বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খালেদাকে ১৩ এপ্রিল আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ

k ziaবড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আগামী ১৩ এপ্রিল আদালতে হাজির নির্দেশ দিয়েছে ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ। সোমবার ওই আদালতের বিচারক হোসনে আরা বেগম এই নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান, খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন মেজবাহ।

তিনি আরও জানান, সোমবার মামলাটিতে উচ্চ আদালতের আদেশ দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন খালেদা জিয়ার পক্ষে সময় আবেদন করা হয়। কারণ মামলাটির বিষয়ে উচ্চ আদালতে মামলাটি খারিজের আবেদন বিচারাধীন। আগামী ৫ এপ্রিল ওই বিষয়ে সিন্ধান্ত হওয়ার কথা রয়েছেন। তিনি জানান, মামলাটিতে খালেদা জিয়া জামিনে আছেন।

বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারে সময় ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া ও তার মন্ত্রিসভার সদস্যসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুদক। শাহবাগ থানায় মামলাটি করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের তৎকালীন সহকারী পরিচালক মো. সামছুল আলম। মামলায় মন্ত্রিসভার বৈঠকে সভাপতি হয়ে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির অনুমোদন দিয়ে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগে চারদলীয় জোট সরকারের স্থানীয় সরকার, সমবায় ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী আবদুল মান্নান ভূঁইয়া (মরহুম), অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান (মরহুম), শিল্পমন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, তথ্যমন্ত্রী শামসুল ইসলাম, কৃষিমন্ত্রী এম কে আনোয়ার, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী আলী আহসান মাহাম্মদ মুজাহিদসহ ১৬ জনকে আসামি করা হয়।

পরে এ মামলা দায়েরের বৈধতা চ্যালেঞ্জ হাইকোর্টে রিট করেন খালেদা জিয়া। ২০০৮ সালের ১৬ অক্টোবর বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি ফরিদ আহাম্মদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি মামলার কার্যক্রম তিন মাস স্থগিত করেন। একই সঙ্গে মামলা দায়ের ও কার্যক্রম কেন অবৈধ ও বেআইনি হবে না জানতে চেয়ে সরকারকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন। পরে সময়ে সময়ে মামলার স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়ানো হয়। মামলাটিতে হাইকোর্ট থেকে জামিনে রয়েছেন খালেদা জিয়া। একই বছরের ৫ অক্টোবর আদালতে এ মামলায় চার্জশিট দেওয়া হয়।

কনসোর্টিয়াম অব চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইম্পোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনকে (সিএমসি) বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির অনুমোদন দিয়ে রাষ্ট্রের কয়লা উত্তোলনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতা সিএমসির সঙ্গে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির উৎপাদন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তি করায় সরকারের প্রায় ১৫৮ কোটি ৭১ লাখ টাকার ক্ষতি হয়।