শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

একমাত্র সমাধান ভোট : খালেদা

3_68523ডেস্ক রির্পোট : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, চলমান সংকটের একমাত্র সমাধান হলো ভোট। আর সে সংকট সমাধানের চাবিকাঠি ক্ষমতাসীনদের হাতে। যৌক্তিক পরিণতিতে না পৌঁছা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে জানিয়ে তিনি বলেন, জাতীয় জীবনের বৃহত্তর স্বার্থে ‘সাময়িক’ কষ্ট স্বীকার করে হলেও আন্দোলন অব্যাহত রাখার জন্য দলীয় নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের জনগণের প্রতি অনুরোধ করছি। খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চলমান রাজনৈতিক সংকটের স্রষ্টা আখ্যা দিয়ে বলেন, জনগণের স্বাধীনতা এবং মৌলিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হলে আমাদের জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই। শেখ হাসিনাকে বিশ্বাস করাও ভুল ছিল বলে দাবি করেন তিনি।

গতকাল বিকালে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। তবে এতে তিনি কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি। গত ৩ জানুয়ারি রাত থেকে গুলশান কার্যালয়ে অবস্থানকালে ১৯ জানুয়ারি রাতে প্রথমবারের মতো সংবাদ সম্মেলন করেন খালেদা জিয়া। এর ৫৩ দিন পর গতকাল আবার সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। বিকাল পৌনে ৫টায় খালেদা জিয়ার এই সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়। ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে গুলশান কার্যালয়ে প্রবেশে ‘কড়াকড়ি’ থাকলেও এ সংবাদ সম্মেলনের কারণে গুলশান ২ নম্বর সেকশনের ৮৬ নম্বর সড়কে খালেদার ওই কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ঢুকতে দেয় পুলিশ।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল কাইয়ুম, প্রেসসচিব মারুফ কামাল খান, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।খালেদা জিয়া বলেন, এ নিয়ে ক্ষমতাসীনরা যদি কোনো আলোচনা করতে না চায় তাহলে সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব এককভাবে তাদের ওপরই বর্তাবে। তথাকথিত হলেও একটি সংসদের অধিবেশন চলছে। একতরফাভাবে যে বিতর্কিত পঞ্চদশ সংশোধনী তারা পাস করেছে সেটি তারা একতরফাভাবে বাতিলও করে দিতে পারে। তাতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের পথ খুলবে। এই সংশোধনীর পর বর্তমান ক্ষমতাসীনরা পদত্যাগ করে নতুন নির্বাচনের ব্যবস্থা করলেই দেশে সংকটের অবসান ঘটবে।তিনি বলেন, সংকট নিরসনের জন্য ১৯৯৬ সালে আমরা নিয়ম রক্ষার নির্বাচন করে সংবিধান সংশোধনের পর পদত্যাগ করে আমাদের অঙ্গীকার পূরণ করেছিলাম। এখন শেখ হাসিনা অন্তত এবার যদি তার অঙ্গীকার পূরণ করেন তাহলেই দেশে শান্তি, স্বস্তি ও সমঝোতার পরিবেশ ফিরে আসবে। মানুষ মুক্তি পাবে। আশা করি, ক্ষমতাসীনদের শুভবুদ্ধির উদয় হবে।লিখিত বক্তব্যে খালেদা জিয়া বলেন, এই সরকারের সময় দেশের প্রতিটি জনপদে আজ স্বজন হারানোর কান্না চলছে। কে কখন গুম-খুন হবে, তা কেউ জানে না। এর পরও যারা আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন, তাদের ধন্যবাদ জানান বিএনপি চেয়ারপারসন।বিএনপি নেত্রী বলেন, সরকারের দমন-পীড়ন ‘জাতীয় ঐক্যকে ক্ষতিগ্রস্ত’ করেছে। দেশকে নিয়ে গেছে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। ‘ধ্বংসের হাত থেকে’ দেশ রক্ষায় তিনটি দফার ভিতরে অন্তর্ভুক্ত করে পুরনো দাবিগুলোই নতুন করে তুলে ধরেন খালেদা জিয়া।