রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনুশোচনার বালাই নেই ধর্ষকের

ffed4b14143360ddf38813d392741307-rapeআন্তর্জাতিক ডেস্ক : একজন ভদ্র মেয়ে কখনো রাত নয়টার দিকে ঘুরে বেড়ায় না। ধর্ষণের জন্য একটা ছেলে যতটা দায়ী, একজন মেয়ে তার চেয়ে অনেক বেশি দায়ী। মেয়েদের কাজ হলো ঘরের কাজ করা, সংসার সামলানো। রাতে ডিসকো নাচে যাওয়া ও বারে ঘুরে বেড়ানো, আজেবাজে কাজ করা, ভুলভাল পোশাক পরা তাঁদের কাজ নয়। এ ধরনের মেয়েদের শিক্ষা দেওয়ার অধিকার অন্যদের আছে। কেবল ২০ শতাংশ মেয়ে ভালো।’

২০১২ সালের ডিসেম্বরে নয়াদিল্লিতে চলন্ত বাসে মেডিকেলছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত অন্যতম আসামি মুকেশ সিং ব্রিটিশ তথ্যচিত্র নির্মাতা লেসলি উডউইনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এভাবেই ধর্ষণের বিষয়ে তাঁর মতামত প্রকাশ করেন। গতকাল মঙ্গলবার বিবিসির ম্যাগাজিনে এ সাক্ষাৎকারটি প্রকাশ করা হয়।

এতে মুকেশের মধ্যে অনুশোচনার কোনো লেশ ছিল না। বরং তিনি বুঝিয়েছেন যেন ওই অপকর্ম করে ঠিক কাজটিই করেছেন।

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর লাইফ অব পাই সিনেমা দেখে এক ছেলেবন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ফিরছিলেন ওই মেডিকেলছাত্রী। রাত সাড়ে আটটার দিকে একটি বাসে ওঠেন তাঁরা। এতে ছয়জন লোক ছিল। এর মধ্যে একজন কিশোর। তারা মেয়েটির সঙ্গে থাকা ছেলেবন্ধুকে মারধর করে। পরে পালাক্রমে সবাই মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। এরপর লোহার যন্ত্রপাতি দিয়ে মেয়েটিকে ভয়ানক জখম করে। ঘটনার পর মেয়েটি ও ছেলেটিকে বাস থেকে ছুড়ে পালিয়ে যায় তারা। কয়েক দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর মেয়েটি মারা যান। এ ঘটনায় শুধু দিল্লি নয়, ভারতজুড়ে মেয়েদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনায় জড়িত ছয়জনই গ্রেপ্তার হয়। কিশোর অপরাধীকে সংশোধন কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। অন্য পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন দেশটির আদালত। এ ঘটনার অন্যতম আসামি ও মুকেশ সিংয়ের ভাই রাম সিং তিহার কারাগারে থাকা অবস্থায় মারা গেছেন।

সাক্ষাৎকারে মুকেশ বলেন, ধর্ষণের সময় তাঁর (মেডিকেলছাত্রী) লড়াই করা উচিত হয়নি। নিশ্চুপ থেকে ধর্ষণ হতে দেওয়া উচিত ছিল। তাহলে তাঁরা (ধর্ষণে জড়িত পাঁচজন) ধর্ষণের পর তাঁকে ফেলে চলে যেতেন, কেবল সঙ্গে থাকা যুবককে মারধর করা হতো।

এ অপরাধের জন্য শাস্তি হিসেবে দেওয়া মৃত্যুদণ্ড প্রসঙ্গে শীতল কণ্ঠে মুকেশ বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ড মেয়েদের জন্য পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক করে তুলবে। আমরা যেমন মেয়েটিকে ধর্ষণের পরই ছেড়ে দিয়েছিলাম, এখন আর কেউ তা করবে না। এখন ধর্ষণের পর মেয়েটিকে হত্যা করা হবে। আগে ধর্ষণের পর বলা হতো, “ওকে ছেড়ে দাও, ও কাউকে কিছু বলবে না।” এখন যখন কেউ ধর্ষণ করবে, বিশেষ করে সন্ত্রাসী কায়দায়, তাঁরা মেয়েটিকে জানে মেরে ফেলবে।’

প্রামাণ্যচিত্রটি আগামী ৮ মার্চ বিশ্ব নারী দিবসে বিবিসি ফোর ও ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভিতে একই দিন স্থানীয় সময় রাত নয়টায় সম্প্রচার হওয়ার কথা।


এ সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হওয়ার পর ভারতে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। তিহার জেল কর্তৃপক্ষের কাছে দেশটির সরকার কৈফিয়ত চেয়েছে, কেন প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতাকে এ সাক্ষাৎকার নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হলো। ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তিহার জেলের মহাপরিচালক অলোক কুমার বর্মার কাছে জরুরি ভিত্তিতে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য চেয়েছেন।


এ ছাড়া নারীদের শালীনতাকে অপমান করা এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অপমানের অভিযোগে দিল্লি পুলিশ দুটি মামলা করেছে।


দিল্লি পুলিশ-প্রধান বি এস বশ্যি ভারতের গণমাধ্যমকে এই সাক্ষাৎকারটি সম্প্রচার না করার আহ্বান জানিয়েছেন। সাক্ষাৎকারটি সম্প্রচার করতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আদেশের জন্য আজ দিল্লির মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের দ্বারস্থ হবে পুলিশ।

ধর্ষণের শিকার হয়ে নিহত ওই মেডিকেলছাত্রীর মা-বাবাও মুকেশ সিংয়ের এসব বক্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

এদিকে প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা লেসলি উডউইন জানিয়েছেন, সাক্ষাৎকারটি নেওয়ার আগে তিনি তিহার জেলের মহাপরিচালক বিমলা মেহরার কাছ থেকে অনুমতি নিয়েছিলেন। তাঁর ভাষ্য, নারীদের প্রতি পুরুষের মনোভাব উন্মোচন করাই ছিল তাঁর উদ্দেশ্য। এই সাক্ষাৎকারে উত্তেজনাকর নেই বলে তিনি দাবি করেছেন।