সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পানিবাহিত রোগে বছরে মৃত্যু সাড়ে ৩ কোটি

world-water-dayআন্তর্জাতিক ডেস্ক : আধুনিক বিশ্বে যখন বিজ্ঞানের জয়জয়কার, সেখানে ১৫০ কোটিরও বেশি মানুষের জন্য নিরপদ পানির ব্যবস্থা নেই। আর প্রতিবছর শুধু পানিবাহিত রোগে মারা যাচ্ছে প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষ। বাংলাদেশে পানযোগ্য পানির প্রধান উৎস নদী, খাল, বিল, হাওর-বাওড়, পুকুর ও জলাশয়।
পৃথিবীর শতকরা ৭১ শতাংশ পানি হলেও এর বিরাট অংশই অ্যান্টার্কটিকা ও গ্রিনল্যান্ডে বরফ হিসেবে জমা আছে। হিসাব করলে দেখা যায়, পৃথিবীর মোট পানির মাত্র ০ দশমিক ০১ শতাংশ মানুষের ব্যবহার-উপযোগী। তাও এটা আবার পৃথিবীর অধিকাংশ মানুষের নাগালের বাইরে।
১৯৯২ সালে জাতিসংঘের পরিবেশ ও উন্নয়নবিষয়ক অধিবেশনে একটি বিশেষ দিনকে স্বাদু পানি দিবস হিসেবে পালন করার সুপারিশ করা হয়। পরে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে সর্বসম্মতিক্রমে ১৯৯৩ সালের ২২ মার্চকে প্রথম আন্তর্জাতিক পানি দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। সেই থেকে প্রতিবছর স্বাদু পানির ওপর একটি বিশেষ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ২২ মার্চ আন্তর্জাতিক পানি দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। রোববার (২২ মার্চ) সারা বিশ্বের সাথে বাংলাদেশেও পালিত হবে পানি দিবস।
ওয়াসার ২০০৩ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী ঢাকা শহরের ৮৪ ভাগ পানি সরবরাহ হয় ভূগর্ভস্থ পানি থেকে এবং বাকি ১৬ ভাগ আসে নদী থেকে। আতঙ্কের কথা হলো, ঢাকার অভ্যন্তর ও চারপাশ দিয়ে যে খাল, বিল ও নদী-নালা জালিকার মতো প্রবাহিত হতো, তা সমূলে গত ৪০ বছরে একের এক দখল, স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে ভরাট করে চিহ্নমাত্র মুছে ফেলা হচ্ছে। ফলে নানাভাবে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন অব্যহত আছে এবং তা ক্রমশই বাড়ছে।
পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ১৯৯৮ সালে ডিপ টিউবওয়েলের সংখ্যা ছিল ২৩৪টি, ২০০৭ সাল নাগাদ তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০০। স্বভাবতই ভূত্বকের নিচে একটি স্তর ফাঁকা হয়ে গেছে। ফলে ঢাকা শহরের ভূগর্ভস্থ পানির স্বাভাবিক অবস্থা থেকে ৬১.১৮ মিটার বা ১৮৬ ফুট নেমে গেছে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন সংস্থার সূত্র মতে, গত ১১ বছরেই নেমেছে ৩৫ মিটার এবং প্রতি বছরই তা বাড়ছে। গড়ে প্রায় ৩ মিটার বা ৯ ফুট করে নেমে যাচ্ছে।
এছাড়া ঢাকার সমস্ত মাটি কংক্রিটে ঢেকে যাওয়ায় এ আর পানি শোষণ করতে পারে না। তাই এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, ঢাকা শহর ভয়াবহ পানি সংকটে পড়বে। এমনিভাবে গ্রামাঞ্চলের দিকে তাকালেও আমরা ভিন্ন এক ভয়াবহ চিত্র দেখতে পাব। বিগত শতাব্দির মধ্যভাগ থেকে সারা পৃথিবীতেই বর্ধিত জনসংখ্যার খাদ্যচাহিদা মেটাতে উৎপাদন প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। একই ব্যাপার অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের মতো বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও। এই বর্ধিত চাষাবাদের জন্য পানির চাহিদাও বেড়েছে। অবাক করার মতো তথ্য হচ্ছে, বিশ্বের শতকরা ৭০ ভাগ পানি ব্যবহৃত হয় শুধুমাত্র সেচের জন্য। ভবিষ্যতে এই চাহিদা আরো বাড়বে। সেই সাথে কমবে বিশুদ্ধ ও স্বাদু পানির উৎস। ভবিষ্যত পৃথিবীবাসীর জন্য পানির সংকট মোকাবিলা করাটাই হয়ত হয়ে উঠবে আগামীর সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর বলছে, পানির উৎসস্থলের প্রতি যতœবান হওয়া এবং নিরাপদ পানির সংস্থানের বিষয়টি জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় খুব গুরুত্বপূর্ণ। দেশের উত্তরাঞ্চলসহ অনেক স্থানে এক কলস বিশুদ্ধ পানির জন্য রয়েছে হাহাকার। খোদ রাজধানীসহ বিভিন্ন সিটি করপোরেশন এলাকায়ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ। পানি সরবরাহ থাকলেও সেটা যে নিরাপদ- তার নিশ্চয়তা বিধান হয়নি।
পানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দেশের শত শত খাল শুকিয়ে চৌচির হয়ে গেছে। আগামীতে নিরাপদ পানির জন্য পাড়া-মহল্লা এমনকি রাষ্ট্রীয় পর্যায়েও যুদ্ধ বেঁধে যাওয়ার আশঙ্কা করেন তারা।
আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্রের (আইসিডিডিআরবি) বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, বিশুদ্ধ পানির অভাবে ডায়রিয়া, আমাশয়, জন্ডিস ও টাইফয়েড হয়।