বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝুঁকিপূর্ণ কাজ থেকে মুক্ত ৯০ হাজার শিশু

risk woডেস্ক রির্পোট : ঝুঁকিপূর্ণ  শ্রম থেকে মুক্ত হয়েছে ৯০ হাজার শিশু। ‘বাংলাদেশে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম নিরসন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় তিনটি ফেজে এসব শিশু শ্রমিককে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ দেওয়া  হয়েছে। প্রশিক্ষণ শেষে শিশুদের সংশ্লিষ্ট ট্রেডের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহ করা হয়েছে। আরো ৬০ হাজার শিশুকে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা নিয়েছে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

সূত্র জানায়, ‘বাংলাদেশে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম নিরসন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় প্রথম ফেজে ১০ হাজার, দ্বিতীয় ফেজে ৩০ হাজার এবং তৃতীয় ফেজে ৫০ হাজারসহ মোট ৯০ হাজার শিশু শ্রমিককে ১৮ মাসব্যাপী উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ও ছয় মাসব্যাপী দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মক্ষম করে তোলা হয়েছে।

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, ‘বাংলাদেশে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত শিশুশ্রম নিরসন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ইতিমধ্যে ৯০ হাজার শিশুকে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের কর্মক্ষম করে তোলা হয়েছে। প্রশিক্ষণ শেষে শিশুদের সংশ্লিষ্ট ট্রেডের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের চতুর্থ পর্যায়ের কার্যক্রমের পরিকল্পনা করা হয়েছে যেখানে ৬০ হাজার শিশু শ্রমিককে এর আওতায় আনা হবে।’

পরিসংখ্যান ব্যুরোর এক সমীক্ষায় দেখা যায়, বাংলাদেশে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৬৫ লাখ, যা পৃথিবীর মোট শিশু শ্রমিকের ২ দশমিক ৬ অংশ। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৪৭ শতাংশই শিশু, যাদের বয়স ১৬ বছরের কম। সমীক্ষায় দেখা যায়, এদের প্রতি ১০০ জনে ১৯ জন শিশু শ্রমিক।

অর্থ মন্ত্রণালয় প্রকাশিত বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৪-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে শিশুশ্রম নিরসনে সরকার ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বিভিন্ন পর্যায়ে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। কর্মসূচির আওতায় হাজার শিশু শ্রমিককে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রদান ও দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। দেশের শিশুশ্রম নিরসনে সরকার ৭১ কোটি ৩৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা ব্যয় করেছে।

এ ছাড়া, ৫০ হাজার শিশু শ্রমিকের পিতা-মাতাকে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে রাজস্ব খাত থেকে ৬৮ কোটি ৬৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।  চতুর্থ পর্যায়ে আগামী জুলাই থেকে শিশুশ্রম নিরসনে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় নেদারল্যান্ডস সরকারের আর্থিক সহায়তায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। এতে ৭১ কোটি ৬৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা ব্যয় হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ২৬ হাজার শিশু শ্রমিক উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা এবং ১৩ হাজার শিশু শ্রমিককে কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান করা যাবে। একই সঙ্গে প্রকল্পের আওতায় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনে শ্রম উইংয়ের তত্ত্বাবধানে চাইল্ড লেবার ইউনিট (সিএলইউ) গঠন করা হয়েছে।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি

এ জাতীয় আরও খবর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর হাটে জন্য প্রস্তুত খামারিরা,শেষ সময়ে পরিচর্যায় ব্যস্ত

নতুন নোট বাজারে আসছে বুধবার

শিগগিরই ৫-১২ বছরের শিশুদের করোনার টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এক দিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

বিষাক্ত হলুদ ধোঁয়ায় ঢেকে গেল জাহাজ! মুহূর্তে ১২ জনের মৃত্যু

বিয়ের আসরে কনের পা ছুয়ে প্রণাম বরের!

বিশ্বের সব স্বৈরাচারকে টেক্কা দিয়েছে আওয়ামী সরকার : ফখরুল

আসছে ‘ডিজিজ এক্স’! অজানা রোগের মহামারীর শঙ্কা বিজ্ঞানীদের

রেসলিংয়ের মঞ্চে আরব নারী!

শ্রীলঙ্কায় এবার পেট্রল বিক্রি বন্ধ

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার বেরিয়ারে বাসের ধাক্কা

গাড়ি আমদানিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে পেছনে ফেলল মোংলা‍