত্তর সিটির ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে সাইফুল আলম কাজলকে সমর্থন দিয়েছে বিএনপি। কিন্তু ওয়ার্ডে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন আরও তিনজন। তারা হলেন- জাতীয়তাবাদী পেশাজীবী নেতা ইঞ্জিনিয়ার মিরাজউদ্দিন হায়দার, ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সভাপতি আবদুল মোতালেব ও জাসাস নেতা গীতিকার মুন্সী ওয়াদুদ। তারা কেউ নির্বাচনী মাঠ ছাড়বেন না বলে জানিয়েছেন। মিরাজউদ্দিন হায়দার অভিযোগ করেছেন, সাইফুল আলম কাজল বিএনপির পরিচিত মুখ নয়। দলের এক যুগ্ম মহাসচিবের মাধ্যমে তদবির করে সমর্থন আদায় করেছেন। এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটির ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে সমর্থন দেয়া হয়েছে যুবদল নেতা ইমরানুল ইসলামকে। ওই ওয়ার্ডেও জাসাস ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি হায়দার আলী বাবলা নামে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। মাঠ ছাড়ছেন না তিনি। জাসাস ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আলহাজ জাহাঙ্গীর আলম শিকদার অভিযোগ করেন, ইমরানুল ইসলাম কিছুদিন আগে যুবদলে যোগ দিয়েছেন। বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি মাঠে ছিলেন না। তাই অযোগ্য প্রার্থীকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। তাই ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা বাবলা মাঠ ছাড়বেন না। তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। একই রকম পরিস্থিতি ঢাকার দুই সিটির বেশির ভাগ ওয়ার্ডে।