শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে নাটক

bangla-academyডেস্ক রির্পোট : বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারে এ বছরও বঞ্চিত হয়েছে নাটক। গত ১০ বছর ধরেই নাটকে দেওয়া হচ্ছে না এ পুরস্কার। এ বছর নাটক ছাড়াও বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও অনুবাদ সাহিত্যে এই পুরস্কারটি দেওয়া হয়নি। এতে নাট্যাঙ্গনের গুণীজনরা মনে করছেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়েই কয়েক বছর ধরে নাটকে পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে না। নাটকে যোগ্য কাউকে পাওয়া যায়নি, এ বিষয়টি সঠিক নয়।
বিভিন্ন নাট্যব্যাক্তিত্ব এবং বাংলা একাডেমীর পুরস্কারের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এ তথ্য জানা যায়
দেশের কবি-সাহিত্যিক ও নাট্যজনরা বলছেন, বর্তমান সময়ে অনেক ভাল ভাল নাটক হচ্ছে। নাটকে বাংলা একাডেমি পুরস্কার না দেওয়ার বিষয়টি দুঃখজনক। বাংলা একাডেমি পুরস্কারের ক্ষেত্রে ১০ বছর ধরেই অবহেলার স্বীকার হচ্ছে নাটক। এ বছর নাট্যকারের নাম প্রস্তাব করা হয়েছিল। তবে কেন পুরস্কার দেওয়া হল না সেটি বড় প্রশ্ন। এর উত্তর সংশ্লিষ্টরাই ভাল দিতে পারবেন।
ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউটের (আইটিআই) সভাপতি নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে  বলেন, এ বছরও নাটকে বাংলা একাডেমি পুরস্কার কাউকে দেওয়া হয়নি। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তিনি বলেন, আমি যতদূর জানি,নাটকের ক্ষেত্রে বাংলা একাডেমি পুরস্কার দিতে কয়েক বছর ধরেই অবহেলা করেছে। এ বছর দু’জন নাট্যকারের নাম প্রস্তাব হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কেন পুরস্কার দেওয়া হল না সেটা আমার কাছে বোধগম্য হচ্ছে না। এছাড়া রামেন্দ্র মজুমদার অনুবাদ সাহিত্য্ওে বাংলা একাডেমী পুরস্কার না দেয়ার সমালোচনা করেন। তিনি বলেন,আমাদের দেশে অনুবাদ সাহিত্য বর্তমানে অনেক সমৃদ্ধ।
নাট্যকার ও নির্দেশক মামুনুর রশীদ ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, এটা উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তিনি বলেন, নাটক অত্যন্ত শক্তিশালী একটি সাহিত্য মাধ্যম। যারা ভাল নাটক লিখছেন তাদের পুরস্কৃত না করে বাংলা একাডেমি অবিচার করেছে। আর্ন্তজাতিক বিশ্ব্ওে বাংলাদেশের নাটক দাপটের সঙ্গে বিচরণ করছে। তারপরও কেন প্রতিবারই বাংলা একাডেমি পদক থেকে বঞ্চিত হবে নাট্যাঙ্গনের মানুষ।
বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল চন্দন রেজা তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের শিল্প-সাহিত্যে সবচেয়ে বিকশিত মাধ্যম নাটক। নাটকে পুরস্কার না দেওয়ার মধ্য দিয়ে শিল্প-সাহিত্যের একটা শক্তিশালী মাধ্যমকে অস্বীকার করা হয়। বাংলা একাডেমির এই ধরনের উন্নাসিকতা থেকে বের হয়ে আসা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।
নাট্যজন আতাউর রহমান বলেন, এখনো অনেকে নাটককে সাহিত্য বলে স্বীকৃতি দিতে চায় না। তিনি আশা করছেন,আগামী বছর থেকে নাটক, অনুবাদসহ বঞ্চিত সংগঠন গুলোকে পুরস্কার দিয়ে মেধাবী সাহিত্যিকদের প্রতি সুবিচার করবে বাংলা একাডেমি।
মণিপুরি থিয়েটারের সভাপতি শুভাশিস সিনহা বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারের জুরিবোর্ডের প্রতি এ প্রশ্ন রেখে বলেন, নাটকে কি আসলেই যোগ্যতাসম্পন্ন কেউ নেই ? তিনি বলেন, এ প্রজন্মের অনেকেই ভাল নাটক লিখছেন। বাংলা একাডেমি এটা এক ধরনের অবহেলা মন্তব্য করে তিনি বলেন, পুরস্কার না দেওয়ার প্রবণতা শিল্পের একটি সক্রিয় শাখাকে অস্বীকার করা।
বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারের জুরিবোর্ডের সদস্য কবি আসাদ চৌধুরীকে এ ব্যাপারে জানতে চ্ওায়া হলে তিনি বিষয়টি অনেকটা এড়িয়ে যান । তিনি বলেন,পুরস্কার দেয়ার ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম-নীতি মানতে হয় বলে অনেক যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যাক্ত্ওি বঞ্চিত হন । নাটকে খাইরুল আলম সবুজ, মাসুম রেজা ও গাজী রাকায়েতের নাম প্রস্তাব আসার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন।
গত দশ বছর ধরে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারে নাটকে কাউকে নির্বাচন করা হচ্ছে না । সর্বশেষ ২০০৪ সালে নাটকে মান্নান হীরাকে পুরস্কার দেওয়া হয়। বাংলা একাডেমি সংশ্লিষ্টদের দাবি, নাটক, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও অনুবাদ সাহিত্যে যোগ্য কাউকে পাওয়া যায়নি। তাই এ সব ক্যাটাগরিতে পুরস্কার দেওয়া হয়নি।
বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান এ ব্যাপারে বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছু বলতে চাই না। এর জন্য জুরিবোর্ড আছে, তারা পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম মনোনীত করেছেন। সবকিছু বিবেচনায় নিয়েই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।
এ বছর ১ ফেব্রুয়ারী বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার প্রদান করা হয়। কবিতায় শিহাব সরকার, কথাসাহিত্যে জাকির তালুকদার, প্রবন্ধে শান্তুনু কায়সার, গবেষণায় ভূঁইয়া ইকবাল, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে আবু মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন, আত্মজীবনীতে মঈনুস সুলতান ও শিশসাহিত্যে খালেক বিন জয়েনউ“ীন পুরস্কার পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার প্রাপকদের হাতে তুলে দিয়েছেন।