বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কাউন্সিলর প্রার্থীর ছড়াছড়ি ঢাকা-২, ৪ ও ৫ আসনে

untitled-8_124716ডেস্ক রির্পোট : ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন সামনে রেখে উত্তর ও দক্ষিণ- দুই অংশের সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থীরা ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঢাকা-২, ঢাকা-৪ ও ঢাকা-৫ সংসদীয় আসনভুক্ত ডিসিসি দক্ষিণের ১১টি ওয়ার্ডে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। প্রতিটি ওয়ার্ডেই গড়ে ছয়-সাতজন করে সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন।

আওয়ামী লীগ :ডিসিসি দক্ষিণের অন্তর্ভুক্ত ঢাকা-২ আসনের ৫৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তৎপরতা শুরু করেছেন দলের কামরাঙ্গীরচর থানার সহসভাপতি নূরে আলম, কেরামত আলী মেম্বার, আবদুর রহিম, দিল মোহাম্মদ গাজী ও আবদুর রহিম মেম্বার। দলীয় সমর্থন ও বিজয়ী হলে এলাকার উন্নয়নে কার্যকর ভূমিকা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পাঁচ সম্ভাব্য প্রার্থীই।

৫৬ নম্বর ওয়ার্ডে দলের কামরাঙ্গীরচর থানার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেনের সঙ্গে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন থানা কমিটির উপদেষ্টা ডা. মোশাররফ খান, জাপানি মনির, শাহ আলী বাদশা, ফেরদৌস মোল্লা, আলী মোহাম্মদ ও জামাল দেওয়ান। গোটা এলাকায় এদের পক্ষে দোয়া চেয়ে পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন ও লিফলেট দিয়ে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

৫৭ নম্বর ওয়ার্ডে দলের কামরাঙ্গীরচর থানার সভাপতি আবুল হোসেন সরকার, সাধারণ সম্পাদক সোলায়মান মাতবর, আবদুর রহিম ও সাইদুল মাতবর সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন। আবুল হোসেন সরকার অবশ্য সমকালকে বলেছেন, দলীয় সমর্থন যিনিই পাবেন, সবাই মিলে তার পক্ষেই কাজ করবেন তারা।

এদিকে, ঢাকা-৪ আসনের ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডে দলের ওয়ার্ড সভাপতি নাসির উদ্দিন ভূঁইয়ার পাশাপাশি সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নূরুও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তৎপরতা শুরু করেছেন। দলের স্থানীয় নেতা সারোয়ার হোসেন ও মইনুদ্দিন চিশতীও দলীয় সমর্থন পেতে দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন।

৫১ নম্বর ওয়ার্ডে দলের ঢাকা মহানগরের কৃষিবিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী লুৎফুর রহমান দলীয় সমর্থন চাইছেন। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আরও তৎপরতা চালাচ্ছেন ওয়ার্ড সভাপতি কাজী হাবিবুর রহমান হাবু ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শামসুজ্জামান বাবুল।

৫২ নম্বর ওয়ার্ডে দলের ওয়ার্ড সভাপতি রুহুল আমিন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম শাহীন, স্থানীয় নেতা অ্যাডভোকেট মো. ফারুক, যুবলীগ নেতা আহসান উল্লাহ, আ. রশিদ ও নাসিম মিয়া সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী তৎপরতা শুরু করেছেন। রফিকুল ইসলাম শাহীনের মতে, এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে মানুষের সেবা করে আসছেন। দলীয় সমর্থন পেলে মানুষই তাকে বিজয়ী করে আনবে বলে আশাবাদী তিনি।

৫৩ নম্বর ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর কাজী মঈনউদ্দিন মনির এবারও আওয়ামী লীগের সমর্থনে প্রার্থী হতে চান। তার সঙ্গে দলের শ্যামপুর থানার সাবেক সহসভাপতি মরহুম মোহাম্মদ উল্লাহর স্ত্রী কোহিনূর বেগম, ওয়ার্ড সভাপতি নূর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রেহান খোকন, স্থানীয় নেতা সোহরাব হোসেন, শামসুল আলম এবং ওলামা লীগ নেতা দেলোয়ার হোসেনও নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় নেমেছেন।

৫৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সমর্থন চেয়ে পাঁচ সম্ভাব্য প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। তারা হচ্ছেন দলের শ্যামপুর থানা মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক মোতালেব মাসুদ, ওয়ার্ড সভাপতি লিয়াকত আলী, সাধারণ সম্পাদক শরীফ মোহাম্মদ আলমগীর, স্থানীয় নেতা মনির হোসেন স্বপন ও চাঁন মিয়া।

