রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিরাপত্তা পরিষদে ইসরাইলের প্রতি মার্কিন সমর্থন বন্ধ হয়ে যেতে পারে

1426865706.আন্তর্জাতিক ডেস্ক : জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ইহুদিবাদী ইসরাইলকে অব্যাহত সমর্থন দেয়া বন্ধ করতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এ কথা জানিয়েছেন হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জোশ আর্নেস্ট। তিনি বলেছেন, যুদ্ধবাজ বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু আবারো ইসরাইলের নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর নিরাপত্তা পরিষদে তেল আবিবের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন দেয়ার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করছে হোয়াইট হাউজ। কারণ এভাবে অকুণ্ঠ সমর্থন দেয়ার ফলে নেতানিয়াহু ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গঠনের পথে বাধা সৃষ্টির সুযোগ পাচ্ছেন। 
জোশ আর্নেস্ট আরও বলেন, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে নতুন করে ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের প্রস্তাব আনা হলে তাতে যুক্তরাষ্ট্র ভেটো নাও দিতে পারে। যদি যুক্তরাষ্ট্র এমনটি করে তাহলে তা হবে কয়েক দশকের মধ্যে মার্কিন নীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন। ইসরাইল সৃষ্টির পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্র তার পাশে থেকেছে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সব জায়গায় তেল আবিবের প্রতি শর্তহীন সমর্থন দিয়ে এসেছে। 
নেতানিয়াহুর সাম্প্রতিক তৎপরতা সম্পর্কে বলেছেন, তিনি কিছুদিন ধরে আরব-ইসরাইল নাগরিকদের মধ্যে মতপার্থক্য বাড়িয়ে তোলার জন্য যেসব বক্তব্য দিচ্ছেন তা নিয়ে মার্কিন প্রশাসনে গভীর উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। গত সোমবার নেতানিয়াহু বলেছেন, এবারের নির্বাচনে জিতলে তিনি স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র হতে দেবেন না। 
অপর খবরে বলা হয়, ইসরাইলের সাধারণ নির্বাচনে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিজয়কে হতাশাব্যঞ্জক হিসেবে দেখছেন বিশ্ব নেতারা। নেতানিয়াহুর অসহিষ্ণু মনোভাব মধ্যপ্রাচ্যের শান্তির জন্য অশনি সংকেত হতে পারে বলে মনে করছেন তারা। যদিও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ কয়েকটি দেশ এ ব্যাপারে শীতল অভ্যর্থনা প্রদর্শন করেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মঘেরিনি নেতানিয়াহুকে এক টেলিফোন কলে জানিয়েছেন, মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরু করতে হবে। আর তা হতে হবে দ্বিরাষ্ট্রিক। পরে এক বিবৃতিতে তিনি জানান, অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে দু’পক্ষের সাহসী নেতৃত্ব দরকার। 
ইসরাইলের নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিজয় ইরানের সঙ্গে একটি পরমাণু চুক্তিতে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করবে না। গত বুধবার মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর এ কথা জানায়। ইসরাইলি নেতা তেহরানের সঙ্গে যে কোনো ধরনের সমঝোতার বিরোধিতা করেন। তিনি ওয়াশিংটনে যান এবং মার্কিন পার্লামেন্টে ভাষণদানকালে আলোচনাধীন চুক্তিকে খারাপ চুক্তি বলে নিন্দা জানান। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র জেন সাকি বলেন, ইরানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে আমরা দীর্ঘদিন পরিচিত। আমরা মনে করি না যে, তার বিজয় ইরানের পরমাণু চুক্তির আলোচনার ক্ষেত্রে কোনো প্রভাব ফেলেছে বা ফেলবে। 
জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মার্টিন শাফার বলেছেন, আমরা নেতানিয়াহুর মন্তব্য গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি। আমরা আশা করি দ্বিরাষ্ট্রিক সমাধানের দিকেই বর্তমান নেতৃত্ব অগ্রসর হবে। 
কানাডাই একমাত্র দেশ যারা নেতানিয়াহুর বিজয়ে আনন্দ প্রকাশ করেছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন হারপার এক টুইটার বার্তায় নেতানিয়াহুকে অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, আমরা ইসরাইলের নির্বাচনী ফলাফলে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। তার সরকারের সঙ্গে আমরা কাজ চালিয়ে যাব। কানাডার চেয়ে ইসরাইলের মহৎ বন্ধু নেই।