বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভেজাল খাদ্যে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি

untitled-10_124715স্বাস্থ্য ডেস্ক : নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও খাদ্যপণ্য কিনতে শঙ্কায় থাকেন না এমন ক্রেতা খুঁজে পাওয়া মুশকিল। পণ্য উৎপাদন প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে ক্রেতার হাতে পণ্যসামগ্রী পেঁৗছে দেওয়া পর্যন্ত বিভিন্ন পর্যায়ে মেশানো হচ্ছে কৃত্রিম রঙ ও নানা ভেজাল। পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য। ফলে জনস্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে। ভোক্তার অধিকার রক্ষায় নানা উদ্যোগ নেওয়া হলেও ভেজালের প্রতারণা থেকে নিস্তার মিলছে না ক্রেতার। ভেজাল ও প্রতারণা রোধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করছেন অনেকেই। কিন্তু অতিলোভী অসাধু চক্রের তৎপরতা থেমে নেই।

এমন বাস্তবতায় আজ ১৫ মার্চ বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস পালিত হচ্ছে। এবার এ দিবসের প্রতিপাদ্য 'স্বাস্থ্যকর খাদ্য ভোক্তার অধিকার'। বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস গত ৩২ বছর ধরে পালিত হচ্ছে বাংলাদেশে। এবারও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) যৌথভাবে দিবসটি পালন করবে দেশব্যাপী।

ছয় বছর আগে 'ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন' হলেও যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় প্রতিনিয়ত নানাভাবে প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা। নিত্যনতুন কৌশলের আশ্রয় নিয়ে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো হচ্ছে খাদ্যপণ্যে। সরকারি সংস্থার অভিযানে ধরা পড়ছে ফরমালিন, কার্বাইড, পিজিআরসহ মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন কেমিক্যাল মেশানো ভেজাল পণ্য। খাদ্যপণ্য তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে। জীবনরক্ষাকারী পানি ও ওষুধেও পাওয়া যাচ্ছে ভেজাল।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ সমকালকে বলেন, ভেজালে সয়লাব হয়ে গেছে সব ধরনের খাদ্যপণ্য। ফলে নানা ধরনের রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা যাচ্ছে। দীর্ঘ মেয়াদে এসবের ক্ষতিকর প্রভাবে লিভার, কিডনি ও মস্তিষ্ক স্বাভাবিক কার্যকারিতা বেশি হারাচ্ছে। খাদ্যে রাসায়নিক দ্রব্যের মিশ্রণের কারণে শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের ক্ষতি হচ্ছে বেশি। শিশুরা বিকলাঙ্গ ও প্রতিবন্ধী হচ্ছে। নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহ নিশ্চিত করা না গেলে জাতি মেধাশূন্য হয়ে পড়বে। যে কোনো উপায়ে হোক, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা প্রয়োজন। ভোক্তার অধিকার রক্ষায় বিদ্যমান আইনের সংশোধন করে নিরাপদ পণ্যের যথাযথ ব্যবস্থা করতে পদক্ষেপ নিতে হবে।

ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির সমকালকে বলেন, নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ অধিকাংশ ক্ষেত্রে নিশ্চিত হচ্ছে না। এটা নিশ্চিত করতে যে ধরনের কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া উচিত, সে দায়িত্ব পালন করছে না সরকারি সংস্থাগুলো। বিদ্যমান আইন অনুযায়ী যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হলে নিরাপদ খাদ্য ও ভোক্তার অধিকার নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। তিনি আরও বলেন, ক্যাব নিয়মিত এসব সমস্যা তুলে ধরছে। কিন্তু সমাধানে যথাযথ পদক্ষেপ নেই।

ভোক্তার স্বার্থ রক্ষায় গত বছরে ভোক্তা অধিকার দিবসে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ঘোষণা দেন জাতীয় ভোক্তা অভিযোগ কেন্দ্র গঠন করার। এ অভিযোগ কেন্দ্রে গত বছরের আগস্ট থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ২৩০টি অভিযোগ করেছেন ভোক্তারা। এসব অভিযোগের মধ্যে ২০৬টি নিষ্পত্তি করে সাত লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এসব অভিযোগের মধ্যে রয়েছে- পণ্যে ভেজাল, মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি, মোড়কজাত পণ্যে নির্ধারিত খুচরা মূল্য না থাকা এবং লেখা থাকলেও অধিক মূল্যে বিক্রি, ওজনে কম দেওয়া, মোড়কে পরিমাণ উল্লেখ না থাকা ইত্যাদি।

শুধু খাদ্যের ক্ষেত্রে নয়, চিকিৎসাসেবায়ও নানা প্রতারণার শিকার ভোক্তারা। রাজধানীর অনেক বেসরকারি হাসপাতালে বাড়তি ভাড়ার খেসারত দিতে হচ্ছে। সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাওয়া রোগীদের ভালো সেবা পাওয়ার আশ্বাস দিয়ে ক্লিনিকে ভর্তি করে রমরমা বাণিজ্য করার অভিযোগ রয়েছে। হাসপাতালে রোগী ভর্তি হলে নিজস্ব ফার্মেসি থেকে ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম চড়া দামে কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে। চিকিৎসাসেবা নিতে গিয়ে প্রয়োজনীয় ও অপ্রয়োজনীয় নানা পরীক্ষার নামে খেসারত দিতে হচ্ছে ভোক্তাদের। পরিবহন খাতেও নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল হোসেন মিঞা সমকালকে বলেন, সারাদেশে ভোক্তাদের কাছ থেকে নানা অভিযোগ আসছে। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে তা নিষ্পত্তি করা হচ্ছে। মামলা করার মতো অভিযোগ এখন পর্যন্ত আসেনি। তা ছাড়া আগে অধিদপ্তরের নিজস্ব জনবল ছিল না। এ কারণে মামলা করা সম্ভব হয়নি। ভোক্তা অধিকার আইনের সংশোধন করা হচ্ছে। সেখানে ভোক্তা ও অধিদপ্তরের উভয়ের মামলা করার সুযোগ থাকবে।

এ জাতীয় আরও খবর