সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জে সর্বহারা ও পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির পরিচয়ে ১০ ব্যক্তির কাছে চাঁদা দাবি

Crime1নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে “সর্বহারা” এবং “পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি’র পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ১০ ব্যক্তির কাছে মোবাইল ফোনে মোটা অংকের টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। চাঁদা না দিলে তাদের পরিবারের সদস্যদেরকে অপহরনের হুমকি দেওয়া হয়।
এসব ঘটনায় নিরাপত্তা চেয়ে গত রবিবার রাতে রাতে আশুগঞ্জ থানায় পৃথক ৫টি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।
এলাকাবাসী ও চাঁদাদাবির শিকার পরিবারের লোকজন জানান,  গত ৪ ফেব্রুয়ারি আশুগঞ্জ ফিরোজ মিয়া কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মোঃ শামছুল আলম শাহীন ও ব্যবসায়ী মোঃ আমজাদ হোসেনকে গ্রামীণ এবং এয়ারটেল মোবাইল ফোনের ৩টি নম্বর থেকে একাধিকবার করে ফোন করে নিজেদেরকে “সর্বহারা” পার্টির কমান্ডার মেজর (অবঃ) জিয়া উদ্দিন এবং সহকারি কমান্ডার কামাল পাশা পরিচয় দিয়ে  তাদের প্রত্যেকের কাছে ১০ লাখ টাকা করে চাঁদা দাবি করা হয়। বিভিন্ন মামলায় দেশের বিভিন্ন কারাগারে আটক তাদের নেতা-কর্মীদের জামিনের টাকা জোগাড় করতে এই টাকা প্রয়োজন বলে ফোনে তাদেরকে বলা হয়।
গত ৬ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার ব্যবসায়ী মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুল্লাহ আল বাকী, চাকুরীজীবি আব্দুস সোবহান ও ফিরোজ মিয়া কলেজের উপাধ্যক্ষ আহমেদ উল্লাহ খন্দকারের কাছে পৃথক সময়ে  মোবাইল ফোনে  তাদের কারো কাছে ১০ লাখ, কারো কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। ৭ ফেব্রুয়ারি ব্যাংকার মোঃ শফিকুল ইসলাম, ব্যবসায়ী বুলবুল সিকদারের কাছে একই কায়দায় বাংলা লিংকের নম্বর থেকে ফোন দিয়ে চাঁদা দাবি করা হয়।
সর্বশেষ গত ৮ ফেব্রুয়ারি আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি সেলিম পারভেজের কাছে দু’দফায় বাংলালিংক এবং গ্রামীণ ফোনের দুটি নম্বর থেকে ফোন দিয়ে নিজেকে “পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি’র” আঞ্চলিক কমান্ডার কামাল পাশা পরিচয় দিয়ে ১০ লাখ টাকা করে চাঁদা দাবি  করা হয়।
এদিকে  আবদুস সোবহান সরকারি চাকুরী করেন  এ কথা জানার পর তার কাছে পুনরায় ফোন করে তার চাঁদার পরিমান কমিয়ে ৫‘হাজার টাকা দেয়ার কথা বলে একটি ‘বিকাশ’ একাউন্ট নম্বর দেয়া হয়। উপর্যপুরি চাঁদা দাবির ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক বিরাজ করছে।
এসব ঘটনায় উপাধ্যক্ষ আহম্দে উল্লাহ খন্দকার, প্রেসক্লাবের সভাপতি সেলিম পারভেজ, সহকারি অধ্যাপক শামসুল আলম, ব্যাংকার শফিকুল ইসলাম ও ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল বাকী বাদি হয়ে (হুমকি দেওয়া মোবাইল নম্বর উল্লেখ করে) গত রবিবার রাতে আশুগঞ্জ থানায় পৃথক ৫টি ডিজি করেছেন।
এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ সেলিম পারভেজ বলেন, গত রবিবার সকাল ১০টায় ও বিকেল ৫টায় দুটি মোবাইল নম্বর থেকে তার কাছে নিজেকে পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক কমান্ডার  কামাল পাশা পরিচয় দিয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। পরে ফোনটি তার বস দলের কেন্দ্রীয় কমান্ডার মেজর (অবঃ) জিয়া উদ্দিনের কাছে দেওয়া হয়। তখন জিয়া উদ্দিন পরিচয়দানকারী তাকে বলেন, দেশের বিভিন্ন জেলার কারাগারে তাদের বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী অন্তরীন আছেন। তাদের জামিনের ব্যবস্থা করতে ৬৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। তিনি সেলিম পারভেজকে ১০ লাখ টাকা দিতে বলেন, নতুবা তার বড় ধরনের ক্ষতি হবে বলে হুমকি দেন।
এ ব্যাপারে অধ্যাপক শামছুল আলম শাহীন, আব্দুল্লাহ আল বাকী ও আমজাদ হোসেন জানান, তাদের প্রত্যেকের কাছে সর্বহারা পার্টির কমান্ডার মেজর (অবঃ) জিয়া উদ্দিন এবং তার সহকারি কমান্ডার কামাল পাশা পরিচয় দিয়ে টাকা মোবাইল ফোনে মোটা অংকের টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। উপাধ্যক্ষ আহম্মেদ উল্লাহ খন্দকার বলেন, হুমকির ঘটনায় তিনি ও তার পরিবার শংকিত।
এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবু জাফর বলেন, এ ব্যাপারে হুমকির শিকার ৫জন থানায় পৃথক ৫টি জিডি করেছেন। আমরা প্রযুক্তির সহায়তায় বিষয়টির তদন্ত করছি।