শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পর্যালোচনায় বিএনপি সিদ্ধান্ত শিগগিরই

68361_f4ডেস্ক রির্পোট : সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে পর্যালোচনা চলছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলে। একদিকে আন্দোলন, অন্যদিকে গুরুত্বপূর্ণ তিন সিটি নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে চলমান আন্দোলন থেকে সরে এসে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশগ্রহণ কিংবা বর্জনের সম্ভাব্য লাভ-ক্ষতি নিয়েই এ পর্যালোচনা। সরকারের তরফে সিটি নির্বাচনের ঘোষণা দেয়ার পর বিএনপি ও জোটের কয়েকজন সিনিয়র নেতা, থিঙ্কট্যাঙ্ক, পেশাজীবীরা কৌশলে নানা মহলের মতামত নিয়েছেন। বিশেষ করে জোর দেয়া হয়েছিল বিএনপি ও জোটের তৃণমূল নেতৃত্বের। তবে মতামতে প্রাধান্য পেয়েছে নেতিবাচক মনোভাব। আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিগত স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও অভিজ্ঞতা এবং সার্বিক পরিস্থিতি মিলিয়ে তারা এ নির্বাচনকে দেখছেন সরকারের ফাঁদ হিসেবে। ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণার পর বিএনপি ও জোটের একাধিক নেতা এবং সূত্র এমন তথ্য জানিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, শিগগিরই বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের তরফে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ব্যাপারে তাদের অবস্থান জানানো হবে। গতরাতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সুপ্রিম কোর্ট বারের নবনির্বাচিত সভাপতি ও তার উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ডিসিসি ও সিসিসি নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে নীতি-নির্ধারকরা দলীয় ফোরামে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। দলীয় ফোরামে সিদ্ধান্ত হলে তা চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নেবে বিএনপি। এদিকে বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন একাধিক শীর্ষস্থানীয় নেতা জানান, আন্দোলন থেকে সরে গিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ সঠিক সিদ্ধান্ত হবে না। বিএনপি এখন জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করছে। এ আন্দোলনের সাফল্যের ওপর নির্ভর করছে সবকিছু। চলমান আন্দোলনের যৌক্তিক পরিণতির মাধ্যমে জাতীয় নির্বাচন হলে ক্ষমতার পটপরিবর্তনের সুযোগ রয়েছে। কিন্তু স্থানীয় সরকার নির্বাচনে শতভাগ বিজয়েও পরিস্থিতি উত্তরণের ন্যূনতম সম্ভাবনা নেই। তারা বলেন, বিএনপির নেতৃত্বাধীন চলমান আন্দোলন সরকারের নানামুখী প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও আড়াই মাস অতিক্রম করেছে। জনগণের সমর্থন আছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। এখন তিনটি স্থানীয় সরকার নির্বাচনের জন্য আন্দোলন থেকে সরে এলে প্রশ্নবিদ্ধ হবে জাতীয় নির্বাচনের দাবিটি। তারা মনে করে, সরকার বিরোধী চলমান আন্দোলনকে দমন করতে সারা দেশে শ’ শ’ নেতাকর্মীকে গুম, খুন করা হয়েছে। হাজার হাজার নেতাকর্মী কারাবন্দি। ঘরছাড়া লাখো নেতাকর্মী-সমর্থক। এই অবস্থায় নেতাকর্মীদের রক্তের ওপর পা রেখে সরকারের পাতানো ফাঁদে পা দেবে না বিএনপি। অঙ্গ ও সহযোগী দলের নেতারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দাবি করেছে বিরোধী জোটসহ নানা মহল। কিন্তু সরকার সেটাকে পাত্তা দেয়নি। এখন বিরোধী দল যখন আন্দোলনের চূড়ান্ত পরিণতির দিকে তখনই সিটি নির্বাচনের মাধ্যমে দৃষ্টি ফেরাতে চাইছে সরকার। এখানে বিএনপির অংশগ্রহণ হবে সরকারি কৌশলের বিজয়। নেতারা বলেন, নির্বাচনের পথে হাঁটলেও সরকার বিএনপিকে নির্বাচনে অংশ নেবার মতো পরিবেশ দেবে না। কেবল তৃণমূল বা অঙ্গসংগঠনের নেতারাই নয়, খোদ বিএনপি নীতি-নির্ধারক ফোরামের সদস্যরাও এ নির্বাচনকে ইতিবাচক বিবেচনা করছে না। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, দলের হাজার হাজার নেতাকর্মী জেলে। শীর্ষ থেকে তৃণমূল সবার বিরুদ্ধেই মামলা। শ’ শ‘ নেতাকর্মী গুম-খুনের শিকার হয়েছেন। চোখে দেখা না গেলেও সারা দেশ আজ বিএনপি নেতাকর্মীর রক্তের ওপর ভাসছে। এ অবস্থার মধ্যে বিএনপি নির্বাচনে যেতে পারে না। স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য বলেন, আমরা আন্দোলনে আছি, আমাদের নেতা-নেত্রীরা কারাবন্দি। এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। আমরা শিগগিরই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করবো। ওদিকে বিএনপি ও জোটের কয়েকটি সূত্র জানায়, নির্বাচনে অংশগ্রহণ আন্দোলনের একটি কৌশল হতে পারে। তারা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলনের