বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘এবারের টার্গেট ভারত’

7522_1ক্রীড়া ডেস্ক : গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড শিবিরে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেয়ার পর বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলেছেন, তাদের পরবর্তী লক্ষ্য ভারত। কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতকে নিয়ে টাইগারদের মধ্যে কোনো ভয় কাজ করছে না বলেও উল্লেখ করেন বিশ্ব সেরা অল রাউন্ডার।
গতকালের ম্যাচে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর মাত্র তিন উইকেটে নিউজিল্যান্ডের কাছে হারে বাংলাদেশ। ফলে ‘এ’-গ্রুপের চতুর্থ দল হিসেবে শেষ আটে লড়তে হবে টাইগারদের। কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ‘বি’-গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ভারত।
মাশরাফির পরিবর্তে গতকালের ম্যাচ বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দেয়া সাকিব ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা সামনে এগিয়ে যাওয়ার রশদ পেয়ে গেছি। আজ আমরা যেভাবে খেলেছি আমার মনে হয় ভালোই 
হয়েছে। যা কোয়ার্টার ফাইনালে আমাদের অনুপ্রাণিত করবে।’
‘আমরা এখনো মনে করি না কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচটি আমাদের জন্য খুব একটা কঠিন হবে। বরং আমার মনে হয় ম্যাচটি খুবই উত্তেজনাপূর্ণ হবে। সেখানে প্রচুর দর্শক সমাগম ঘটবে। এখন আমরা বিশ্বকাপে 
নিজেদের প্রথম সেমি-ফাইনালে অংশ নেয়ার জন্য প্রস্তুত।’
সাকিব বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট অর্জন করা। এখন একটি মাত্র ম্যাচের মামলা। নিজেদের দিনে সেখানে যেকোনো কিছুই ঘটতে পারে। এখন আমরা নিজেদের 
সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করব। আমার মনে হয় খেলোয়াড়রা এটির জন্য যেকোনো ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত।’
সাকিব বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের কাছে পরাজিত হওয়াটা আমাদের জন্য হতাশার ব্যাপার। আমাদের হারিয়ে তারা এখন ছয় ম্যাচের সব কয়টিতে জয়ের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো।’ কিন্তু বিশ্বকাপের এই 
সহ-আয়োজকদের উদ্দেশ্য ছুঁড়ে দেয়া ২৮৯ রানের লক্ষ্য অতিক্রম করতে গিয়ে তাদেরকে রীতিমত ঘাম ঝড়াতে হয়েছে।
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অপরাজিত ১২৮ রানে ভর করে টাইগাররা ৭ উইকেটে ২৮৮ রান করতে সক্ষম হয়। 
টুর্নামেন্টে এই প্রথম নিউজিল্যান্ডে তাদের প্রতিপক্ষ দলকে অলআউট করতে ব্যর্থ হয়েছে। জবাবে মার্টিন গাপটিলের ১০৫ ও রস টেইলরের ৫৬ রানে ভর করে ৪৮.৫ ওভারে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে নিউজিল্যান্ড।
সাকিব বলেন, ‘এ রকম একটি ম্যাচে জয়ের কাছাকাছি আসার পরও হার মানাটা হতাশার বিষয়। এটি ছিল দুর্দান্ত একটি ম্যাচ। এটি সঠিক পথেই ছিলো। তবে শেষ পর্যন্ত তারাই শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখলো।’ স্পিন দিয়ে 
বোলিংয়ের সূচনা করা বাংলাদেশের হয়ে সাকিব তার স্পিন যাদুতে তুলে নেন ৪ উইকেট। তিনি শুরুতেই ফিরিয়ে দেন বিপজ্জনক কিউই ব্যাটসম্যান ব্রানডন ম্যাককালাম (৮) ও কেন উইলিয়ামসনকে (১)।
সাকিব বলেন, ‘এটি ছিল ম্যাচ পরিকল্পনা। ক্রিজে স্পিন থেকে কিছুটা সহায়তা আসছিল। তা আমরা কাজে লাগিয়েছি। তবে অন্য ম্যাচগুলোতে আমরা স্পিন সহায়তা পাইনি। গাপটিল ও টেইলর যেভাবে ব্যাট করেছেন 
তা এক কথায় অসাধারণ। ওই দুটি উইকেট দখল করার দরকার ছিলো। কিন্তু ম্যাচের শেষভাগে এসে দেখা গেল আমাদের অন্তত ১০ রানের ঘাটতি ছিল।’
ম্যাচে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের পারফরমেন্সের ভূয়সী প্রশংসা করেন সাকিব, যার সেঞ্চুরিতে ভর করে আগের ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ১৫ রানে পরাজিত করেছে বাংলাদেশ। সাকিব বলেন, ‘বর্তমানে বিশ্বকাপ আসরের শীর্ষ ৫ 
শীর্ষ ব্যাটসম্যানের তালিকায় পৌঁছে গেছেন রিয়াদ। আশা করি তিনি কোয়ার্টার ফাইনালেও তার এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখবেন। আমরা তার এই পারফরমেন্সে গর্বিত। তবে এটিও ঠিক যে তার দায়িত্ব শেষ হয়ে যায়নি। পেশাদার দল হিসেবে আমরা চাই কোয়ার্টার ফাইনালেও তিনি যেন আরেকটি সেঞ্চুরি করেন। 
কুমার সাঙ্গাকারা যদি টানা চারটি সেঞ্চুরি করতে পারেন তাহলে রিয়াদ কেনো নয়?

এ জাতীয় আরও খবর