সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৬ জানুয়ারি থেকে যা করেছে আ.লীগ

aw2-400x251ডেস্ক রির্পোট : ৬ জানুয়ারি বিরতিহীন অবরোধ কর্মসূচির মাধ্যমে সরকারবিরোধী ‘নতুনপর্বের’ আন্দোলন শুরু করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। তাদের আন্দোলনের শুরুর দিকে দেশের বিভিন্নস্থানে বাড়তে থাকে নাশকতার ঘটনা। নৈরাজ্য-নাশকতায় তৈরি হয় জনভীতি। এই অবস্থায় জনভীতি দুর করতে বিরোধীজোটের আন্দোলন শুরু হওয়ার পরপরই সক্রিয় হয়ে ওঠে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও দলটির নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোট। আন্দোলন ঠেকাতে তারা ৬ জানুয়ারি থেকেই সরব হয়ে মাঠে নামে। একইসঙ্গে করণীয় নির্ধারণে দফায়-দফায় আনুষ্ঠানিক-অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করে ক্ষমতাসীন দল ও জোটের জ্যেষ্ঠ নেতারা।

জানা গেছে, ৬ জানুয়ারি বিরোধীজোটের সরকারবিরোধী আন্দোলন শুরুর পর মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) পর্যন্ত দ্ইুবার কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, একবার সংসদীয় কমিটির আনুষ্ঠানিক বৈঠক করেছে আওয়ামী লীগ। এছাড়া এই সময়ের মধ্যে বেশ কয়েকবার অনানুষ্ঠানিক বৈঠকও করে দলটির নেতারা। একইসঙ্গে ঢাকা মহানগর ও এর আশপাশের বিভিন্ন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, দলীয় সংসদ সদস্য এবং অঙ্গ-সহযোগি ও ভ্রাতৃস্প্রতীম সংগঠনকে নিয়েও অনেকগুলো বৈঠক করেছে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা।

তবে ৫ জানুয়ারির পর থেকে বিরোধীজোটের কর্মসূচির বিরুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সোচ্চার ছিল ১৪ দলীয় জোট। বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে ছিল ক্ষমতাসীন এ জোটটি। কর্মসূচির মধ্যে ছিল বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষকে নিয়ে বেশকিছু বৈঠক এবং ঢাকাসহ সারাদেশে জনসভা, পদযাত্রা ও মানবন্ধন। হরতাল-অবরোধ নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রথম দিকে প্রায় প্রতিদিনই নিজেদের অবস্থান ও প্রতিক্রিয়া জানালেও ফেব্রুয়ারি মাসের শুরু থেকে তা কমিয়ে দেয়।

৫ জানুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অবরোধের ঘোষণা দেওয়ার পর ওইদিন বিকেলেই সংবাদ সম্মেলন করে ৬ জানুয়ারি থেকে জনগণের জানমাল রক্ষার্থে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সারাদেশে শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থানের ঘোষনা দেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। এর দুইদিন পর বিশ্ব ইজতেমার প্রথমপর্ব শুরু হয়।

১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে প্রতিবছর দিনটিতে জনসভা করলেও ইজতেমার জন্য নিজেদের কর্মসূচি ১২ জানুয়ারি পালনের সিদ্ধান্ত নেয় ক্ষমতাসীনরা। ৮ জানুয়ারি দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ১২ জানুয়ারি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ওই জনসভায় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি  শেখ হাসিনা ‘সহিংসতা বন্ধে যা করার দরকার তাই করা হবে’ বলে ঘোষনা দেন। একই সঙ্গে তিনি সারা দেশে পাড়া-মহল্লায় সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি গঠনেরও নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রীর এ নিদের্শ এখনও পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়িত হয়নি। অনেক স্থানেই সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি গঠন করতে পারেনি সংশ্লিষ্টরা।

১৫ জানুয়ারি ১৪ দলীয় জোট ধানমন্ডিতে এক বৈঠকে ১৭ জানুয়ারি রংপুরের মিঠাপুকুর, ১৮ জানুয়ারি গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ীতে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের উদ্যোগে জনসভা এবং ঢাকা মহানগরসহ সারাদেশে বিএনপি-জামাতের নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, চোরাগুপ্তা বোমা হামলা ও জঙ্গি নাশকতামূলক কর্মকান্ডের বিপক্ষে ১৪ দলের উদ্যোগে গণসংযোগ, পথযাত্রা, শান্তি মিছিল এবং শান্তি সমাবেশের সিদ্ধান্ত হয়। এই সময়ের মধ্যে প্রায় প্রতিদিনই আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনে বিরোধীজোটের হরতাল-অবরোধের বিরুদ্ধে দলের অবস্থান তুলে ধরেন। ২০ জানুয়ারি গাবতলী মাজার রোডে বিএনপি-জামায়াতের কর্মকান্ডের বিপক্ষে জনসভা করে কেন্দ্রীয় ১৪ দল।

