বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোন মুসলমান কখনো সন্ত্রাসী হতে পারে না : হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী

2013-01-01-00.00.00-129আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নিউইয়র্কে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র কেন্দ্রীয় সম্মেলনে আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী : ইসলামে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের স্থান নেই, কোন মুসলমান কখনো সন্ত্রাসী হতে পারে না//
 
সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি:: নিউইয়র্কে যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ এর কেন্দ্রীয় সম্মেলন। স্থানীয় সময় গত রোববার ব্রঙ্কসের গোল্ডেন পেলেস বেঙ্কুইট হলে এ উপলক্ষে আলোচনা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সহ সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুল কাশেম ইয়াহইয়ার পরিচালনায় এবং আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সভাপতি মাওলানা মঈন উদ্দীন মুহাদ্দিসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল ইসলাহর সভাপতি, শামসুল উলামা আল্লামা ফুলতলী (রা:) এর সন্তান বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী।
সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সাবেক সভাপতি আল্লামা জালাল সিদ্দিক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম।
মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সহ সভাপতি ডা. আবদুল মালেক, আলহাজ্ব ইসমাইল হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার আহমদ আলী খান, আল ইসলাহ মসজিদের  ইমাম মাওলানা আবু নছর কুতুবুজ্জামান, আঞ্জুমানে আল ইসলাহ মিশিগানের সভাপতি হাফিজ মাওলানা শিয়াব উদ্দিন খান, আঞ্জুমানে আল ইসলাহ নিউইয়র্ক স্টেটের সভাপতি মাওলানা শাব্বির আহমেদ, আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ফিলাডেলফিয়ার সভাপতি মাওলানা আবু জাফর ও সেক্রেটারী মাওলানা রায়হান চৌধুরী।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, ইসলাম শান্তি ও মানবতার ধর্ম।  ইসলামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের স্থান নেই। কোন প্রকৃত মুসলমান কখনো সন্ত্রাসী হতে পারে না। সন্ত্রাস করতে পাওে না। যারা ইসলামের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদে লিপ্ত তারা ইসলামের শত্রু। তিনি বলেন, ইসলামের শান্তি ও সহমর্মিতার শিক্ষা সবার সামনে তুলে ধরলে ইসলাম সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা দূর হবে। ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা কথায় নয় কাজে এবং নিজের জীবনে বাস্তবায়নের মাধ্যমে তুলে ধরতে হবে।
প্রধান অতিথি বলেন, ইসলাম ও জিহাদের ছদ্মনামে নিরপরাধ মানুষ হত্যা, আইন আমল মছআলার ফতোয়ার বাড়াবাড়ি, জ্ঞান-বিজ্ঞান প্রযুক্তি উন্নয়ন রুদ্ধকরণ, খোদার আইনের ছদ্মনামে নিজেদের ফেরাউনি প্রভুত্ব সৃষ্টিকারী বাতেল ফেরকা ইসলাম ও মুসলিম মিল্লাত এবং সমগ্র মানবতাকে মহাবিপন্ন করে তুলেছে।
আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, কতিপয় আলেম নামধারী ব্যক্তি মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপনকে বিদাত হিসেবে উল্লেখ করে তা পালন হতে বিরত থাকার জন্য মুসলমানদের মনগড়া তথ্য প্রদান করছেন। তিনি বলেন, স্বয়ং আল্লাহ ও তার ফেরেশতারা যেখানে মহানবীর প্রতি দুরুদ ও সালাম পেশ করেন, সেখানে কতিপয় ফেৎনাবাজ আলেম মিলাদ-কিয়ামকে বিদাত বলে অপপ্রচার করার দৃষ্টতা দেখাচ্ছে।
তিনি ইসলাম অবমাননাকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইন প্রনয়ণ করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের নিকট জোর দাবি জানান।
তিনি বলেন, মহানবী (সা.)- কে সৃষ্টি করা না হলে আল্ল­াহ কিছুই সৃষ্টি করতেন না। মহান আল্লাহ তায়ালা সমগ্র বিশ্বজগতের রহমত স্বরূপ বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে এই জগতে প্রেরণ করেন। আজকের অশান্ত ও দ্বন্দ্ব-সংঘাতময় বিশ্বে প্রিয়নবী (সা.) এর আদর্শ  অনুসরণের মাধ্যমেই শান্তি ও কল্যাণ নিশ্চিত হতে পারে।
প্রধান অতিথি যুক্তরাষ্ট্রে সেন্ট্রাল মসজিদ ও টাইটেল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য আঞ্জুমানে আল ইসলাহর কর্মকর্তাসহ উপস্থিত সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
বক্তারা বলেন, বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর শিক্ষা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয় ও অনুকরণীয়। মহানবী (সা.) এর সুমহান আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই রয়েছে প্রতিটি মানুষের অফুরন্ত কল্যাণ ও সফলতা। মাহফিলে বক্তারা মানব জীবনের চলার পথে ঈমান, আকিদা, দৈনন্দিন জীবনে ইসলামের নির্দেশনার গুরুত্ব সম্পর্কে সারগর্ভ আলোচনা করেন।
মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ গিয়াস উদ্দীন, মূলধারার রাজনীতিক আবদুস সহীদ, পার্কচেস্টার জামে মসজিদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ ইয়াহইয়া মেন্দী, সুনামগঞ্জ সমিতির সাবেক সভাপতি আফতাব আলী, মাওলানা মাশহুদ ইকবাল, মাওলানা সৈয়দ সাজিদুল হক, মাওলানা আলাউদ্দিন আকঞ্জি, মাওলানা আবু জাফর, পার্কচেস্টার জামে মসজিদের খতীব মাওলানা মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম, হাফেজ জমসেদ হোসেন, মাওলানা শিহাব উদ্দিন আহমেদ, হাফেজ এবাদুর রহমান চৌধুরী, হাফেজ শাহান শাহ ইয়াহইয়া, ইমাম কাজী কায়্যুম, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফরিদ উদ্দিন, হাফিজ মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা শরিফ উদ্দিন,আবদুল বাছির খান, সৈয়দ খোবায়ের আলী, হাফিজ আবদুল কাদির প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মোহাম্মদ মামুন নাছির উদ্দিন। নাতে রাসুল পরিবেশন করেন নুরুর রহমান মামুন।
আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সদস্যরা ছাড়াও মাহফিলে নিউইয়র্কসহ পাশ্ববর্তী বিভিন্ন স্টেট থেকে বিপুল সংখ্যক মুসল্লী অংশ নেন।
পরে মুসলিম উম্মা ও বিশ্ব মানবতার শান্তি কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করা হয়।