বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইরাকের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেছে সেনাবাহিনী

image_1130_170285আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইরাকের তিকরিত শহর চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেছে দেশটির সেনাবাহিনী এবং শিয়া ও সুনি্ন স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। গত কাল শুক্রবার তিকরিতের কাছ থেকে ইরাকি পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, 'সব দিক থেকে তিকরিককে ঘিরে ফেলা হয়েছে। তবে হতাহত এড়াতেই ইরাকি সেনারা অভিযানের এ পর্যায়ে তাড়াহুড়া করছে না। এদিকে ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের শহর তিকরিতে বেকায়দায় পড়লেও আইএস এই বিপর্যয়কে আমল না দিয়ে তাদের প্রতি নাইজেরিয়ার জঙ্গি সংগঠন বোকো হারামের আনুগত্য প্রকাশকে স্বাগত জানিয়েছে। বোকো হারামকে নিজেদের শাখার স্বীকৃতি দিয়ে পশ্চিম আফ্রিকায়ও তাদের 'খিলাফত' বিস্তৃত করার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে মধ্যপ্রাচ্যে মরুঝড় তুলে দেয়া জঙ্গি এ গোষ্ঠীটি। সংবাদসূত্র: আল-জাজিরা, রয়টার্স, প্রেসটিভি
তিকরিত ও এর আশপাশে ব্যাপক সাফল্যের পর লড়াইয়ে থাকা সেনা কমান্ডাররা জানান, তিকরিতে আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে বৃহত্তম বিজয় এখন শুধু সময়ের ব্যাপার। ইরাকের সালাহউদ্দিন প্রদেশে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী খালেদ আল-ওবায়েদি বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, 'আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী এখন আমরা দ্বিতীয় ধাপের অভিযানের জন্য অগ্রসর হচ্ছি।' নিয়মিত সেনা ও স্বেচ্ছাসেবক মিলে প্রায় ৩০ হাজার যোদ্ধার এই অভিযানের ১১তম দিনের অগ্রগতি জানিয়ে তিনি বলেন, 'যদিও সময় এখন আমাদের অনুকূলে। তবুও আমাদের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতির দিকে আমরা নজর রাখছি।' আইএস জঙ্গিগোষ্ঠীর কাছ থেকে তিকরিত নগরীর পুনর্নিয়ন্ত্রণ নিতে তাদের এই সর্বশেষ ও বৃহত্তম অভিযান শুরুর পর কতজন হতাহত হয়েছে তা জানানো হয়নি। গত বছরের জুন মাস থেকে তিকরিত আইএস জঙ্গিদের দখলে আছে।
ইরাকি সেনাদের এই তিকরিত অভিযানে অগ্রগতি অর্জন হলেও সেখানে প্রচ- লড়াই হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সাংবাদিকরা। যুদ্ধের প্রতিটি ফ্রন্টেই প্রতিদিন ব্যাপক হতাহতের ঘটনা ঘটছে বলেও জানা গেছে। আইএস জঙ্গিরা সেখানে আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলা, গোপন ফাঁদ, রাস্তার পাশে পেতে রাখা বোমা এবং শহরের ভেতর থেকে অতর্কিত আক্রমণে সরকারি বাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার ইরাকি শিয়া স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীকে লক্ষ্য করে আইএস জঙ্গিরা একটি গাড়িবোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়। এছাড়া আইএস জঙ্গিরা দূরের নিরাপদ আড়াল থেকে রাইফেলের গুলি করেও সেনাদের অগ্রযাত্রা রুখে দিচ্ছে।
আইএসের এই তৎপরতার কারণে অভিযানের দ্বিতীয় অংশে বেশ কিছুটা সতর্ক ও সাবধানী অবস্থান নিয়েছে ইরাকি সেনাবাহিনী। তিকরিতের কাছের একটি গ্রাম আলবু আজিলে পুলিশ স্টাফ মেজর জেনারেল বাহা আল-আজ্জাবি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বলেন, 'আমরা হতাহত এড়াতে চাই বলেই আমরা এক্ষেত্রে কোনো তাড়াহুড়া করতে চাই না।' তিনি আরো বলেন, 'সবদিক থেকে তিকরিককে ঘিরে ফেলা হয়েছে।' টাইগ্রিস নদীর পূর্ব উপকূলের সব শহর ও গ্রাম বর্তমানে ইরাকি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। 
সর্বশেষ খবর অনুযায়ী শুক্রবারও বিভিন্ন ফ্রন্টে আইএস জঙ্গিদের সঙ্গে ইরাকি সেনাদের লড়াই অব্যাহত ছিল। সেনারা আইএসের দখলে থাকা নগর কেন্দ্রের দিকে মর্টারশেল হামলা অব্যাহত রেখেছিল। এ ছাড়া ইরাকি সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারগুলো থেকে আইএসের লুকিয়ে থাকার বিভিন্ন স্থাপনায় আঘাত হানা হচ্ছিল। এছাড়া সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের প্রাসাদের কাছের এলাকাগুলোতেও দুই পক্ষের মধ্যে তুমুল লড়াই চলছিল। এ পর্যায়ে অবরুদ্ধ তিকরিতে এখন আইএস জঙ্গিদের সামনে মাত্র দুটো পথ খোলা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন অভিযানে অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা কমান্ডার হাদি আল আমেরি। তিনি আরো বলেন, 'এখন আমাদের আর আক্রমণের প্রয়োজন নেই। এতে সাধারণ মানুষ বিপদে পড়তে পারে।' খুব দ্রুতই আইএস জঙ্গিদের কাছ থেকে তিকরিতের পুরো দখল নিয়ে নেয়ার ব্যাপারে আশাবাদও ব্যক্ত করেন তিনি।
এদিকে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিগোষ্ঠী নাইজেরিয়ার সশস্ত্র সংগঠন বোকো হারামের আনুগত্যের আবেদন গ্রহণ করেছে। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক অডিও বার্তায় আফ্রিকায় নিজেদের এই বিস্তৃতির খবর জানিয়েছে আইএস। অডিও বার্তাটিতে নিজেকে আইএসের মুখপাত্র দাবি করা মুহাম্মদ আল-আদনানি বলেন, খেলাফত প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য এখন পশ্চিম আফ্রিকা পর্যন্ত বিস্তৃত হলো। তিনি পশ্চিম আফ্রিকার সংগঠনেও মুসলমানদের যোগ দেয়ার আহ্বান জানান। ওই অডিও বার্তায় সিরিয়া ও ইরাকে আইএস নিয়ন্ত্রিত বেশকিছু স্থান ইরাকি বাহিনী কর্তৃক পুনর্দখলের খবর অস্বীকার করা হয়। তবে অডিও বার্তাটি আসলেই আইএসের তরফ থেকে প্রকাশ করা হয়েছে কিনা তা যাচাই করা সম্ভব হয়নি। এর আগে, গত শনিবার এক অডিও বার্তায় বোকো হারাম আইএসের প্রতি তাদের আনুগত্য প্রকাশ করে।