সেগুলো যথাক্রমে : ক. ‘আন্দোলন দমনের জন্য’ সারা দেশে বিরোধী দলের যেসব নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। খ. ‘গুম, খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড’ বন্ধ করতে হবে। পুলিশি ও  যৌথবাহিনীর হয়রানি বন্ধ করতে হবে। নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা ‘হয়রানিমূলক সব মিথ্যা মামলা’ প্রত্যাহার করতে হবে। বিচারবহির্ভূত প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু ও বিশ্বাসযোগ্য তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি দিতে হবে। একই সঙ্গে সভা-সমাবেশ-মিছিলসহ রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের ওপর আরোপিত ‘সকল প্রকার বিধিনিষেধ’ অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। গ. ‘সবার কাছে গ্রহণযোগ্য’ সরকারের অধীনে সবার অংশগ্রহণে অবিলম্বে জাতীয় সংসদের ‘অবাধ ও সুষ্ঠু’ নির্বাচনের জন্য দ্রুত সংলাপের আয়োজন করতে হবে।পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিলের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘ট্রায়াল অ্যান্ড এরর’-এর মধ্য দিয়ে যে কোনো পদ্ধতিই সংশোধিত ও পরিশোধিত হতে পারে। প্রয়োগের মধ্য দিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় পরিলক্ষিত ত্রুটি-বিচ্যুতিও ঐকমত্যের ভিত্তিতে সংশোধনের সুযোগ ছিল। কিন্তু তা না করে সংবিধানের ওই সংশোধনীর ফলে ‘শান্তিপূর্ণ, গণতান্ত্রিক ও স্বাভাবিক পন্থায়’ ক্ষমতা হস্তান্তরের সব পথ ‘প্রায় রুদ্ধ’ করে ফেলা হয়েছে। আর এটিই হলো ‘সব সংকটের মূল উৎস’।খালেদা জিয়া বলেন, অপরিমেয় ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত প্রিয় দেশ আজ গভীর সংকটে। এ সংকট রাজনৈতিক ও সাংবিধানিক। আর এ সংকটের স ষ্টা আওয়ামী লীগ এবং শেখ হাসিনা। জনগণের সম্মতি ছাড়া কারসাজির মাধ্যমে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসীন হয়ে সেই ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করার উদগ্র বাসনা আজ সমগ্র জাতিকে এক চরম অনিশ্চয়তার মুখে ঠেলে দিয়েছে।খালেদা জিয়া আরও বলেন, আওয়ামী লীগের প্রতিশ্রুতির কারণে ৫ জানুয়ারির পর আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনার কথা বিশ্বাস করে আমাদের সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া যে সঠিক ছিল না তা আমরা অচিরেই বুঝতে পারি। কারণ আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করার পর সারা দেশে যৌথবাহিনীর অভিযানের নামে তারা এক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। বিচারবহির্ভূত হত্যা, গুম, খুন, অপহরণ ও নির্যাতনের মাধ্যমে এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। বিরোধী দলমতের শত শত নেতা-কর্মীকে হত্যা ও গুম করা হয়। তাদের আত্মীয়স্বজন ও পরিবারের সদস্যদের ওপরও নির্যাতন চালানো হয়। রাজনীতি করার স্বাভাবিক অধিকারটুকুও কেড়ে নেওয়া হয়। এত কিছু সত্ত্বেও আমরা দীর্ঘ এক বছর অপেক্ষা করেছি। বার বার আলোচনার আহ্বান জানিয়েছি। কারণ আমরা সমঝোতা ও শান্তিতে বিশ্বাসী।কিন্তু তারা বরাবরই সংঘাত ও সংঘর্ষের পথ বেছে নিয়েছে। এবারও তারা অস্ত্রের ভাষায় আমাদের দমিয়ে রাখতে চেয়েছে। সচেতন ও বিবেকবান কোনো নাগরিক সমঝোতার কথা বললেই তারা তাকে অপমানিত ও লাঞ্ছিত করেছে।সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আলোচনার ভিত্তি হিসেবে সাত দফা প্রস্তাব তুলে ধরি। তারা সঙ্গে সঙ্গে তা নাকচ করে দেয়। তাই আমরা বাধ্য হয়ে আন্দোলনের কর্মসূচি দিয়েছি। সাহসিকতার সঙ্গে সবাই অংশগ্রহণ করলে এ আন্দোলন অচিরেই সফল হবে ইনশা আল্লাহ।খালেদা জিয়া আরও বলেন, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদকে গ্রেফতার করে গত তিন দিনেও সরকার স্বীকার করেনি। এখন পর্যন্ত তার কোনো হদিস নেই। নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্নার ব্যাপারেও সরকার প্রথম অস্বীকার করে পরে নাটক সাজিয়ে ২১ ঘণ্টা পর তাকে গ্রেফতার দেখায়। অবিলম্বে সালাহউদ্দিন আহমেদের মুক্তি দাবি করে তিনি বলেন, অন্যথায় এর পরিণতি শুভ হবে না।

এ জাতীয় আরও খবর