সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জের ২০ সহস্রাধিক চাতালকন্যার দিনকাল

chatal kolনিজস্ব প্রতিবেদক : আজ বিশ্ব নারী দিবস। কেমন আছেন ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার আশুগঞ্জের চাতালকন্যারা। তারা আজও জানিয়ে দিলেন ভাল নেই। কোনো রকমে জীবন বাঁচানোর তাগিদে বেঁচে আছেন। তারা জানেন না নারী দিবস, তারা জানেন না তাদের অধিকার, তারা জানেন না পরিবার পরিকল্পনা কি? শুধু জানেন বেঁচে থাকার তাগিদে জীবনযুদ্ধ চালাতে হবে। আর মেয়ে শিশু একটু বড় হলে তাকে বিয়ে দিয়ে বোঝা কমাতে হবে।

বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান চাল উৎপাদনকারী মোকাম হিসেবে পরিচিত ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার শিল্প ও বন্দরনগরী আশুগঞ্জ উপজেলা। চার শতাধিক চাতাল কলে নিয়োজিত ২০ সহস্রাধিক নারী শ্রমিক। যারা দিন-রাত বৃষ্টিতে ভিজে, রোদে পুড়ে ধান থেকে চাল উৎপাদনের মাধ্যমে দেশের কোটি কোটি মানুষের অন্নের যোগান দেন। সেই নারী শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে যুগের পর যুগ বঞ্চিত হয়ে আসছেন।

cccc kঅপরদিকে ঘাম ঝরা পরিশ্রমের নামমাত্র মূল্যের বিনিময়ে চাতাল মালিকরা প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা আয় করে বিত্ত-বৈভবের পাহাড় গড়ছেন।

কেমন আছেন জিজ্ঞাসা করলে তাদের নিজস্ব ভাষায় জানান, ‘হারাদিন কাম কইরা কুল দেহি না, এ সবের খবর লমু ক্যামনে।’ এ কথা তাদের অনেকেরই।

জানা যায়, চাতাল কলগুলোতে ধান সিদ্ধ করা থেকে শুরু করে চাল বস্তাবন্দী পর্যন্ত সকল কাজ করতে হয় নারী শ্রমিকদের। কিন্তু এ সমস্ত নারী শ্রমিক হাড়ভাঙা পরিশ্রম করেও ঠিকমত বেতন পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ তাদের।

চাতালকন্যারা জন্মনিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে জানেন না। মরিয়ম খাতুন (৩০) জানান, তার ৫ ছেলে ও ১ মেয়ে। জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি কি এবং তা কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা তিনি জানেন না।

chatal-2তিনি জানান, এখানকার নারী শ্রমিকদের ছেলেমেয়েরা একটু বড় হলেই চলে বাল্যবিয়ে। যার ফলে পড়ালেখা করার কোনো সুযোগ পায় না।

চাতাল কলগুলোতে শ্রমিকদের কোনো নীতিমালা না থাকায় যে যার মতো করে চালাচ্ছেন। আবার অনেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকার তাগিদে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করতে বাধ্য হচ্ছেন।

সালেহার বাড়ি নেত্রকোণা জেলায়। তিনি ২০ বছর ধরে এখানে কাজ করছেন। তার ৬ মেয়ে ও ১ ছেলে। তিনি জানান, চাতাল কলে কাজ করে প্রতি মাসে যে সামান্য পরিমাণ টাকা পাওয়া যায় তা দিয়ে দু’বেলা পেটপুরে খাওয়াই জোটে না। তার ওপর ছেলেমেয়ের লেখাপড়ার কথা চিন্তাই করাই যায় না। তার কাজের পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের দিয়েও কাজ করাতে হচ্ছে। এতে করে পরিবারটা চলছে।

তিনি চিন্তিত তার ৬ মেয়েকে কীভাবে বিয়ে দিবেন এ নিয়ে। কারণ বিয়ে দিতে গেলে প্রয়োজন মোটা অঙ্কের টাকা।

মরিয়ম বেগম বলেন, ‘দিন-রাত পরিশ্রম করে যে আয় হয় তা দিয়ে কোনো রকমে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছি। মাঝেমধ্যে অসুস্থ হলে ডাক্তার দেখানো তো দূরের কথা ওষুধ কেনার টাকাই থাকে না।’

তাদের এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য আশুগঞ্জে চার শতাধিক চাতাল কলে নিয়োজিত ২০ সহস্রাধিক নারী শ্রমিক সরকারের প্রতি ন্যূনতম মাসিক মজুরি প্রদানের জন্য চাতাল মালিকদের সমন্বয়ে একটি নীতিমালা প্রণয়নের আহ্বান জানান।
 

এ জাতীয় আরও খবর

৫-১২ বছর বয়সীরা পাবে ফাইজারের টিকা

রাশিয়ার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের ঘোষণা জি-সেভেন নেতাদের

পিকআপে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

অবসর নিয়ে ভাবছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক মরগান

হাতিয়ায় শ্বশুরবাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

‘পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার’

টাঙ্গাইলে হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

শারীরিক সম্পর্কে স্বামীর অনীহা, অভিযোগ নিয়ে থানায় গেলেন নারী

নাট-বল্টু খোলার মামলা তদন্ত করবে সিআইডি

মোবাইলে এক মেয়ের সঙ্গে কথা বলতেন ইমরান, ঝগড়াও হতো!

ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ নিষেধ শিক্ষকের

ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