বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

র‌্যাবের গোয়েন্দা সরঞ্জাম আটক: প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনাল যা বলছে

rab 12মোবাইল ফোনে আড়ি পাতা ও নজরদারি করায় সুইজারল্যান্ড র‌্যাবের কেনা সরঞ্জাম আটকে দিয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে ক্রয়কৃত সরঞ্জাম আটকে দেয়া হয়। যদিও সুইজারল্যন্ডেরই এক প্রতিষ্ঠান ওই সরঞ্জাম সরবরাহ করছিলো। মানবাধিকার লঙ্ঘনের এই অভিযোগ করে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনাল। তাদের হয়ে এ্যাডভোকেসি করে ‘কোয়ালিশন এগেইনস্ট আনলফুল সার্ভিলেন্স এক্সপোর্ট’। এই দু’টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতা ও গোপনীয়তা রক্ষায় কাজ করে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংস্থা প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনালের এক প্রতিবেদনে বলা হয় ২০১৩’র ডিসেম্বরে বাংলাদেশের সরকারি একটি ওয়েবসাইটে ‘ইউএইচএফ ট্রান্সমিটার অ্যান্ড সার্ভেলেন্স ইকুইপমেন্ট’ ক্রয়ের দরপত্র আহ্বান করা হয়। এরপর ৬ জানুযারি আবার দরপত্রটি প্রকাশ করা হয়। সম্ভাব্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে ওই দরপত্রের বিস্তারিত প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনালের হাতে পৌঁছায়। এতে স্পষ্ট হয়, র‌্যাব যে নজরদারি সরঞ্জাম ক্রয় করতে যাচ্ছে তা হলো গাড়িতে ব্যবহারযোগ্য শক্তিশালী ‘আইএমএসআই ক্যাচার’। দরপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ছিল গত বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি। তাদের প্রতিবদেনে আরো দাবি করা হয়েছে, দরপত্র জয়ী প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীরা গত বছরের মার্চ মাসে বাংলাদেশ সফরে এসেছিলেন। ওই দরপত্র বিবরণে স্পষ্ট করে বলা আছে, জয়ী প্রতিষ্ঠানকে কমপক্ষে ২০ দিনের প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

সংস্থাটির হাতে আসা তথ্য থেকে প্রতীয়মান হয় যে, মধ্যস্থতাকারীর সহযোগিতায় সুইজারল্যান্ডভিত্তিক একটি নজরদারি সরঞ্জাম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ওই প্রযুক্তি কেনা হয়েছে। সরঞ্জামগুলো ইতিমধ্যে সরবরাহ করা হয়ে থাকতে পারে বা দ্রুতই হবে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়। প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনালের কাছে গোপন কিছু নথিপত্র এসেছে। এতে বাংলাদেশের র‌্যাবের কাছে বিক্রির জন্য ‘আইএমএসআই ক্যাচার’-এর একটি টেন্ডারের বিবরণ রয়েছে।

সংস্থাটি তাদের প্রতিবেদনে আরও বলেছে, গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে র‌্যাবের বিরুদ্ধে। যদি এ তথ্য সঠিক হয় তাহলে সরঞ্জামগুলোর রপ্তানি থামানো বাঞ্ছনীয়।

