শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নরক যন্ত্রণার সড়ক!

news-image

Darkhar Road Pic 4মাসুক হৃদয় : ক্ষত-বিক্ষত সড়কটির সর্বত্রই খানাখন্দ আর গর্ত। ধুলোয় একাকার। ইট-সুড়কির পেস্টিং উঠে গিয়ে পুরো সড়ক লাল হয়ে গেছে। ভেঙ্গে গেছে এর কিনারা। এমন চিত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার ধরখার বাসষ্ট্যান্ড থেকে রুটি গ্রাম পর্যন্ত যাতায়তের সড়কটির।
দুর্ভোগ, দুর্দশা আর ঝুঁকি নিয়ে গত প্রায় দেড় বছর ধরে জনসাধারণ ও যানবাহন চলছে এই সড়ক দিয়ে।
ধরখার ইউনিয়নের ছয়টি গ্রাম ও কসবার মূলগ্রাম ইউনিয়নের চারটি গ্রামের বাসিন্দাদের আখাউড়া উপজেলা সদর ও জেলা সদরে নিয়মিত যাতায়তের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একমাত্র সড়কটির এই দুর্দশার চিত্র। এই সড়কে চলাচলকারি মানুষ ও যানবাহনের চালকদের প্রশ্ন- এ অবস্থায় আর কতদিন?
জানা যায়, ধরখার বাসষ্ট্যান্ড থেকে রুটি বাজার হয়ে কসবার মূলগ্রাম পর্যন্ত যাতায়তের জন্য এই সড়কটি গত বছরের (২০১৩) মাঝামাঝি সময়ে ৬৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হয়। সংস্কারের মাত্র চার মাস না যেতেই ক্ষত-বিক্ষত হয়ে পড়ে সড়কটি। আর দেড় বছরে এর রূপ ভয়াবহ আকার ধারণ করে। ফলে সড়ক দিয়ে চলতে জনসাধারণের পাশাপাশি যানবাহনের চালকদেরও সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
সম্প্রতি সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, সড়কটির সর্বত্র পিচ-খোয়া উঠে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ধরখার অংশের কুমারপাড়া, পুলিশ ফাঁড়ি, রাণীখার অংশের গলা কাটা মোড়, কাজী বাড়ি, আদিলপুর ব্রীজ এলাকার অবস্থা নাজুক। যানবাহনের যাতায়তের জন্য ধুলোয় ডেকে যাচ্ছে সড়ক। সড়কের দুই কিনারা ভেঙ্গে যাওয়ায় অত্যন্ত ধীর গতিতে চলছে গাড়ি।
সড়কটিতে নিয়মিত চলাচলকারি সিএনজি অটোরিক্সার চালক শেখ বুলবুল জানান, এই সড়কে গাড়ি চালানোর সময় মাত্রাতিরিক্ত ব্রেক কষতে হয়। ফলে খুব দ্রুত সময়েই গাড়ির ব্রেক ক্যাবল ও ক্লাচের ক্যাবল ছিড়ে যায়। তাছাড়া পুরো গাড়িরই বারোটা বাজে।
আরেক সিএনজি অটোরিক্সার চালক জসীম ভূঁইয়া জানান, সড়কের বেহাল দশার কারণে ধীর গতিতে গাড়ি চালাতে হয়। এতে জ্বালানি খরচ হয় বেশি।
সড়কটিতে নিয়মিত চলাচলকারি রাণীখার এস.এ হান্নান উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মো. ফারুক আহমেদ বলেন, সড়কটির অবস্থা এমন নাজুক যে মোটর সাইকেল নিয়ে চলতেও ভয় হয়।
নুরপুর গ্রামের সাবেক ইউপি মেম্বার জসিম উদ্দিন ফটিক ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, এই সড়কটি এত গুরুত্বপূর্ণ হওয়া সত্বেও এর সংস্কার কাজ করা হয়েছে যাচ্ছে-তাই। ফলে ছয় মাস না যেতেই সড়কটি ভেঙ্গে গেছে। এখন এই সড়ক নিয়ে এলাকাবাসীর ক্ষোভ আর দু:খের শেষ নেই।
অবশ্য কয়েকমাস আগে এই সড়ক উন্নয়ন বিষয়ে ওই এলাকার সাংসদ ও আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হকের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, ধরখার বাসষ্ট্যান্ড থেকে রুটি বাজার হয়ে ভাটামাথা পর্যন্ত প্রায় ৯.৯৮ কিলোমিটার সড়ক এলজিইডি’র বৃহত্তর কুমিল্লা প্রকল্পের আওতায় সংস্কার করা হবে। এজন্য ইতোমধ্যে এলজিইডিতে প্রকল্প জমা দেয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

আপলোড : মাসুক হৃদয়, বাংলাদেশ সময় : ১৩:৩০ ঘন্টা, মার্চ ০১, ২০১৫

 

এ জাতীয় আরও খবর