শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেয়র নিয়ে বিশৃঙ্খলায় আওয়ামী লীগ

al__flag_68521ডেস্ক রির্পোট : ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী নিয়ে চরম বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দুই সিটিতেই মেয়র পদ প্রত্যাশী আওয়ামী লীগারের ছড়াছড়ি। এদিকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ডেকে নিয়ে ঢাকা উত্তরে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ব্যবসায়ী নেতা আনিসুল হক ও দক্ষিণে সাঈদ খোকনের নাম ঘোষণা করেছেন। ওই ঘোষণা উপেক্ষা করেই আওয়ামী লীগের একডজন নেতা মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এমনকি এমপিরাও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অমান্য করে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মিছিল, মিটিং ও শোডাউন করছেন। বিভিন্ন এলাকায় বিলবোর্ড, পোস্টার লাগাচ্ছেন তারা। বিশেষ করে উত্তর সিটিতে মেয়র পদে নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগের ঢাকা-১৫ আসনের এমপি কামাল আহমেদ মজুমদার ও দক্ষিণে দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজী সেলিম। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এমন বিশৃঙ্খলা থাকলে দলের নেতা-কর্মীরা বিভ্রান্তিতে পড়বেন। আর আওয়ামী লীগের বিপক্ষে কোনো হাইপ্রোফাইলের প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে দলের বিজয় অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে।

এদিকে স্বঘোষিত মেয়র প্রার্থীদের নিয়ে ব্রিবত অবস্থায় আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। কেন্দ্রীয় নেতারা মনে করছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে প্রার্থী ঘোষণার পর আর কোনো কথা থাকতে পারে না। দলের নির্দেশনার বাইরে অনেকেই নিজেকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছেন। এমনকি তারা দলের গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করছেন। যারা সংগঠনবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত হবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগরীর শীর্ষ নেতারা।জানা গেছে, ঢাকার উত্তর সিটিতে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্রার্থী আনিসুল হকের পাশাপাশি নির্বাচনী প্রচারণায় রয়েছেন মেয়র পদপ্রার্থী আওয়ামী লীগের সাতজন। এর মধ্যে সরকারদলীয় সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কামাল আহমেদ মজুমদার, সংসদ সদস্য এ কে এম রহমত উল্লাহ, আওয়ামী লীগ ও ব্যবসায়ী নেতা এস এ মান্নান কচি, সংসদ সদস্য আসলামুল হক আসলাম, ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তরের সভাপতি মাঈনুল হোসেন নিখিল ও মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাদেক খানের নাম মেয়র প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় আছে। এর মধ্যে কামাল আহমেদ মজুমদারের নামে উত্তর সিটির ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে লিফলেট বিলি করা হচ্ছে এবং ব্যাপক শোডাউনও চলছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ খোকনের পাশাপাশি প্রার্থিতার ঘোষণা দিয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী সেলিম। তিনিও প্রচার-প্রচারণায় পিছিয়ে নেই। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনিও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। দক্ষিণে সিটি মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন মহানগর আওয়ামী লীগের অপর যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন। ইতিমধ্যে অনেকেই বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে প্রার্থী হওয়ার বিষয় নিশ্চিত করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়ামের এক সদস্য ও মন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দল সমর্থিত প্রার্থীর নাম ঘোষণা সত্ত্বেও অন্যরা প্রচার-প্রচারণা চালানোয় কিছুটা হলেও দলের সুনাম ক্ষুণ্ন হচ্ছে। যারা সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে প্রার্থী হবেন তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এখন একাধিক প্রার্থী থাকলেও নেত্রীর সিদ্ধান্তের বাইরে কেউ যাবেন না। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, প্রত্যাশা অনেকের থাকতে পারে। এখন মাঠে একাধিক প্রার্থী দেখা গেলেও সময়মতো দলের সিদ্ধান্ত সবাই মেনে নেবেন। শেষতক সভানেত্রীর সিদ্ধান্তের বাইরে কেউই যাবেন না। অতীতেও এমন হয়েছে। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দুই সিটিতে দল মেয়র প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে। এর পর কে দাঁড়ালেন, কে দাঁড়ালেন না তা দেখার বিষয় নয়। যিনি সংগঠনের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কাজ করবেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, রাজধানী ঢাকা একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। ঢাকায় কোনো কিছু ঘটলে সারা দেশে প্রভাব পড়ে। কাজেই ঢাকাকে আওয়ামী লীগের হাতছাড়া করতে চাই না।এ বিষয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ড. হারুন অর রশিদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দেশের দলীয় ব্যবস্থা এমন পর্যায়ে যে, দলের শীর্ষ নেতা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন। দুই সিটিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী সম্ভাব্য প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখনো যারা সমর্থন প্রত্যাশায় মাঠে আছেন, শেষ পর্যন্ত থাকবেন না। এ নিয়ে দলের মধ্যে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে বলে মনে করি না। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উত্তরের মেয়র প্রার্থী কামাল আহমেদ মজুমদার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আনিসুল হককে কাজ করতে বলেছেন, দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করেননি। জনগণ আমাকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে দেখতে চায়। তিনি জানান, তফসিল ঘোষণার আগে দলীয় সভানেত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন। দলীয় সমর্থন না পেলেও এমপি পদ ছেড়ে দিয়ে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এদিকে দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী হাজী মো. সেলিম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জনগণের চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি সিটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মাঠে নেমেছেন। ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন। দলীয় সভানেত্রীও প্রার্থীদের সম্পর্কে খোঁজখবর নিচ্ছেন। তফসিল ঘোষণা হলেই তিনি নেত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন। তার বিশ্বাস মাঠ পর্যায়ের খবর নিয়ে সভানেত্রী তাকে চূড়ান্ত সমর্থন দেবেন। দক্ষিণ সিটির সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মাঠে ছিলাম, মাঠে আছি, মাঠে থাকব। দল একজন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে, আপনিও প্রচারণা চালাচ্ছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দল প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেনি, কাজ করতে বলেছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত দেবেন মেনে নেব। জানা গেছে, ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী আনিসুল হক প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। তার সমর্থকরাও উত্তর সিটির নাগরিকদের মধ্যে প্রচারণা চালাচ্ছেন। উত্তর সিটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্দলীয় ব্যক্তি ব্যবসায়ী নেতা ও এফবিসিসিআই এবং সার্ক চেম্বারের সাবেক সভাপতি আনিসুল হককে প্রার্থী করায় নতুন চমক হিসেবে দেখছেন নির্বাচন বিশ্লেষকরা। আর সাঈদ খোকনও প্রচার-প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। ঢাকার কয়েকটি ওয়ার্ডে তার সমর্থনে মিছিলও হয়েছে। ইতিমধ্যে তার কর্মী-সমর্থকরা পুরান ঢাকা এলাকায় তার নামে বিলবোর্ডও লাগিয়েছেন। এমনকি ফেসবুকেও তার নামে প্রচার-প্রচারণা চলছে। বিশ্লেষকদের মতে, বিএনপি সিটি নির্বাচনে অংশ না নিলেও আওয়ামী লীগের নিজস্ব প্রার্থীদের মধ্যে নির্বাচনী লড়াই জমে উঠবে। ইসি সূত্রে জানা গেছে, আগামী মে মাসের প্রথম সপ্তাহে ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণের চিন্তাভাবনা করছে নির্বাচন কমিশন। এক্ষেত্রে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে তিন সিটি নির্বাচনের তফসিলও ঘোষণা করতে পারে কমিশন।

এ জাতীয় আরও খবর