২৪ জানুয়ারি রাত ৮টায় দলীয় সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ঢাকা মহানগরের দলীয় সংসদ সদস্য, ঢাকা মহানগরের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে যৌথসভা ডাকে আওয়ামী লীগ। তবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর পরে তা স্থগিত করা হয়। যদিও বলা হয় অনিবার্য কারণবশত স্থগিত করা হয়েছে।

২৮ জানুয়ারি শ্রমিক কর্মচারী, পেশাজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদের এক মতবিনিময় সভা করে ১৪ দল। ৩০ জানুয়ারি শুক্রবার বাদ জুম্মা বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস ও পেট্রোল বোমায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত, অগ্নিদগ্ধদের আশু রোগমুক্তি কামনা এবং ঢাকা মহানগরসহ সারাদেশের জেলা, উপজেলায় দোয়া, মিলাদ ও গায়েবানা জানাজা ও ১৪ দলের উদ্যোগে ঢাকায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেইটে বাদ জুম্মা দোয়া, মিলাদ ও গায়েবানা জানাজা এবং দেশের প্রতিটি মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডাতেও বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করে।

১ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদ ভবনে দলের সংসদীয় বোর্ডের বৈঠক করে আওয়ামী লীগ। এ বৈঠক থেকে দলীয় সভাপতি, সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় এমপিদের এলাকায় যাওয়ার পরার্মশ দেন। এজন্য চলমান সংসদ অধিবেশন কয়েক দিনের জন্য মূলতবি রাখার বিষয়েও আলোচনা হয়। এছাড়া ৬ ফেব্রুয়ারি দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ওই বৈঠকে বিএনপির সঙ্গে সংলাপের সম্ভাবনা নকচ করে আরও কঠোর হওয়ার ঘোষণা দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

৬, ৭ ও ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগরের দলীয় জাতীয় সংসদ সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক সংগঠন, নারী সংগঠন ও আলেম-ওলামা নেতৃবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সভা করে ১৪ দল। ৮ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় ১৪ দলের উদ্যোগে দেশব্যাপী একযোগে বিকাল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত ‘মানববন্ধন’ কর্মসূচি পালন করা হয়। ১০ ও ১১ ১৪ ফেব্রুয়ারি সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগ। এসময় বিএনপিকে তাদের কর্মসূচি প্রত্যাহারের আহ্বান জানানো হয় এবং হরতাল-অবরোধে ক্ষতিগস্তদের বিবরণ তুলে ধরা হয়।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে ‘বিএনপি-জামাতের অগ্নি সন্ত্রাস-লুণ্ঠিত মানবতা’ শীর্ষক এক চিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় ১৭ ফেব্রুয়ারি। তিনদিন ব্যাপি এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন  করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ প্রদর্শনীতে হরতাল অবরোধে ক্ষতিগস্তদের স্থির ও ভিডিও চিত্র তুলে ধরা হয়। ১৮ ফেব্রুয়ারি আরেক দফায় মুক্তিযোদ্ধা, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক সংগঠন, নারী সংগঠন ও আলেম-ওলামা নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভা করে ১৪ দল। ২০ ফেব্রুয়ারি গণমিছিল কর্মসূচি পালন করেন। ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। ২৫, ২৬ ও ২৭ ফেব্রুয়ারি রাজধানী ও দেশের বিভিন্ন স্থানে ১৪ দলের উদ্যোগে জনসভা ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করা হয়।

২ মার্চ আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও এবং ৪ মার্চ ঢাকা মহানগরের অন্তর্গত সংসদ সদস্যদের নিয়ে এবং ৫ মার্চ পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ও নারী সংগঠন নেতৃবৃন্দের সাথে যৌথসভা করে আওয়ামী লীগ। মূলত ৭ মার্চের কমূসূচি সফল করতেই এ সভাটি হয়।  ৯, ১০ ও ১১ মার্চ  আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের উদ্যোগে গঠিত ৪ টি টিম সারা দেশে গণপদযাত্রা কর্মসূচি পালন করে।

গতকাল ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দলীয়ভাবে সারাদেশে কর্মসূচি পালন করে আওয়ামী লীগ।

amadershomoys.com