ঢাকা-৫ আসনের ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন দলের ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম অনু, ডেমরা-যাত্রাবাড়ী থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক গাজী সুমন আহম্মেদ, স্থানীয় নেতা খান মনির ও জাহিদ হোসেন জুয়েল। ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডে দলের ওয়ার্ড সভাপতি হাজি শহিদুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক গাজী শামীম আহাম্মেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ গণি মিয়া, ওয়ার্ড নেতা আবুল কালাম আজাদ, জমির আলী ও রাগিব আহসান সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে গণসংযোগ শুরু করেছেন।

এ ছাড়া ৫০ নম্বর ওয়ার্ডে দলের ওয়ার্ড সভাপতি শেখ রফিকুল ইসলামের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক মুসলেহ উদ্দিন আহমেদ মুরাদও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন। এ দু'জনের সঙ্গে দলের স্থানীয় নেতা আনোয়ার হোসেন স্বাধীন, মাহাবুবুর রহমান পলাশ, মজিবুর রহমান এবং ওমর শরীফ পলাশের পক্ষেও এলাকায় পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন লাগানো হয়েছে।

বিএনপি: ডিসিসি দক্ষিণের ঢাকা-২ আসনভুক্ত ৫৫ নম্বর ওয়ার্ডে স্থানীয় বিএনপি নেতা মোহাম্মদ নাইম ও দেলোয়ার হোসেন দল সমর্থিত প্রার্থী হতে আগ্রহী। ৫৬ নম্বর ওয়ার্ডে মোহাম্মদ শহিদ উল্লাহ এবং ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডে আহসানউল্লাহ হাসান কাউন্সিলর পদে নির্বাচনী তৎপরতা শুরু করেছেন।

ঢাকা-৪ আসনভুক্ত ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফেজ ওয়াসেক বিল্লাহ প্রার্থী হতে পারেন। তিনি অবশ্য পার্শ্ববর্তী ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডেরও সম্ভাব্য প্রার্থী। ৫১ নম্বর ওয়ার্ডে রাশেদ হোসেন দলীয় সমর্থন পেতে পারেন।

৫২ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সালাহউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে তানভীর আহম্মেদ রবীন সম্ভাব্য প্রার্থী। ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর মীর হোসেন মিরু নির্বাচন নাও করতে পারেন। ৫৪ নম্বর ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর মৃত সাহাদাত হোসেনের ভাই মোজাম্মেল হোসেন বিএনপির সমর্থন চাইতে পারেন।

ঢাকা-৫ আসনভুক্ত ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর আতিক উল্লাহ আতিক। ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডে দলীয় সমর্থন চাইতে পারেন আরেক সাবেক কাউন্সিলর বাদল সরদার। ৫০ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর বিএনপির পরস্পরবিরোধী দুই নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ ও নবীউল্লাহ নবীর কাছের লোকদের মধ্য থেকে দু'জনকে গোপনে সমর্থন দেওয়া হতে পারে।

জাতীয় পার্টি: ঢাকা-২ আসনভুক্ত ৫৫, ৫৬ ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ডে জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা এখনও চোখে পড়েনি। তবে ঢাকা-৪ আসনভুক্ত ওয়ার্ডগুলোতে সরব জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এর মধ্যে ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডে মো. শহিদ ও মোহাম্মদ হানিফ, ৫১ নম্বরে কাওসার আহমেদ, ৫২ নম্বরে শেখ মাইনুদ্দিন বাবু এবং ৫৩ নম্বরে জহিরুল ইসলাম সরকার, মিলন মোড়ল ও সজীব আহমেদ দলীয় সমর্থন চাইছেন। তাদের পক্ষে এলাকায় ব্যানার, বিলবোর্ড ও পোস্টার লাগিয়ে প্রচার-প্রচারণাও শুরু হয়েছে।

ঢাকা-৫ আসনভুক্ত ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে ৪৮ নম্বরে তকদির হোসেন সেন্টু, ৪৯ নম্বরে আক্তার হোসেন দেওয়ান ও ৫০ নম্বরে মাহবুবুর রহমান খসরু কাউন্সিলর পদে দলীয় সমর্থন চান। তাদের মধ্যে নির্বাচনী প্রচারণায় এগিয়ে থাকা দলের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন সমকালকে বলেছেন, এলাকার মানুষের সঙ্গে ছিলাম। আশা করি, দল এর মূল্যায়ন করে সমর্থন দেবে।