বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাতেকলমে আলোকে বোঝার কর্মশালা “আলোর ঝিলিক” অনুষ্ঠিত

Alor-jhilikপ্রযুক্তি ডেস্ক : শনিবার সকাল ১১টায় স্কলাস্টিকা স্কুলের উত্তরা ক্যাম্পাসে এবং বিকেল ৪টায় বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির (এসপিএসবি) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে “আলোর ঝিলিক” (Spark of Light) নামে আলোর বিভিন্ন পরীক্ষণের উপর দুটি কর্মশালা। আন্তর্জাতিক আলোর বছরের আয়োজনের অংশ হিসেবে এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

স্কলাস্টিকা স্কুলে চলমান বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন আয়োজিত বিজ্ঞান মেলায় এসপিএসবির পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয় আলোর ঝিলিকের একটি বিশেষ পর্ব। পাশাপাশি এসপিএসবির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় আলোর ঝিলিকের আরেকটি পর্ব। প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী এই আয়োজন দুইটিতে হাতেকলমে দেখানো হয়েছে আলো নিয়ে মজার মজার সব পরীক্ষা। আলোর প্রতিফলন, প্রতিসরণ, বিক্ষেপণ, পোলারায়ন, ব্যতিচারসহ আলোর নানা ধর্ম বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বুঝানো হয়েছে। এছাড়া সাধারণ ব্যবহার্য জিনিষ দিয়ে বানানো হয় পেরিস্কোপ ও ক্যালাইডোস্কোপ।

এছাড়া লেজার, অপটিক্যাল ফাইবার, নিউটনের রিং, প্রিজমসহ মজার সব উপকরণের মাধ্যমে তুলে ধরা হয় আলোর বিভিন্ন ধর্ম এবং বৈশিষ্ট্য। প্রতিটি পরীক্ষণের পেছনের বিজ্ঞানটিও সঙ্গে সঙ্গে ব্যাখ্যা করা হয়েছে শিক্ষার্থীদের কাছে। পরীক্ষণগুলো দেখানোর জন্য ব্যাবহার করা হয় সহজলভ্য সব উপকরণ, যাতে শিক্ষার্থীরা বাসায় বসেই নিজেরা পরীক্ষাগুলি পুনরায় করে দেখতে পারে। কর্মশালা পরিচালনা করেন বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির অ্যাকাডেমিক কোঅর্ডিনেটর শিবলী বিন সারওয়ার, ইবরাহিম মুদ্দাচ্ছের এবং মো:জুনায়িদুল ইসলাম।

এই আয়োজন নিয়ে স্কলাস্টিকার শিক্ষার্থী সারফরাজের মতামত হচ্ছে, “আলোর একটা বিশাল জগতে আমাদের বসবাস। কিন্তু পাঠ্যপুস্তকের সব বাধানিয়মের বাইরেও আলোর এই জগৎকে এতো অল্প সময়ে, সাধারণ উপকরণের সাহায্যে সবার সামনে পাওয়া ছিল এক নতুন অভিজ্ঞতা।” এসপিএসবি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী ভিকারুন্নিসা নূন স্কুলের শিক্ষার্থী ফারিয়া ফেরদৌস বলেছে, “আলো নিয়ে এতো মজার সব এক্সপেরিমেন্ট যে এখানে দেখতে পাবো, সেটা ভাবতেও পারিনি। খুব ভাল লাগছে এখানে আসতে পেরে।”

আলো এবং আলোক-প্রযুক্তিগুলি কীভাবে মানুষের জীবনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে, জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করেছে, জীবনকে সহজ করেছে, সেটা নিয়ে সচেতনতা তৈরি করা, এবং কীভাবে ভবিষ্যতে আরো ব্যাপক মাত্রায় অবদান রাখতে পারে সে বিষয়ে মানুষকে জানানোর উদ্দেশে জাতিসংঘ ২০১৫ সালকে আন্তর্জাতিক আলো এবং আলোক-প্রযুক্তি বছর হিসেবে ঘোষণা করেছে। সারা পৃথিবীতে ৮৫টার বেশি দেশে ১০০টার বেশি সংস্থা ইউনেস্কোর সাথে কাজ করছে ২০১৫কে আলোর বছর হিসেবে

উদযাপনের কাজে। বাংলাদেশে আলোর বছর উদযাপনের সমন্বয়কের কাজ করছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি। আলোর বছর উপলক্ষে বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি সারা দেশে বিভিন্ন জেলায়, স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রদর্শনী, ওয়ার্কশপ, ডকুমেন্টারি, এক্সজিবিশন, পাবলিক লেকচার, বিজ্ঞান উৎসব,কুইজ, বিজ্ঞান ক্যাম্প, টেলিস্কোপে আকাশ দেখা, এক্সপেরিমেন্ট দেখানো সহ নানা ধরণের আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে।

আলোর ঝিলিক নামের এই আয়োজনটি সারা দেশেই, বিভিন্ন স্কুল এবং কলেজে ক্রমান্বয়ে আয়োজন করবে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি। এটা ছাড়াও আয়োজন করা হবে আলো নিয়ে নানা ধরণের অনুষ্ঠান। দেশের কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা কোন সংগঠন যদি আলোর ঝিলিক অথবা আলো নিয়ে যেকোনো ধরণের অনুষ্ঠান আয়োজন করতে আগ্রহী হন, সেক্ষেত্রেও বিজ্ঞান জনপ্রিকরণ সমিতির সাথে যৌথভাবে কাজ করতে পারবেন। পরবর্তীতে বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি আলোর ঝিলিক আয়োজন নিয়ে যারা আগ্রহী, তাদের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মশালারও আয়োজন করবে। আলোর বছর নিয়ে আরো জানা যাবে বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ ওয়েবসাইট www.spsb.org/iyl এ। বাংলাদেশে আলোর বছরের কোন আয়োজন সংক্রান্ত যে কোন পরামর্শ বা পরিকল্পনা থাকলে জানানো যাবে এই ইমেইল ঠিকানায়: [email protected]

এ জাতীয় আরও খবর