শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অপহরনের ১১ ঘন্টা পর সাবেক পুলিশ সদস্য উদ্ধার ॥ মহিলা গ্রেপ্তার

B Baria Mapনিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাউতলী থেকে অপহরনের ১১ ঘন্টা পর শহরের মেড্ডা এলাকার কোকিল টেক্সটাইল মিল থেকে পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত সদস্য জহিরুল আলমকে-(৫২) উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় অপহরণকারী চক্রের সদস্য তাছলিমা আক্তার-(৩৫) নামে এক মহিলাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গত রবিবার সন্ধ্যায় তাকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ ও অপহৃতের পরিবারের লোকজন জানান, আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের ছতুরা শরীফ গ্রামের সাবেক পুলিশ কনস্টেবল জহিরুল আলম ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাউতলী গ্রামে ভাড়া থাকেন।
গত  রবিবার সকাল ৬টার দিকে কাউতলি স্টেডিয়ামের সামনে থেকে তাকে মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে যায় অপহরণকারীরা। পরে তাকে নিয়ে যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার মেড্ডা গ্রামের কোকিল টেক্সটাইল মিলের মধ্যে। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে অপহরণকারীরা জহিরুল আলমের মোবাইল ফোন থেকে তার মেয়ের মোবাইল ফোনে ফোন করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবি করে। বলা হয়, জহিরুল আলমকে কোকিল টেক্সটাইল মিলের ভেতরে রাখা হয়েছে। বিকেল ৪টার মধ্যে বিকাশের মাধ্যমে দাবিকৃত টাকা না পাঠালে তাকে হত্যা করা হবে। অপহরণকারীদের দাবি মোতাবেক  দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জহিরুলের মেয়ে দু’টি মোবাইল নম্বরে  বিকাশের মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা পাঠায়। বিকেল ৪টার দিকে অপহরণকারীরা জহিরুল আলমকে মুক্তি না দিয়ে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে দেয় এবং তাদের দলের সদস্য তাছলিমা আক্তারের সাথে জহিরুল আলমের কিছু আপত্তিজনক ছবি তুলে ও ভিডিওচিত্র ধারণ করে।
বিকেল ৫টার দিকে জহিরুল আলমের পরিবারের লোকজন সদর মডেল থানায় যোগাযোগ করলে পুলিশ কোকিল টেক্সটাইল মিল ঘেরাও করে। পুলিশের অবস্থান টের পেয়ে অপহরণকারীরা পুনরায় জহিরুল আলমের মেয়েকে ফোন করে বলে, কোকিল টেক্সটাইল এলাকা থেকে পুলিশ না চলে গেলে তার বাবাকে মেরে ফেলা হবে।
উদ্ধার অভিযান পরিচালনাকারী সদর থানার এস.আই প্রেমধন মজুমদার জানান, অপহরণকারীদের কথা মতো পুলিশ কৌশলগত কারণে একটু দুরে সরে গেলে অপহরণকারীরা জহিরুল আলমকে মিলের মহাব্যবস্থাপকের কক্ষে রেখে বাইরের দিক থেকে তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। পরে তার চিৎকারে পুলিশ সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে এবং অপহরণকারী চক্রের সদস্য তাছলিমাকে গ্রেপ্তার করে।
উদ্ধার হওয়া জহিরুল আলম থানায় সাংবাদিকদের জানান, দুপুর ১২টায় টাকা পাঠানোর আগে তাকে প্রচন্ড মারধর করা হয়। টাকা পাঠানোর পর তাকে মারধর না  করে তাছলিমার সাথে আপত্তিকর ছবি তুলতে বাধ্য করে। পরে তাকে বাইরের দিক থেকে তালা মেরে অপহরণকারিরা পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকুল চন্দ্র বিশ্বাস  বলেন, অপহরণের ঘটনায় উদ্ধার হওয়া জহিরুল আলমের স্ত্রী মনিরা আলম ৩জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪জনের নাম উল্লেখ করে রাতের বেলায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। গতকাল সোমবার সকালে অপহরণ চক্রের সদস্য তাসলিমাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তিনি বলেন, অপহরণকারীদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এ জাতীয় আরও খবর