কারণে নেতাকর্মীরা ঘরছাড়া। অনেকেই বাবা-মা, স্ত্রী-সন্তানের মুখ পর্যন্ত দেখার সুযোগ পাচ্ছেন না। সিনিয়র নেতাদের বড় অংশটিই আত্মগোপনে বা নিরাপদ অবস্থানে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তৃণমূল কর্মীরা গ্রেপ্তার ও হতাহত হচ্ছেন। এমন পরিস্থিতিতে বিএনপি নির্বাচনে গেলে পাল্টে যেতে পারে পরিবেশ। তারা আরও বলেছেন, নির্বাচন করতে চাইলে সরকারকে প্রকাশ্য রাজনীতি ও জনসংযোগের সুযোগ দিতে হবে। আর এ সুযোগে বিরোধী জোটের নেতাকর্মীরা আবার মানুষের সঙ্গে মিশতে এবং প্রকাশ্যে কাজ করতে পারবে। তারা মনে করেন, এমননিতেই রাজধানী ও চট্টগ্রাম মহানগরে আন্দোলন জোরদার করা যায়নি। ফলে ঢাকা ও চট্টগ্রামে সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। এছাড়া সরকারকে ফের বুঝিয়ে দেয়া যাবে তাদের জনসমর্থন শূন্যের কোটায়। আওয়ামী লীগকে ফাঁকা মাঠে গোল দেয়ার সুযোগ করে দেয়া ঠিক হবে না। ভিন্ন ফরমেটে আন্দোলন ধরে রেখে তিন সিটি নির্বাচনের ফল অনুকূলে আনতে পারলে সরকারের ওপর নতুন করে চাপ বাড়বে। তবে দলের আরেকটি অংশ ও তৃণমূল নেতৃত্ব এ ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করছেন। তাদের মতে, আগের পরিস্থিতি ও এখনকার পরিস্থিতি এক নয়। তখন জনসমর্থনের বিষয়টি সরকার ও আন্তর্জাতিক মহলের কাছে পরিষ্কার করার বিষয় ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা গেছে, সরকার বিষয়টিকে পাত্তাই দেয়নি। যেখানে ৮টি সিটি করপোরেশনের জনমতকে সরকার গুরুত্ব দেয়নি সেখানে তিনটি নির্বাচনে জিতলেও সরকার আমলে নেবে না। তারা বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রামে বিএনপি দলীয় মেয়র ছিল। কিন্তু সেটা না সরকারের ওপর চাপ তৈরি করতে পেরেছে না বিরোধী দলের সহায়ক হয়েছে। এছাড়া বর্তমান সরকার অবস্থা বুঝে নিজেদের অঙ্গীকার ভঙ্গ করে কৌশল পরিবর্তন করতে করতে দ্বিধা করে না। তারা জাতীয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে অনির্বাচিত সরকারের দোহাই দিলেও ঢাকা মহানগরে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিকে সরিয়ে প্রশাসক বসিয়েছে। বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতার কাছে প্রশ্ন ছিল- বিগত স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় নেতা, বিকল্প প্রার্থী এমনকি আওয়ামী লীগের গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছিল ২০ দল। এবার সে পথে হাঁটবে কিনা। জবাবে নেতারা বলেছেন, হায়ার করা নেতা কিংবা আওয়ামী লীগের গ্রহণযোগ্য প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে বিজয়ী করেছে বিএনপি। কিন্তু পরবর্তী অভিজ্ঞতা সুখকর হয়নি। সেখানে রাজনৈতিকভাবে মোটেই লাভবান হয়নি বিএনপি। এছাড়া গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রার্থীও নেই। তারা বলেন, এক বছর আগের পরিস্থিতিতে হলে সিদ্ধান্ত ইতিবাচকই হতো। বিএনপি চেয়ারপারসনের ঘনিষ্ঠ কয়েকটি সূত্র জানায়, সিটি নির্বাচনের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। আলোচনা করে শিগগিরই ২০ দল নিজেদের অবস্থান জানাবে। তবে তারা প্রশ্ন তোলে বলেন, নির্বাচনে অংশ নিয়ে কি লাভ? বর্তমান সরকার জনগণের ভোটের কোন মূল্য দিচ্ছে না। জাতীয় নির্বাচনে যেমন দেয়নি, স্থানীয় সরকার নির্বাচনেও। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যেসব সিটি করপোরেশনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করলেও বিগত দিনগুলোতে মেয়ররা তাদের প্রাপ্য মর্যাদা পাননি। বিমাতাসুলভ আচরণের শিকার হয়েছেন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অর্থ বরাদ্দ ও উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পাদনে। সবচেয়ে বিবেচনার বিষয় হচ্ছে, মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে তাদের একের পর এক কারাবন্দি ও বহিষ্কার করা হচ্ছে। তাহলে এতে ত্যাগ স্বীকার ও পরিশ্রম করে প্রার্থীরা কিসের আশায়, কোন ভরসায় নির্বাচনে যাবে? এখন তো অনেকে প্রার্থী হবারই সাহস দেখাচ্ছে না। এদিকে ২০ দলের মুখপাত্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে বলেছেন, বর্তমান সরকার গণতন্ত্র মানে না, গণরায়ের পরোয়া করে না। নির্বাচনের মাধ্যমে দেয়া জনগণের রায় অগ্রাহ্য করার জন্য সরকার গাজীপুর, সিলেট ও রাজশাহীসহ অসংখ্য সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র এবং উপজেলা চেয়ারম্যানদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে আটক করছে। রিমান্ডের নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন থেকে বাঁচার জন্য আত্মগোপনে থাকতে বাধ্য করে তাদের স্থলে দলীয় লোকদের বসানো শুরু করেছে।

এ জাতীয় আরও খবর