বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রাফিক সামলাবে রোবোকপ!

5beb7c68cae86a0c3c5bd29e0562f0e1-ROBOCOPSলাইফস্টাইল ডেস্ক : টেলিভিশন সিরিজ রোবোকপের কথা হয়তো অনেকেরই মনে আছে। শহরে রোবোকপের উপস্থিতিতে তটস্থ সবাই, অপরাধীদের পালানোর পথ নেই। রোবোকপের অনুপ্রেরণা থেকেই যেন ধারণাটি নেওয়া। দেখতেও অনেকটা সে রকমই। কঙ্গোর জনবহুল রাজধানী কিনশাসায় ট্রাফিক জ্যাম ও দুর্ঘটনা কমাতে চালু করা রোবট-পুলিশ বা রোবোকপ সম্পর্কে জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।

‘অনেক চালকই ট্রাফিক পুলিশের নির্দেশ মানতে চান না। কিন্তু রোবটের ব্যাপারটা আলাদা। রোবটকে আমাদের সম্মান করা উচিত।’ কিনশাসার ট্যাক্সিচালক পোরো জিদানে এভাবেই শহরের ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে চালু করা রোবট-পুলিশ সম্পর্কে বলছিলেন। নগর পুলিশের কর্মকর্তাদেরও ধারণা, নাগরিকেরা এই রোবোকপদের মেনে চলবে।

কিনশাসায় নিত্যদিনের ট্রাফিক জ্যাম সামলাতে গলদঘর্ম ট্রাফিক পুলিশ বাহিনীর নতুন সংযোজন এই রোবোকপরা অবশ্য অপরাধীদের ধাওয়া করতে পারবে না। কিন্তু পথের মোড়ে স্থাপন করা সৌরবিদ্যুচ্চালিত বিশালকায় এই রোবটগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের সিগন্যাল দেবে। শক্তিশালী ক্যামেরায় ছবি তুলে সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশ কন্ট্রোল রুমে পাঠিয়ে দেবে। যানবাহনের ভিড় ও রাস্তার প্রকৃত অবস্থা সম্পর্কে কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে সারাক্ষণ যোগাযোগ রক্ষা করবে।

কিনশাসার আবহাওয়ায় সারা বছরের রোদ-বৃষ্টি সওয়ার উপযোগী করে বানানো হয়েছে এই রোবটগুলো। স্বয়ংক্রিয়ভাবে দুই হাত ওঠানামা করা, কাঁধ ও ঘাড় ঘুরিয়ে এদিক-সেদিক দেখা, লাল-হলুদ-সবুজ আলোসহ সিগন্যাল দেওয়া ও ছবি ধারণ করা—সবই পারে এই রোবোকপরা।

মঙ্গলবার কিনশাসায় এই রোবোকপ বাহিনীর আধুনিক সংস্করণের তিনটি রোবট স্থাপন করা হয়। অবশ্য কিছুটা কম সক্ষমতার এমন দুটি রোবট বছর দেড়েক আগে থেকেই কিনশাসায় বসানো হয়েছিল। নতুন রোবটগুলোর নামও আছে। তামুকে, মাওয়ালুকে ও কিসাঙ্গা নামের এই রোবটগুলোর প্রতিটির নির্মাণ ব্যয় ২৭ হাজার ৫০০ ইউএস ডলার।

কঙ্গোর নারী প্রকৌশলীদের একটি সংগঠন উইমেনস টেকনোলজি এই রোবটগুলোর নির্মাতা। সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট থেরেসি ইজায়ি বলেন, ‘আমাদের নগরে যে কেউই অপরাধ করে দৌড়ে পালিয়ে যেতে পারে। বলা হয় যে কেউই তাকে দেখেনি। কিন্তু এই এখন রাত-দিন সব সময়ই রাস্তায় নজর রাখবে এই রোবটগুলো। আর প্রতি মুহূর্তের ছবিও তুলতে পারবে। ফলে উন্নত দেশগুলোর মতো এখানেই আইন অমান্যকারী ব্যক্তিদের জরিমানার মুখোমুখি হতে হবে।’

৯০ লাখ মানুষের শহর কিনশাসা ছাড়াও দক্ষিণের প্রদেশ কাতাঙ্গায় এমন পাঁচটি রোবটকে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে কাজে লাগানো হয়েছে। থেরেসি ইজায়ি জানিয়েছেন, কঙ্গোর মহাসড়কগুলোয় দায়িত্ব পালনের জন্য এমন ৩০টি রোবট নিয়োজিত করতে সরকারকে প্রস্তাব দিয়েছেন তাঁরা।

কিনশাসার পুলিশ-প্রধান জেনারেল সেলেস্টিন বানায়ামা এই রোবটগুলোকে পুলিশের জন্য দারুণ সম্পদ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি মনে করেন, দুর্ঘটনাপ্রবণ নগরের ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে কাজে লাগবে এগুলো। সরকারি হিসাবে কিনশাসায় ২০০৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২ হাজার ২৭৬ জন নাগরিক নিহত হয়েছে। কিন্তু কিনশাসার গভর্নর আন্দ্রি কিমবুতা মনে করেন, এই রোবটগুলো ট্রাফিক পুলিশের সব কাজ করতে সক্ষম হবে না। তাঁর ভাষায়, এগুলো তো আর অপরাধীদের ধাওয়া করে ধরতে পারবে না। কিমবুতা বলেন, ‘কঙ্গোর প্রকৌশলীদের আমাদের স্বাগত জানানো উচিত, কিন্তু পুলিশকেও পুলিশের কাজ চালিয়ে যেতে হবে।’