বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অভিজিৎ রায় হত্যাকান্ডে গ্রেপ্তারকৃত ফারাবীর বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ॥ মেধাবী ছাত্র হিসেবেই তাকে চিনত এলাকাবাসী

SAMSUNG CAMERA PICTURESনিজস্ব প্রতিবেদক : বিজ্ঞান-লেখক ও “ মুক্তমনা” ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা অভিজিৎ রায় হত্যাকান্ডে গ্রেপ্তারকৃত শফিউর রহমান ফারাবীর বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের কালাশ্রী পাড়ায়। কালাশ্রীপাড়ায় ফারাবীর পৈতৃক বাড়ির নাম “রহমান মঞ্জিল” (বাড়ি নং- ৫৮১)।
ফারাবী গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে তার সম্পর্কে এলাকাবাসীর কৌতুহল বাড়তে থাকে। তবে এলাকাবাসী তাকে তেমন  চিনতোনা, আর যারা চিনতেন তারা তাকে একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবেই জানতেন।
এলাকাবাসী জানান, ফারাবীর বাবা-চাচারা ৪ ভাই। তার বাবা ফেরদৌসুর রহমান সবার বড়। তিনি চাকুরীর সূত্রে পরিবার পরিজন নিয়ে মৌলভী বাজার জেলায় বসবাস করতেন। এক চাচা মিজানুর রহমান ব্রাহ্মণবাড়িয়া কৃষি ব্যাংকের কর্মকর্তা। আরেক চাচা সাইফুর রহমান সফর দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ এবং ছোট চাচা নাইমুর রহমান ঢাকায় সমবায় কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরী করেন।
এলাকাবাসী বলেন, ফারাবীর বাবার চাকুরির কারনে পরিবার পরিজন নিয়ে মৌলভী বাজার জেলায় বসবাস করতেন। ফারাবীর বাবা  ছিলেন বিআরডিবির উপ-পরিচালক। ২০১০ সালে ফারাবীর বাবা মারা যান। এর আগে  গত ১৯৮৮ সালে মারা যান ফারাবীর মা। ফারাবীর মা মারা যাওয়ার পর তার বাবা আরেকটি বিয়ে করেছিলেন। ফারাবীর সৎ মা এবং এক সৎ বোন রয়েছে। বোনটি মেডিক্যাল কলেজে পড়ে।
এলাকাবাসী জানান, ফারাবীর চাচা মিজানুর রহমানের ২ মেয়ে, অপর চাচা নাইমুর রহমানের ১ মেয়ে এবং ফারাবীর ১ সৎ বোন আছে। এই পরিবারে ৪টি মেয়ে থাকলেও ছেলে শুধু ফারাবী। চাচাদের কোন ছেলে না থাকায় ফারাবী ছিলেন পরিবারের খুব আদরের। 
এলাকাবাসী জানান, অভিজিৎ হত্যাকান্ডে ফারাবী গ্রেপ্তার হওয়ায় তার সম্পর্কে এলাকাবাসীর কৌতুহল বাড়তে থাকে। 
গত সোমবার বিকেলে ফারাবীদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সুনসান পরিবেশ। বাড়ির আশপাশের ঘর গুলোর দরজাও ভেতর থেকে বন্ধ। বাড়িতে গিয়ে ডাক দেওয়ার পর দরজা খুলে বেড়িয়ে আসেন ফারাবীর চাচী রিনা বেগম। তিনি  বলেন, ফারাবীর দাদার বাড়ি নাসিরনগর উপজেলার গোকর্ণ ইউনিয়নের নূরপুর গ্রামে। দেশ স্বাধীন হওয়ার আগেই তার দাদা কাষ্টমস সুপারিনটেনডেন্ট ওবায়দুর রহমান এই বাড়িটি নির্মান করেন।
 তিনি বলেন, এটা ফারাবীর দাদার বাড়ি হলেও সে এখানে কখনোই নিয়মিত থাকে নি। মাঝে মধ্যে এখানে আসতো। তিনি বলেন ফারাবী তার বংশের এক মাত্র ছেলে। ফারাবীর মা- বাবা বেঁচে নেই, তবে সৎ মা এবং এক সৎ বোন আছে। তারাও এখানে থাকেনা।
চাচী  রিনা বেগম আরো বলেন, ফারাবী কখনো বাড়িতে আসলেও আমাদের সাথে খুব একটা মিশতোনা। তিনি বলেন, সে আমাদের বংশের এক মাত্র পুত্র সন্তান। আমরা তাকে নিয়ে আমরা অনেক আশাবাদি ছিলাম। কিন্তু বুঝতে পারছিনা সে কিভাবে এমন  হল। 
ফারাবীর চাচা মিজানুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ফারাবী যদি এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকে তাহলে অবশ্যই তার শাস্তির দাবি জানাই। তিনি বলেন, ফারাবি নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন “হিজবুত তাহরি”র সাথে যুক্ত ছিল। প্রথমবার গ্রেপ্তার হওয়ার পর জামিনে মুক্তি পেলে তাকে এ পথ থেকে ফিরে আসার কথা বললে সে শুধু হাসত আর বলতো “আপনি যে কি বলেন চাচা”! মিজানুর রহমান আরো বলেন, ফারাবী ছিল শান্ত স্বভাবের, সে একজন মেধাবী ছাত্র।
ফারাবীদের প্রতিবেশি দুলাল মিয়া বলেন, এলাকায় খুব কম আসতো ফারাবী। আসলে সে এলাকার মানুষের সাথে ইসলাম নিয়ে কথা বলতেন। তিনি বলেন, ফারাবী ছোটবেলায় মেধাবী ছাত্র ছিলেন। আমার জানা মতে সে পঞ্চম এবং অষ্টম শ্রেণীতে বৃত্তি পেয়েছে। তবে এলাকার বেশিরভাগ মানুষ তাকে চেনেনা। 

 

এ জাতীয় আরও খবর