সম্প্রতি সুইজারল্যান্ড কর্তৃপক্ষ প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনালকে তথ্য দেয় যে, মোবাইল ফোন নজরদারি প্রযুক্তি সেখান রেখে রপ্তানি হওয়ার অনুমোদন পেয়েছে। এ তথ্যের আলোকে র‌্যাবের কাছে নজরদারি সরঞ্জাম সরবরাহ করার বিষয়টি সামনে আসে। প্রযুক্তি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানটি আসলেই সুইজারল্যান্ডের কিনা তা খতিয়ে দেখার জন্য প্রাাইভেসি ইন্টারন্যাশনাল ৩০ এপ্রিল সুইস কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদনে জানায়, বাংলাদেশে কোন ধরনের সরঞ্জাম রপ্তানি দেশটিতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অংশ যেন না হয়- সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনাল বলেছে র‌্যাবের কাছে ‘আইএমএসআই ক্যাচার’ নামে যে নজরদারি প্রযুক্তি বিক্রি হওয়ার অভিযোগ এসেছে তা ভয়াবহ । এগুলো শক্তিশালী গুপ্তচর সরঞ্জাম যা মোবাইল যোগাযোগে আড়ি পাতার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ডিভাইসগুলো বহনযোগ্য যা গোপনে জিএসএম নেটওয়ার্কে অনুপ্রবেশ করতে পারে। মোবাইল ব্যবহারকারীর আইএমএসআই অর্থাৎ ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল সাবস্ক্রাইবার আইডেনটিটি হস্তগত করে নেয়। ডিভাইসটি চালু করা হলে তা একটি নির্দিষ্ট এলাকায় মোবাইল ফোনগুলোর কাছে একটি সিগন্যাল পাঠায়। মোবাইলগুলো ওই সিগন্যাল বৈধ মোবাইল নেটওয়ার্ক থেকে আসা বলে মনে করে। এ প্রক্রিয়ায় আইএমএসআই ক্যাচার ব্যবহার করে নির্দিষ্ট একটি এলাকা থেকে হাজার হাজার মোবাইল ফোনের তথ্য সংগ্রহকরা সম্ভব। র‌্যাবের মতো একটি সংস্থার হাতে এ ধরনের প্রযুক্তি আসা চরম উদ্বেগের কারণ বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

সর্বশেষ তারা নিশ্চিত হয় জার্মানির ইউরোপাল এগ্রি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে র‌্যাবের জন্য গোয়েন্দা সরঞ্জাম সরবরাহের আদেশ দেয়া হয়েছে। তারা সুইজারল্যান্ডের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান নিওসফট থেকে নেয়া গোয়েন্দা সরঞ্জাম র‌্যাবের কাছে সরবরাহ করবে।

প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনালের দাবি বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি অবনতির দিকে। দেশটির নাগরিক সমাজ ও মিডিয়া সরকারি অভিযানের শিকার হয়েছে। সরকার সমালোচকদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শীর্ষস্থানীয় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার পেছনে র‌্যাবের ভূমিকার কথা উল্লেখ করেছে। প্রতিবাদকারীদের বেআইনি আর নৃশংসভাবে মারধর করা, শারীরিক নির্যাতন আর ঢালাওভাবে গ্রেপ্তার করার একাধিক রিপোর্ট এসেছে।

তারা জানায়, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের তথ্য অনুযায়ী ২০০৪ সালে র‌্যাব গঠনের পর থেকে এ পর্যন্ত র‌্যাব সদস্যদের দ্বারা ৭০০’রও বেশি বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড- সংঘটিত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য উভয় দেশই চলমান মানবাধিকার লঙ্ঘনে র‌্যাবের ভূমিকা আলাদাভাবে উল্লেখ করেছে। র‌্যাবের ওপর স্বতন্ত্র তদন্ত চালানোর জন্যও সুপারিশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

তারা এ ধরনের নজরদারি সরঞ্জামের রপ্তানি নিয়ন্ত্রণে কঠোর অনুমোদন ব্যবস্থা প্রনয়নের দাবীও তুলেছে।

‘প্রাইভেসি ইন্টারন্যাশনাল’ ও‘কোয়ালিশন এগেইনস্ট আনলফুল সার্ভিলেন্স এক্সপোর্ট’ এমন একটি কার্যকর ব্যবস্থা স্থাপন করতে চায় যাতে এধরণের গোয়েন্দা সরঞ্জাম রপ্তানি অনুমোদনের আগে সীমাবদ্ধতা ও মানবাধিকার মানদণ্ড সঠিকভাবে বিবেচনা করা হয়।

প্রিয়.কম

প্রিয়.কম

এ জাতীয় আরও খবর