সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইঁদুর মারতে গিয়ে… : সংষর্ষে আহত ৩০

6523_1 (1)ডেস্ক রির্পোট : তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে শিশু ও নারীসহ অন্ততঃ ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল ও বিভিন্ন কিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় উভয় পক্ষের ঘরবাড়ী অটো রিকশা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচর ও লুটাপাটের ঘটনা ঘটেছে অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের। খবর পেয়ে পালং মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
পালং থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের আঃ রাজ্জাক মালের ছেলে জসিম মাল গতকাল সোমবার দুপুরে ইঁদুরের উপদ্রব থেকে ফসল বাচাতে তার গম ক্ষেতে স্থানীয় লোকজনদের না জানিয়ে মুড়িতে কিটনাশক জাতীয় বিষ মাখিয়ে ক্ষেতে প্রয়োগ করে। এতে পার্শ্ববর্তী বাড়ির রুহুল আমিন মোল্যা ও জাহাঙ্গীর মোল্যার ৬টি হাঁস ও একটি মূরগী বিষ মিশ্রিত মুড়ি খেয়ে মারা যায়। ঘটনাটি স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের জানানো পর আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার সময় এ নিয়ে আঃ রাজ্জাক মালের বাড়ীতে সালিশ দরবার বসে। সালিশগন ক্ষেতের মালিক জসিম মালকে ১হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য করে। তাৎক্ষনিক ক্ষতিগ্রস্ত রুহুল আমিন ও জাহাঙ্গীর ক্ষতিপূরনের টাকা দাবী করলে জসিম মাল সালিশদের রায় অমান্য করে টাকা দিতে অস্বিকৃতি জানায়। এনিয়ে প্রথমে সালিশ সাহজাহান মোল্যার সঙ্গে জসিম মালের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উত্তেজিত দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্র রামাদ, সেনদা, ডাল,সরকি ও লাঠিসোটা নিয়ে ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষে নুরুজ্জামন মোল্যা (৩২), রাসেদ মোল্যা (২৫),শাহজাহান মোল্যা (৪০)সামসুল হক চৌকিদার (৫৫), নুরজাহান বেগম (৩৫) রুহুল আমিন মোল্যা (৪৫), শাওন মোল্যা (১৬), রুহুল কুদ্দুছ মোল্যা (৩৭)সিরাজ মোল্যা (৫০), রুবেল মোল্যা (২২ মোরশেদ মোল্যা (২০), আবুল হোসেন ঢালী (৩০), মাসুম মোল্যা (২৮), আলেয়া বেগম (৩৫), সানজিদা আক্তার (৬), রাসেল মাল (২৫), মান্নান মাল (৫৭), শিল্পি আক্তার (৪০), রাজ্জাক মাল (৭০)
সাফিয়া বেগম (৫০), শাহিনুর বেগম, (৩০) ফরিদ মাল (৫০), জসিম মাল (৪৫), শাহিনা আক্তর (১৭) মোক্তার মাল (৫৫), হাবিব মাল (৬৫)সহ অন্ততঃ ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল ও বিভিন্ন কিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।
সংঘর্ষ চালাকালে রুহুল আমিন মোল্যার ১টি অটো রিকশা একটি বসতঘর ও প্রতিপক্ষ ফরিদ মালের মুদি দোকান, একটি বসতঘর, রাজ্জাক মালের একটি ও মান্নান মালের একটি বসতঘর ভাংচুর ও লুটপাট করার ঘটনা ঘটে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্তরা। খবর পেয়ে পালং মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। 
আহত রুহুল আমিন মোল্যা বলেন, জসিম মাল গতকাল তার গম ক্ষেতে বিষ দেয়ার কারনে সেই বিশ মেশানো মুড়ি খেয়ে আমাদের হাস মুরগী মারা যায়। আমরা এ ঘটনা স্থানীয় মুরব্বীদের কাছে জানালে তারা শালিশ করে সামান্য কিছু টাকা জরিমানা করলে সেই রায় জসিম মাল অমান্য করে আমাদের উপর হামলা করে আমাদের অনেক লোককে কুপিয়ে আহত করেছে। 
জসিম মালের চাচা মান্নান মাল বলেন, শালিসদের সামনেই মোল্যা বাড়ির লোকজন লাঠি সোঠা রামদা, সেনদা, ঢাল সুরকি নিয়ে আমাদের বাড়িতে আক্রমন করে। অমানবিক ভাবে আমাদের বাড়ির নারী শিশুদের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। আমাদের বাড়িঘর ও দোকানপাট ভেঙ্গে লুটপাট করেছে। 
পালং মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মনিরুল ইসলাম পিপি এম বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেছি। উভয় পক্ষেই মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা গ্রহন করার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।